বাংলাদেশ প্রতিবেদক: প্রথমে প্রেমের সম্পর্ক এরপর বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে একাধিকবার এক তরুণীর (২০) সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করেন এক যুবক। এরপর ওই তরুণী তার প্রেমিক মকছুদুল ইসলাম তাহদিলকে (২৪) বিয়ের জন্য চাপ দিলে সে নানা টালবাহানা শুরু করে। একপর্যায়ে তাকে মুখ না খোলার জন্য নানা রকম ভয়ভীতি দেখানো হয়।

শনিবার (৩০ জানুয়ারি) রাতে তরুণী ধর্ষণের অভিযোগে থানায় তাহদিলকে একমাত্র আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা নং-৩১ দায়ের করেন।

মামলার এজাহার নামীয় আসামি মকছুদুল ইসলাম তাহদিল জালালাবাদ থানাধীন বাছিরপুর মোল্লাবাড়ী গ্রামের রহিম উদ্দিনের ছেলে। মামলা দায়েরের পর থেকে লাপাত্তা রয়েছে তাহদিল।

পুলিশ জানায়, বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত ২১ জানুয়ারি রাত সাড়ে ১০টার দিকে তাহদিল জালালাবাদ থানাধীন নোয়াগাঁও গ্রামের ওই তরুণীর বাড়িতে যায়। এ সময় তাহদিল ওই তরুণীকে একটি কক্ষে নিয়ে ধর্ষণ করে। শনিবার রাতে ওই তরুণীকে জালালাবাদ থানা পুলিশ সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি করে।

জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাজমুল হুদা খান জানান, তরুণীকে বিয়ের আশ্বাস দিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করা হয়েছে বলে থানায় ভিকটিম বাদী হয়ে অভিযোগ দাখিল করলে পুলিশ মামলা হিসেবে তা নথিভুক্ত করে। মামলার এজাহার নামীয় আসামি একজন। পুলিশ তাকে গ্রেফতার করার জন্য অভিযান চালাচ্ছে। আর নির্যাতিতাকে হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি করা হয়েছে।