বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বাকিতে সিগারেট না দেওয়ায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক দোকানিকে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে ছাত্রলীগ কর্মীর বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) রাত সাড়ে ৭টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন মার্কেটে ক্যাম্পাস ফুড কর্নারে এই ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত শেখ সিয়াম বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্সি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের ২০১৬-১৭ সেশনের শিক্ষার্থী। মারধরের শিকার শাহ আলম (৪৭) বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন মার্কেটের ‘ক্যাম্পাস ফুড কর্নার’র স্বত্বাধিকারী। মারধরের সময়ে শেখ সিয়ামের সঙ্গে আরো তিনজন ছাত্রলীগ কর্মী ছিলেন। তাদের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি। তবে তারা শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু ও সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান মিশুর অনুসারী বলে জানা গেছে।

ভুক্তভোগী দোকানি আলম জানান, সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ছাত্রলীগের এক কর্মী তার কাছে সিগারেটের জন্য আসেন। তিনি বলেন, সিগারেট নিতে হলে আগে টাকা দিতে হবে। আমি বাকিতে সিগারেট দেব না। তখন ওই ছাত্রলীগ কর্মী বলেন, আমাকে মিশু ভাই পাঠিয়েছেন। আমি তাকে বলি যেই পাঠাক বাকিতে সিগারেট দেওয়া যাবে না। তখন সে দোকান ত্যাগ করে। পরে সে আরো তিনজনকে নিয়ে এসে আমাকে বলে তুই মিশু ভাইকে চিনিস? এটা বলেই তারা আমাকে দোকানের ভেতরে ঢুকে মারধর করে।

অপরদিকে মারধরের বিয়ষটি অস্বীকার করেন শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান মিশু। তিনি জানান, আমি এক ছোট ভাইকে ওই দোকানে চা, সিগারেটের জন্য পাঠাই। দোকানদার চা, সিগারেট দেওয়ার আগেই টাকা চান। এ নিয়ে ওদের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। তবে ওখানে মারধরের কোনো ঘটনা ঘটেনি।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত সিয়ামের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

ঘটনা পরবর্তী সময়ে ওই দোকানির সঙ্গে দেখা করেন শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া ও সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু। তারা বিষয়টি মীমাংসা করে দিয়েছেন বলে জানান।

Previous articleরংপুরে ২টি পৌরসভার মেয়র কাউন্সিলরদের শপথ
Next articleদ্বিতীয় বিয়ে করলে স্বামী-স্ত্রী পেনশন পাবেন না
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।