নাজমুল হক: রাজধানীর “বাড্ডা থেকে কুড়িল কুড়াতলী (প্রগতি স্বরণি) পর্যন্ত সড়কের মাঝে প্রায় ৫ ফুট উঁচু মিডআইল্যান্ড বেরিয়ার (বেষ্টনি) স্থাপন করা হয়েছে। এতে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর হার কল্পনাতীতভাবে কমে গেছে বলে অভিমত এলাকাবাসীর। তবে এ সড়কের রাস্তা পারাপারে ৫ টি পয়েন্টে ফুট ওভারব্রীজ থাকলেও বাড্ডা লিংক রোড ও শাহজাদপুর কনফিডেন্স টাওয়ার সংলগ্ন গুরুরত্বপূর্ণ দু’টি পয়েন্টে এখনো ফুট ওভার ব্রীজ স্থাপন করা হয়নি। এতে মৃত্যুর ঝুঁকি রয়েই গেছে বলে অভিযোগ এলাকাবাসীসহ ভুক্তভোগীদের। তাই জরুরী ভিত্তিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের গুরুত্বপূর্ণ ওই দু’টি পয়েন্টে ফুট ওভার ব্রীজ নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় অধিবাসীরা। সরেজমিনে জানা যায়, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) ১৮, ২১, ২২, ৩৯, ৪০ ও ৪১ নম্বর ওয়ার্ডের ১০ লক্ষাধিক অধিবাসী প্রতিনিয়ত এ সড়কটি ব্যবহার করেন। কুড়িল, বসুন্ধরা, নর্দ্দা, কোকাকোলা, নতুন বাজার, নয়ানগর, বারিধারা,নূরের চালা, খিলবাড়ীরটেক , বাশঁতলা, শাহজাদপুর, বাড্ডা ও গোপীপাড়াসহ বেশ কয়েকটি এলাকার লাখো শিক্ষার্থী ও অভিভাবক প্রতিদিন এ সড়ক পারাপার হন। বিশেষ করে এ সড়কের ৭ টি পয়েন্ট দিয়ে প্রতিনিয়িত প্রায় ৫ লক্ষাধিক শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের রাস্তা পারাপার হতে হয়। তবে এ সড়কের বাড্ডা লিংক রোড ও শাহজাদপুর কনফিডেন্স টাওয়ার সংলগ্নে মানুষের চলাচল অনেক বেশি বলে এ দু’টি পয়েন্টে ফুট ওভার ব্রীজ খুবই জরুরী বলে মনে করেন অভিজ্ঞমহল। এর মধ্যে শাহজাদপুর কনফিডেন্স টাওয়ার সংলগ্ন সড়কের দুই পার্শ্বে ছোট বড় ১২ টি প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় থাকায় এ পয়েন্ট দিয়ে হাজার হাজার ছাত্র-ছাত্রীর রাস্তা পারাপার হতে হয়। স্থানীয় অধিবাসীরা জানায়, “বাড্ডা থেকে কুড়িল কুড়াতলী (প্রগতি স্বরণি) পর্যন্ত সড়ক একসময় মৃত্যু ফাঁদ হিসেবেই সবার কাছে পরিচিত ছিল। পরিসংখ্যানে দেখা যায়, বিগত সময়ে প্রতি বছর এই সড়কে ৭০ থেকে ৮০ টি দুর্ঘটনায় ৩০ থেকে ৪০ জনের মৃত্যু ছিল অবধারিত। এদিকে বসুন্ধরা এলাকায় গত বছর মার্চে জেব্রাক্রসিং দিয়ে রাস্তা পারাপারের সময় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী আবরার সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়। এ ঘটনার কিছু দিন পর ওই রাস্তার মাঝে মিডআইল্যান্ড বেরিয়ার ও ফুটওভারব্রীজের কাজ করে সিটি কর্পোরেশন। পরবর্তীতে বাড্ডা-কুড়িল সড়কের দুই পাশে বসবাসরত লাখো মানুষের কাছে ওই বেষ্টনী যেন আশীর্বাদ হয়ে দেখা দিয়েছে। তবে সড়কটির দু’টি পয়েন্টে জরুরী ফুট ওভার ব্রীজের প্রয়োজন যেন পিছু ছাড়ছেনা। এই বিষয়ে শাহাজাদপুরের স্থানীয় বাসিন্দা ফজলুল করিম প্রিন্স যুগান্তরকে বলেন, এক সময় এই সড়কটিকে স্থানীয়ভাবে ‘অজরাইলের রাস্তা’ নামে পরিচিত ছিল। কারণ প্রতি ১ বা ২ সপ্তাহের ব্যবধানে এখানে সড়ক দুর্ঘটনায় দু’একজনের জনের মৃত্যুর ঘটনা ছিলো নিশ্চিত । বাশঁতলার স্থানীয় বাসিন্দা ইসরাত জাহান উর্মি যুগান্তরকে জানান, ” মেয়েকে সড়কের পূর্ব পাশের স্কুলে ভর্তি করতে হয়েছে। বছর খানেক আগেও এই সড়কে র্দূঘটনায় আমার ফুফুর মৃত্যু হয়। আর প্রতিনিয়ত রাস্তা পার হওয়ার সময় এখনও মনে ওই ভয় জাগ্রত হয়। এই মুহুর্তে শাহাজাদপুরে একটি ফুট ওভারব্রীজ অত্যন্ত জরুরী। গত ২ বছর যাবৎ শুনছি ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণের কথা। কিন্তু কবে নাগাদ ফুটওভার ব্রিজ হবে জানি না” এ বিষয়ে নর্দ্দা এলাকার অধিবাসী ওমর ফারুক যুগান্তরকে বলেন, “সড়ক বেষ্টনী হওয়ার পর দূর্ঘটনার মাত্রা ইতিমধ্যে ৯০ শতাংশ কমে গেছে। আর বিগত এক বছরে ৭/৮টি সড়ক দুর্ঘটনার ২ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। অথচ আগে এ সড়কে প্রতি বছর সড়ক দূর্ঘটনায় অন্তত ৪০ থেকে ৪৫ জন মানুষের মৃত্যুর খবর মিলত। তবে এখনো টুকটাক দুর্ঘটনার খবর শুনি শাহাজাদপুরে।শাহজাদপুরের ফুটওভারব্রিজ না থাক তার জেরেই দুর্ঘটনাগুলো হচ্ছে। ডিএমপি’র ট্রাফিক উত্তর বিভাগ সূত্রে জানা যায়, প্রগতি স্বরণির আইল্যান্ড বেষ্টনীর প্রস্তাবক ছিলেন ঢাকা উত্তর ট্রাফিক বিভাগ-বাড্ডা জোনের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) মো. আব্দুল্লাহ আল-মামুন। পরবর্তীতে বাড্ডা-কুড়িল সড়কটিতে (প্রগতি স্বরণি) মিডআইল্যান্ড বেরিয়ার বা বেষ্টনী দেওয়ার পর এখানে মানুষের মাঝে ব্যাপক পরিবর্তনও লক্ষ্য করা গেছে। এখন যত্রতত্র কেউ সড়ক পার হতে পারেনা বলে এ এলাকার যানজট অনেকটাই হ্রাস পেয়েছে। পাশাপাশি সড়ক দূর্ঘটনাও কমেছে কল্পনাতীতভাবে। তবে ট্রাফিক এসির ওই প্রস্তাবিত মডেল পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন না হওয়ার প্রগতি স্বরণির শতভাগ সুবিধা এখনো ভোগ করতে পারছেননা এলাকার সকল মানুষ। ওই প্রস্তাবনায় এই সড়কটিকে শতভাগ দুর্ঘটনা ও যানজট মুক্ত করার জন্য অন্তত আরও ৫ টি ফুটওভার ব্রীজ প্রয়োজন। বিশেষ করে যমুনা ফিউচার পার্ক, শাহাজাদপুর ও লিঙ্ক রোডের ফুটওভার ব্রীজ খুবই দ্রুত সময়ে ব্যবস্থা করতে হবে। অন্যথায় সড়কে নানা দূর্ঘটনায় প্রাণহানীর আশঙ্কা থেকেই যায়। এ বিষয়ে ঢাকা উত্তর ট্রাফিক বিভাগ-বাড্ডা জোনের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) মো. আব্দুল্লাহ আল-মামুন যুগান্তরকে বলেন, আমার প্রস্তাবিত পূর্ণ মডেল বাস্তবায়িত হলে মানুষ অনেক সুফল পাবে। প্রগতি স্বরণির বাড্ডা লিংক রোড ও শাহজাদপুর কনফিডেন্স টাওয়ার সংলগ্ন এ গুরুরত্বপূর্ণ দু’টি পয়েন্টে ফুটওভার ব্রীজের বিকল্প হিসেবে বর্তমানে যে জেব্রাক্রসিং দেওয়া হয়েছে তাতে কোন সিগনাল লাইটের ব্যবস্থাও নেই। এসব ক্রসিং দিয়ে প্রতিদিন লাখো মানুষ পারাপার হয় বলে ওই পয়েন্টগুলোতে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। এতে যাত্রী ও সাধারণ মানুষ চরম ভোগান্তিতে পরেন। ওই দুই পয়েন্টে সার্বক্ষনিক ২ জন ট্রাফিক পুলিশ নিয়োগ করতে হয়। অথচ ওখানে ফুটওভারব্রীজ করে দিতে পারলে ট্রাফিক পুলিশের আর প্রয়োজন হবে না, যানজটও হ্রাস পাবে। সর্বোপরী ছাত্র-ছাত্রী বা সাধারণ মানুষের জীবনের ঝুঁকিও ব্যপকভাবে হ্রাস পাবে।এই বিষয়ে ডিএনসিসির ১৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. জাকির হোসেন বাবুল যুগান্তরকে বলেন, প্রগতি স্বরণির কারণে বাড্ডা-কুড়িল সড়কের দুর্ঘটনা প্রায় শূন্যের কোঠায় চলে এসেছে। আবরারের মৃত্যুর পর জরুরীভাবে সড়কের মাঝে বেষ্টনি স্থাপন করায় এমনটা হয়েছে। আর আওয়ামীলীগ সরকার জনবান্ধব সরকার বলে সড়ক দূর্ঘটনা ও যানজট নিরসনে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। তাছাড়া প্রগতিস্মরনীর অন্যতম ব্যস্ত এলাকা কনফিডেন্স টাওয়ারের সামনে একটি ফুটওভারব্রীজের বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে অনেক আগেই। নির্মাণ কাজ শুরু হওয়ার কথা ছিলো অনেক আগেই। আশাকরি দ্রুত সময়ের মধ্যে কাজ শুরু হবে।

Previous articleরায়পুর পৌরসভা নির্বাচন: হেরে গেলেন সহোদর দু’জনই
Next articleবিপুল ভোটে বিজয়ী হওয়ায় কাউন্সিলর আফজাল হোসেন বাবুকে সংবর্ধনা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।