বাংলাদেশ প্রতিবেদক: প্রেমের ফাঁদে ফেলে অভিনব প্রতারণার মাধ্যমে দুই বন্ধু মিলে এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। পূর্বে প্রেমের সম্পর্ক থাকা রাকিবুল হাসান মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার কথা বলে প্রেমিকাকে ডেকে নিয়ে যায়। প্রেমিকাও ছুটে যায় প্রেমিকের ডাকে। কিন্তু ভালোবাসার টানে ছুটে যাওয়ায় কাল হলো মেয়েটির জীবন। যাওয়ার পর প্রেমিক রাকিবুল হাসান ও বন্ধু মেহেদি হাসান দুজন মিলে ধর্ষণ করে। শত আকুতি করেও রেহাই পায়নি ভালোবাসার মানুষটির হাত থেকে। মেয়েটি কান্না করলে উচ্চশব্দে গান চালিয়ে চলে পালাক্রমে ধর্ষণ ও পাশবিক নির্যাতন।

শুক্রবার (১১ ডিসেম্বর) চট্টগ্রাম নগরীর আকবর শাহ থানার পূর্ব ফিরোজ শাহ কলোনি এলাকায় একটি বাসায় এমন নৃশংস ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ জানায়, আক্রান্ত মেয়েটি শারীরিক ও মানসিকভাবে চরম বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছেন। পাঁচ দিন আগে এই ঘটনা ঘটলেও পুলিশ এখনো অভিযুক্ত দুজনকে গ্রেফতার করতে পারেনি।

মঙ্গলবার (১৫ ডিসেম্বর) চট্টগ্রাম নগর পুলিশের উপকমিশনার (পশ্চিম) ফারুকুল হক বলেন, ‘দুই বন্ধু মিলে এক তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগে আকবর শাহ থানায় একটি মামলা হয়েছে। মেয়েটি ইন্টারমিডিয়েটের ছাত্রী। ছেলে দুজন বখাটে। আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। দুই আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। তদন্ত অব্যাহত আছে।’ নির্যাতিত মেয়েটি এখন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বলেও জানান তিনি।

অভিযুক্ত রাকিবুল হাসান আরিয়ান (২০) নগরীর আকবর শাহ থানার জানারখিল আরিফ চৌধুরী বাড়ির ভাড়াটিয়া মমতাজ চৌধুরীর ছেলে। আর মেহেদী হাসান (২৩) একই থানার পূর্ব ফিরোজ শাহ কলোনির ঈদগাঁও মাঠের পূর্বপাশে ই/পি লেনে আব্দুল বাতেন মেম্বারের ভবনের পঞ্চমতলার বাসিন্দা জাহিদুল ইসলাম জাহেদের ছেলে।

পুলিশ জানিয়েছে, আক্রান্ত ১৮ বছর বয়সী মেয়েটিও আকবর শাহ থানা এলাকার। তিনি নগরীর ওমরগণি এমইএস কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী।

মেয়েটির পরিবারের এক সদস্য এবং পুলিশের একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, রাকিবুলের সঙ্গে মেয়েটির প্রেমের সম্পর্ক ছিল। তবে পরিবারের চাপে মাসখানেক আগে মেয়েটি সেই সম্পর্ক ভেঙে দেয়। ঘটনার দিন বিকেলে বই কেনার কথা বলে মেয়েটি বাসা থেকে বের হয়। রাতে চরম অসুস্থ ও বিধ্বস্ত অবস্থায় বাসায় ফিরে কান্না শুরু করে।

মেয়েটি অভিভাবকদের জানায়, মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হওয়ার কথা বলে তাকে ফোন করেছিল রাকিবুল। আহত অবস্থায় তিনি মেহেদীর বাসায় আছে জানিয়ে তাকে সেখানে যাওয়ার অনুরোধ করেন। দুর্ঘটনার কথা শুনে মেয়েটি ওই বাসায় ছুটে যায়। কিন্তু সেখানে গিয়ে সে দেখতে পায়, রাকিবুলের দুর্ঘটনায় আহত হওয়ার বিষয়টি মিথ্যা। ফাঁকা বাসায় রাকিবুল ও মেহেদী মিলে তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করে। বাসায় ঢোকার পর তাদের উদ্দেশ্য বুঝতে পেরে মেয়েটি দুজনের পায়ে ধরে কান্না শুরু করে। কিন্তু কান্নার চিৎকার যাতে কেউ শুনতে না পায়, সে জন্য তারা উচ্চশব্দে সাউন্ডবক্সে গান ছেড়ে দেয়।