বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নারায়ণগঞ্জ বন্দরে নিখোঁজের তিন দিন পর পুকুর থেকে আরাফাত নামে নয় বছরের এক শিশুর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার (১৮ ডিসেম্বর) সকালে শিশুটির বাড়ির পার্শ্ববর্তী একটি পুকুর থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

নিহত আরাফাত বন্দর উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নের লাওসার এলাকার সাবেক ইউপি ওয়ার্ড সদস্য রফিকুল ইসলাম ওরফে মনা মেম্বারের ছেলে।

স্বজনরা জানান, মঙ্গলবার (১৫ ডিসেম্বর) রাত ৯টার দিকে বাসা থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হয় আরাফাত। রাতে বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করে তার কোনো সন্ধান না পাওয়ায় পরদিন পরিবারের পক্ষ থেকে বন্দর থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়। এদিকে শুক্রবার সকালে নিজেদের বাড়ির পাশে একটি বড় পুকুরে আরাফাতের মরদেহ ভেসে উঠলে এলাকাবাসী থানা পুলিশকে জানায়। পরে পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে। তার পরনে ছিল জিন্স প্যান্ট ও চকলেট রঙের চামড়ার জ্যাকেট।

স্বজনরা আরও জানান, আরাফাতের মরদেহের সুরতহাল করার সময় তার কপালে আঘাতের চিহ্ন ও মুখ দিয়ে রক্ত বের হওয়ার আলামত পাওয়া যায়। তাদের দাবি, আরাফাতকে কেউ পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। তারা এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করছেন।

খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন নারায়ণগঞ্জ-খ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খোরশেদ আলম এবং স্থানীয় মদনপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুস সালামসহ ধামগড় পুলিশ ফাঁড়ির কর্মকর্তা ও সদস্যরা। এ সময় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একই এলাকার তোফাজ্জলের ছেলে রাব্বিকে (২৩) আটক করে ধামগড় ফাঁড়ির পুলিশ। এ সময় স্বজনরাসহ এলাকার শত শত মানুষ ঘটনাস্থলে এসে ভিড় জমান। কান্নায় ভেঙে পড়েন আরাফাতের পরিবার ও নিকট আত্মীয় স্বজনরা। তারা ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তসহ ন্যায়বিচার দাবি করেন।

মদনপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুস সালাম বলেন, খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ছেলেটার আত্মীয় স্বজন ও এলাকাবাসীকে উত্তেজিত না হয়ে শান্ত থাকার পরামর্শ দিয়েছি। আশা করি, কেউ আইনশৃঙ্খলা ভঙ্গ করবে না। পাশাপাশি পুলিশ প্রশাসনকে বিষয়টির সুষ্ঠু তদন্ত করতে অনুরোধ করেছি এবং তারা আমাকে আশাও দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে বন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ফখরুদ্দিন ভূঁইয়া সময় নিউজকে বলেন, এলাকাবাসীর কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ সদর জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে। ছেলেটি পুকুরে ডুবে মারা গেছে নাকি কেউ হত্যা করেছে তা এখন পর্যন্ত আমরা নিশ্চিত না। বিষয়টি তদন্ত করে দেখছি। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর নিশ্চিত করে বলা যাবে।