তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলায় দরিদ্র ও ভূমিহীন পরিবারের জন্য বরাদ্দ দেওয়া আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পেয়েছেন সচ্ছল পরিবারের লোকজন ও সংশ্লিষ্ট জনপ্রতিনিধিদের স্বজনরা। অভিযোগ আছে, উপজেলার চরবংশী ইউপি সদস্যরা ৬-১০ হাজার টাকা করে নিয়ে সচ্ছল পরিবারের লোকজন ও নিজেদের স্বজনদের ঘরগুলো বরাদ্দ দিয়েছেন। জমি রেজিষ্ট্রারের জন্য কর্মকর্তারা ১২’শ টাকা আদায় করা হয়েছে।

প্রায় ৫০০ বর্গফুটের প্রতিটি বাড়িতে থাকবে দুটি বেড রুম, একটা কিচেন রুম, একটা ইউটিলিটি রুম, একটা টয়লেট ও একটা বারান্দা। দুর্যোগ সহনীয় এসব ঘর হবে টেকসই এবং প্রতিটি ঘরেই থাকবে সোলার সিস্টেম আর বজ্রপাত নিরোধক ব্যবস্থা। প্রতিটি সেমিপাকা ঘরের নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা। ইটের দেয়াল, কংক্রিটের মেঝে এবং রঙিন টিনের ছাউনি দিয়ে তৈরি সব বাড়ি সরকার নির্ধারিত একই নকশায় হচ্ছে। শনিবার প্রথম ধাপের ঘর বরাদ্দের উদ্বোধন অনুষ্ঠানটির বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে জেলা সম্মেলন কক্ষে সাংবাদিকদের সাথে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকের সভাপতিত্বে জেলা প্রশাসক একটি প্রেস ব্রিফিং করা হয়েছে।

আজ শনিবার (২৩ জানুয়ারী) সেই বরাদ্ধকৃত ঘরের মধ্যে চরবংশী ইউপির হাজিমারা আশ্রয়কেন্দ্রের পাশে সরকারি খাস জমিতে-২৫টি নির্মাণ ঘর উদ্ধোধন করবেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী।

রায়পুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কার্যালয় সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের অধীনে রায়পুর উপজেলার ‘যার জমি আছে, ঘর নেই’ তাদের জন্য ১১৫টি ঘর নির্মাণ বাবদ বরাদ্দ আসে। প্রতিটি ঘর নির্মাণে ব্যয় ধরা হয় একলাখ টাকা ৭০ হাজার টাকা। যার মধ্যে ১ম শ্রেণীর ঘর পাবেন, যাদের জমি নেই ও ঘরও নেই, তারা। উপজেলা কার্যালয় থেকে ইতোমধ্যে বরাদ্দের অর্থ তুলে গৃহ নির্মাণ সামগ্রী তৈরি শুরু করেছেন সংশ্লিষ্ট জনপ্রতিনিধিরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এসব ঘর বরাদ্দে প্রকল্পের নীতিমালা মানা হচ্ছে না। যাচাই-বাছাই ছাড়াই টাকার বিনিময়ে এসব ঘর বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে সচ্ছলদের।

স্থানীয় দরিদ্র ও ভূমিহীনদের অভিযোগ, ইউএনও’র আনুকূল্যে সংশ্লিষ্ট জনপ্রতিনিধিরা ঘর বরাদ্দে অনিয়মের সুযোগ পেয়েছেন। এ ছাড়া, যেসব ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে তাতে নিম্নমানের উপকরণ ব্যবহার করা হচ্ছে।

দক্ষিন চরবংশি ইউনিয়নে অনুসন্ধান চালিয়ে ঘর বরাদ্দে অনিয়ম ও অর্থ-বাণিজ্যের অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে। দক্ষিন চরবংশী ইউনিয়নে ৬ নাম্বার ওয়ার্ডে ৬ ব্যক্তির নামে ঘর বরাদ্দ হয়। কিন্তু ৮ জনকে চিহ্নিত করা গেলেও বাকি ৩ জনকে খুঁজে পাওয়া যায়নি।

দক্ষিন চরবংশি ইউনিয়নের মেম্বরদের অভিযোগ, চেয়ারম্যানের অনুসারিদের টাকার বিনিময়ে ভূমিহীন পরিবারের পরিবর্তে জমি, ঘর-বাড়ি আছে –এমন মানুষদের ঘর বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এ ইউনিয়নের দুলাল মেম্বারকে দিয়ে ঘর বরাদ্দ দেওয়া পরিবারগুলোর কাছ থেকে ৬-১০ হাজার টাকা করে নিয়েছেন স্থানীয় চেয়ারম্যান আবু সালেহ মিন্টু ফরাজি।

দক্ষিন চরবংশি ইউনিয়নের ইউনুসের পোলের গোড়া নামক এলাকার আবদুর রহিম ভুঁয়ার স্ত্রী লাকি বেগম। ইউপি সদস্য লিটন গাইনের বোন হন লাকি বেগম। তার বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, প্রায় ১০ বিঘা জমিজুড়ে একটি টিনশেড ঘর ও বাগান রয়েছে। তার বাবার বাড়ী থেকেও সম্পদের ভাগ পেয়েছেন। স্বামী থাকে সোনাপুর ইউপির রাখালিয়া গ্রামে। লাকির নামেও দেওয়া হয়েছে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর। তালিকায় ১০ নম্বরে রয়েছে তার নাম।

এ ব্যাপারে লাকি ও তার ভাই ইউপি সদস্য লিটন গাইয়েনের বক্তব্য জানতে চাইলে, তারা রাজি হননি। চেয়ারম্যানের সাথানে কথা বলতে বলেন।

তালিকার নাম রয়েছে এ ইউনিয়নের কালু বেপারির হাট এলাকার মুনর্শিদা ও তার স্বজন আয়েশা বেগমের নাম, যারা সম্পর্কে আপন নানি ও নাতিন। তাদের উভয় পরিবারের বসতভিটেয় টিনশেড ঘর রয়েছে। আবাদি জমি ও কর্মজীবী হওয়ায় তাদের পরিবারে সচ্ছলতা আছে। অথচ ঘর বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে তাদের নামে।

কালু বেপারির হাট গ্রামের ইউপি সদস্য দুলালের বসতঘরের সামনেমুত জয়নালের স্ত্রী তাজিয়া বেগম ও তার ২০০ গজ পাশেই মমিন তালুকদার। তারা দু’জনই সরকারের নামেও ঘর বরাদ্দ হয়েছে, যারা মূলত সচ্ছল। আখনবাজার এলাকার লোকমান ফরাজি ও শুক্কর সর্দারের অবস্থাও একই। শুক্কর সর্দারের মেয়েই জানেনা, ১০ বছরের তাদের নিখোঁজ বাবার নামে ঘর বরাদ্ধ হয়েছে।

ভেরিবাঁধের উপর বসবাস করা সলেমান মিয়া বলেন, ‘নিজের জায়গা জমি নেই। দিনমজুরি কাজ করে যা আয় হয় তা দিয়ে সংসার চালাতে হয়। টানাপড়েনের সংসার। নানা চেষ্টা করেও ৭ হাজার টাকা জোগার করতে পারিনি। তাই ঘর মেলেনি।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একই গ্রামের এক বৃদ্ধা বলেন, ‘ঘর দেওয়ার নামে চেয়ারম্যান আমার কাছে ১০ হাজার টাকা দাবি করেন। কিন্তু সেই টাকা জোগার করতে না পারায় আমার নামে ঘর বরাদ্দ দেননি চেয়ারম্যান।’ শুনেছি উনিও না কি ৫টি ঘর বরাদ্ধ পেয়েছেন।

আরও কয়েক জন গৃহহীনের অভিযোগ, ৫-১০ হাজার টাকার বিনিময়ে অবস্থাসম্পন্ন ব্যক্তিদের ঘর বরাদ্দ দিয়েছেন আ’লীগের চেয়ারম্যান মিন্টু ফরাজি। তালিকায় একই পরিবারের দুই জনের নামও অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। ইউপি সদস্য দুলালের মাধ্যমে প্রত্যেক পরিবারের কাছে টাকা আদায় করেন চেয়ারম্যান। ফলে আবেদন করেও ঘর বরাদ্দ পাওয়া থেকে বঞ্চিত হয়েছেন তারা।

ঘর বরাদ্দে অনিয়মের কারণে ক্ষুব্ধ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এডভোকেট মারুফ বিন জাকারিয়াসহ ইউনিয়নের সদস্যরাও। তাদের অভিযোগ, ওয়ার্ড পর্যায়ে প্রকৃত ভূমিহীনদের নামে ঘর বরাদ্দের কথা থাকলেও তা তারা জানেন না।

এ নিয়ে দক্ষিন চরবংশি ইউনিয়নের কয়েকজন ইউপি সদস্য ও আ’লীগ নেতা অভিযোগ, ‘এ ইউনিয়নে দরিদ্রদের নামে ঘর বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু স্বচ্ছলরাই ঘর পেলো। তাও আবার জনপ্রতিনিধিদের স্বজন। যারা ঘর পেয়েছেন, তাদের নামের তালিকা প্রকাশেও গড়িমসি করছেন চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্টরা।’

তারা আরও বলেন, ‘ইউএনও-র যোগসাজশে চেয়ারম্যান ইচ্ছেমতো সচ্ছল ও পছন্দের লোকদের ঘর বরাদ্দ দিয়েছেন। এ নিয়ে অভিযোগ করে কোনও প্রতিকার মেলেনি। উল্টো হুমকি-ধামকি দেয় চেয়ারম্যান।’

অনিয়মের অভিযোগ মানতে নারাজ দক্ষিন চরবংশি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু সালেহ মিন্টু ফরাজি। তিনি বলেন, ‘ঘর বরাদ্দে আমার ইউনিয়নে কোনও অনিয়ম হয়নি। ঘর বরাদ্দে কারও কাছ থেকে টাকাও নেওয়া হয়নি। তবে আমার নাম করে কেউ কারও কাছ থেকে টাকা নিয়েছে কিনা, জানা নেই।’

শুধু চরবংশি নয়, আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর বরাদ্দের ক্ষেত্রে অনিয়ম হয়েছে উত্তর চরবংশি, উত্তর চরআবাবিল, দক্ষিন চরআবাবিল ও চরপাতা ইউনিয়নেও। অন্য ইউপিগুলোর ভুমি কর্মকর্তারা তালিকা না দেয়ায় ভুমিহিনরাও বরাদ্ধও হয়নি।

যুগান্তর প্রতিবেদকের অনুসন্ধানে জানা যায়, সংশ্লিষ্ট জনপ্রতিনিধিদের ৬-১০ হাজার টাকা দিতে না পারায় এসব ইউনিয়নের দরিদ্র ও ভূমিহীন পরিবারগুলো আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর বরাদ্দ পায়নি।

এ ব্যাপারে দক্ষিন চরবংশি ইউপির আ’লীগের সহসভাপতি মনির হোসেন মোল্লা বলেন, ‘১১৫টি ঘর বরাদ্দেই ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতি হয়েছে। উপজেলা সহকারি কমিশনার ভুমি ও ইউপি চেয়ারম্যানরা টাকা নিয়ে ঘর বরাদ্দ দিয়েছেন। ইউনিয়নে খোঁজ নিলে এর সত্যতা পাওয়া যাবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রতি ঘর নির্মাণে একলাখ সত্তর হাজার-টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। অথচ ঘর নির্মাণে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করে অর্থ লোপাট করা হচ্ছে। চেয়ারম্যানরাই এসব অনিয়ম-দুর্নীতি করে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করছে।’

রায়পুরের ইউএনও সাবরিন চৌধুরি বলেন, ‘ঘর বরাদ্দে কোনও অনিয়মের অভিযোগ আমার জানা নেই। এ নিয়ে কেউ অভিযোগও করেনি। তবে অনিয়মের অভিযোগ যাচাই-বাছাই করা হবে। তালিকায় সচ্ছল ব্যক্তি থাকলে তাদের বাদ দিয়ে প্রকৃত গৃহহীনদের ঘর বরাদ্দ দেওয়া হবে। সুবিধাভোগীদের কাছ থেকে টাকা আদায়ের অভিযোগও তদন্ত করা হবে। এ ছাড়া, বরাদ্দের অর্থে প্রতিটি ঘর নীতিমালা অনুযায়ী নির্মাণ করা হবে। এসব ঘর নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করার জন্য চেয়ারম্যানদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। রড, সিমেন্ট, ইট, বালু উপজেলা কার্যালয়ের দায়িত্বে কিনে দেওয়া হয়েছে। এরপরও কোনও অনিয়মের সত্যতা পাওয়া গেলে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’ তবে তালিকা দেয়া যাবেনা।

এ ব্যাপারে উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মামুনুর রশিদ বলেন, ‘ঘর বরাদ্দের অনুমোদন ও তালিকার বিষয়ে কিছু জানা নেই আমার। এসব ঘর বরাদ্দ অনেক আগেই হয়েছে। তবে যেহেতু অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে, সেহেতু ডিসি ও ইউএনও-কে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হবে। যাচাই-বাছাই করে প্রকৃত সুবিধাভোগীদের মাঝে ঘর বরাদ্দ এবং সরকারের মহৎ উদ্দেশ বাস্তবায়নে অবশ্যই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

Previous articleঈশ্বরদীর পাকশীতে ৩৫০ পিচ ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক
Next articleপাবনায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২, আহত ৩
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।