মারুফা মির্জা: সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার এনায়েতপুরে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন শান্তি কমিটির নেতার ছেলে এনায়েতপুর থানা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ বজলুর রশিদ ৭১-এ স্বশস্ত্র সংগ্রামে অংশ না নিয়ে হঠাৎ হয়ে গিয়েছিলেন মুক্তিযোদ্ধা। এ নিয়ে চড়ম বিতর্ক থাকলেও মুক্তিযোদ্ধার হবার সুবাদে নিয়েছিলেন সরকারী ভাতা ও রাষ্ট্রিয় সকল সুযোগ সুবিধা। অবশেষে এই আওয়ামীলীগ নেতা এলাকাবাসী তথা সকল মহলের জোড়ালো দাবী ও সর্বশেষ ঝাছাই-বাছাই কমিটির অনুসন্ধ্যানে প্রকাশিত তথ্যে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে প্রমানিত হয়েছেন। বাদ পড়েছেন তালিকা হতে। এ নিয়ে পুরো শাহজাদপুর ও এনায়েতপুর জুড়ে ব্যাপক আলোচনা চলছে। হচ্ছে মিষ্টি বিতরন। ধিক্কার জানিয়ে এলাকাবাসী দাবী তুলেছে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা হয়ে রাষ্ট্রিয় সুযোগ সুবিধা গ্রহন করায় বজলুর রশিদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহনের। ১৯৭১ সালের নথি পর্যালোচনা করে জানা যায়, ১৯৭১ সালের ১২ মে শাহজাদপুর উপজেলার এনায়েতপুর থানার জালালপুর ইউনিয়নে ১৯ সদস্য বিশিষ্ট ইউনিয়ন পিস কমিটি গঠন করা হয়। ঐ কমিটির ১১ নম্বর সদস্য হচ্ছে বজলুর রশিদের বাবা জয়নাল আবেদিন। তিনি এলাকায় পাক বাহিনীর দালাল হিসেবে প্রত্যক্ষ ভাবে সহযোগীতা করেছেন। বজলুর রশিদ পরিবারের ৪ ভাই ৫ বোনের মধ্যে ছিল দ্বিতীয়। জালালপুর ইউনিয়নের সৈয়দপুর গ্রামে বজলুর রশিদের জন্ম ১৯৫৫ সালের ১০ অক্টোবর। ৭১-এ মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন তখন ১৫ বছরের বজলুর রশিদ মুলত ছিল পাশের স্থল পাকড়াশী ইন্সটিটিউটের ৯ম শ্রেনীর ছাত্র। স্বাধীকার আন্দোলন সময় বাড়িতেই অবস্থান ছিল তার। বাবাকেই কাজে সহযোগীতা করতো সে। এলাকার কেউ তাকে কখনো মুক্তিযুদ্ধে যোদ্ধা হিসেবে দেখেনি। শাহজাদপুর বঙ্গবন্ধু মহিলা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ বজলুর রশিদের তথ্য অনুসন্ধানে জানা যায়, ৭১-এর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রধান তালিকা মুক্তিবার্তায় (লাল বই) নেই কোন তার নাম। প্রধানমন্ত্রীর প্রদত্ত সনদও নেই। তবে অসৎ উপায়ে ২০০৪ সালে প্রকাশিত সে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে গেজেট ভুক্ত হয়েছেন। মন্ত্রনালয়ের সনদ নম্বর-ম ৭৬২৩, স্মারক নম্বর-১৫৫, তারিখ- ২৭/১১/২০০২। তার ভাতা বই নম্বর-৩২৮। তার গ্রাম সৈয়দপুর গিয়ে বিভিন্ন জনের সাথে কথা বলে জানা যায়, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে তার বাবার বিতর্কিত কর্মকান্ডের কথা। তবে যুদ্ধ শেষ হয়ে গেলে তার বাবা একটি গরু জবাই করে এলাকার সবাইকে খাওয়াইয়ে রক্ষা পান বলে জানা গেছে। দেশ স্বাধীনের পর অবস্থা বুঝে এরপর আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে নিজেকে আবদ্ধ করেন বজলুল রশিদ। পাশাপাশি বঙ্গবন্ধু মহিলা কলেজে কর্মজীবন শুরু করে অধ্যক্ষ হিসেবে শেষ করেন। তিনি এনায়েতপুর থানা আওয়ামীলীগের বর্তমানে সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। কৌশলী এই মানুষটি আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে সক্রিয় থাকলেও অসামাজিকতার কারনে নিজের ব্যক্তিগত কর্মী গোছাতে পারেননি। এর আগে তার ভায়ড়া প্রয়াত এমপি অধ্যাপক শাহজাহানের সহযোগীতায় হয়েছিলেন এলাকার চেয়ারম্যান। মানুষের জন্য খুব একটা কাজ করেননি বলে জনপ্রিয়তা হারিয়েছেন। ২০০৪ সালে হঠাৎ তার মুক্তিযোদ্ধা হবার বিষয়টি এলাকা জুড়ে বেশ সমালোচনার ঝড় বয়। এর মধ্যেই ২০১৩-১৪ অর্থ বছর হতে তিনি সরকারী ভাবে মুক্তিযোদ্ধার সম্মানী ভাতা সহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা নিচ্ছেন। সরকারীূ চাকুরী কোঠায় সন্তানের চাকুরী নিয়েছেন। বেআইনী ভাবে

রাষ্ট্রিয় এসব সুযোগ-সুবিধা নেয়ায় তার বিরুদ্ধে শাস্তি দাবী করেছেন ৭১ এর মুক্তিযোদ্ধা কেন্দ্রিয় সংগঠনের সিনিয়র সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল বাশার ও সৈয়দপুর গ্রামের বৃদ্ধ সমাজ-সেবক মজিবর রহমান, হাজী আবুল কালাম জানান, বজলুর রশিদ সহ তার পরিবারের কেউ মুক্তিযোদ্ধা তো দুরের কথা, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষেও কাজ করেনি। আমরা বার-বার বলে আসছি। এবার তা সত্যি প্রমান হলো। রাজাকার পুত্র মুক্তিযোদ্ধার তালিকা হতে বাদ পড়েছে। কলংক মুক্ত হয়েছি আমরা। তারা দাবী করে জানান, অন্যায় ভাবে সে রাষ্ট্রিয় সুবিদা নিয়েছে এজন্য পদক্ষেপ গ্রহন করার পাশাপাশি এনায়েতপুর থানা আওয়ামীলীগের পদ থেকেও তাকে বহিঃস্কার করতে হবে। এ ব্যাপারে বজলুর রশিদ জানান, আমি শুনেছি আমাকে তালিকা হতে বাদ দিয়েছে। তবে এখনো চিঠি পাইনি।