ফজলুর রহমান: রংপুরের পীরগাছা রেলওয়ে স্টেশন দিয়ে প্রতিদিন চারটি আন্তনগর ট্রেন চলাচল করে। এর মধ্যে রংপুর এক্সপ্রেস রংপুর থেকে ও লালমনি এক্সপ্রেস ট্রেন লালমনিরহাট থেকে ঢাকা যায়। এছাড়া সান্তাহার থেকে করতোয়া এক্সপ্রেস বুড়িমারী ও দোলনচাঁপা এক্সপ্রেস দিনাজপুর চলাচল করে।

পীরগাছা স্টেশনের জন্য ঢাকাগামী চারটি আন্তনগর ট্রেনে সব মিলিয়ে প্রায় ৫০ টি আসন বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। তবে বরাদ্দ করা আসনের সংখ্যার তুলনায় যাত্রীর চাপ থাকে কয়েক গুণ বেশি। ফলে এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে একটি চক্র টিকিট কালোবাজারি করে আসছে। সরেজমিনে দেখা যায়, পীরগাছা রেল স্টেশনের ৩ নং লাইনটি মাটির নিচে। লাইনের উপরে অবৈধ ভাবে অটোস্ট্যান্ড তৈরী করেছেন একটি প্রভাশালী মহল। যেখানে প্রতিনিয়ত ট্রেনযাত্রীরা হয়রানির স্বীকার হচ্ছে। স্টেশনটি জনগুরুত্বপূর্ণ হলেও, এখানে একটি টিউবওয়েল নেই। টিউবওয়েল না থাকায় যাত্রী সাধারণ পানি পানে ব্যাঘাত সৃষ্টি হচেছ। প্লাটফর্মটি ব্যবহার অনুপযোগী। যেখানে সেখানে ভাঙ্গা, যাত্রী সাধারণ লাগেজ পরিবহনে চরম অসুবিধার সম্মুখীন হচ্ছেন। প্রথম শ্রেণির বিশ্রামাগারটি ব্যবহার অনুপযোগী। এখানে লাইটিং ব্যবস্থা নেই। টয়লেটের অবস্থা খুবই খারাপ। টয়লেটের সেপ্টিটাংকি প্রয়োজনের তুলনায় একেবারেই সামান্যতম হওয়ায় অল্প সময়ের মধ্যেই ভরে যায়। ৭৭১/৭৭২ ও ৭৫১/৭৫২ ট্রেন দুটির এসি প্রথম শ্রেণির কোচটি প্লাটফর্ম হইতে কমপক্ষে ১৫০ ফুট বাহিরে হওয়ায় অসুস্থ ও বয়স্ক যাত্রীরা সাভাবিক ভাবে ট্রেনে ওঠানামা করতে পারেন না। অনেক সময় অনেকেই ট্রেন থেকে পড়ে যান। প্লাটফর্মের উপরের সেটটি মেরামতের অভাবে সামান্য বৃষ্টিতে পানি পরায় যাত্রী সাধারণ ভিজে যায়। সেই সাথে স্টেশনে পানি জমে থাকে। পানি নিষ্কাশনের যথাযথ ব্যবস্থা নেই। ওভার ব্রিজটি আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধন করে ব্যবহারের পূর্বেই সংস্কারের প্রয়োজন হয়ে পড়েছে। প্লাটফর্মের লাইন বেড়িগেট না থাকায় প্লাটফর্মের উপর দিয়ে মোটর সাইকেল, বাই সাইকেল ও ভ্যানগাড়ি অবাধে চলাচল করছে। এমনকি প্লাটফর্মে ট্রেন অবস্থান রত অবস্থাতেও মোটরসাইকেলে হর্ণ বাজিয়ে চলাচল করে নিরব দর্শকের মত তাকিয়ে থাকেন স্টেশন কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ। পীরগাছা রেলওয়ে স্টেশনটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি স্টেশন। এখানে দৈনিক আয় গড়ে প্রায় ৪০ হাজার টাকা। পীরগাছা স্টেশন সূত্র জানায়, পীরগাছা স্টেশনের জন্য রংপুর এক্সপ্রেসের ২০টি নন এসি ও চারটি এসি, লালমনি এক্সপ্রেসের ৩০টি নন এসি ও ছয়টি এসি, করতোয়া ও দোলনচাঁপা এক্সপ্রেসের জন্য ২০ টি করে আসন বরাদ্দ দেওয়া রয়েছে। তবে দোলনচাঁপা এক্সপ্রেসে পীরগাছা থেকে সান্তাহার গামী ট্রেনে কোন আসন বরাদ্দ নেই। লালমনি ও রংপুর এক্সপ্ধেসঢ়;্রস ট্রেন দুটিতে বামনডাঙ্গা হইতে নাটোর, কাউনিয়া হইতে লালমনিরহাট ও রংপুর টিকিট বরাদ্দ না থাকায় দৈনিক কয়েক হাজার টাকা রাজস্ব হারাচ্ছে রেলওয়ে। সেই সঙ্গে কিছু অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর পকেট ভারী হচ্ছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বরাদ্দকৃত আসন সংখ্যার তুলনায় যাত্রী বেশী হওয়ায় একটি চক্র টিকিট কালোবাজারি করছে। তাঁরা আগেই টিকিট সংগ্রহ করে চড়া দামে সাধারণ যাত্রীদের নিকট বিক্রি করছে। শুধু টিকিট কালোবাজারি চক্র নয়, আরো নতুন একটি চক্র গড়ে উঠেছে। তাঁরা ট্রেনের টিকিট পরিদর্শকদের সঙ্গে আঁতাত করে টিকিট ছাড়াই যাত্রীদের ট্রেনে উঠিয়ে দেন। বিনিময়ে তারা টিকিট পরিদর্শকের নিকট থেকে যাত্রী প্রতি কমিশন পেয়ে থাকেন। আর টিকিট পরিদর্শকরা যাত্রীদের কাছ থেকে অর্থ নিয়ে টিকিট ছাড়াই বিভিন্ন কৌশলে গন্তব্যে পৌঁছে দেন। এতে বিপুল পরিমান রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে সরকার। রহিম মিয়া নামে এক যাত্রী বলেন, ‘পীরগাছা স্টেশন মাস্টারের কার্যালয়ে বেশীরভাগ সময় টিকিট পাওয়া যায় না। কিন্তু অতিরিক্ত অর্থের বিনিময়ে বাইরে ঠিকই টিকেট পাওয়া যায়।’ টিকিট বিক্রির সময় অধিকাংশ যাত্রীর নিকট হইতে ২০ টাকা করে বেশি গ্রহণ করেন।

কোন কারণে কোন যাত্রীর যাত্রা বাতিল হলে টিকিট ফেরত দিতে আসলে ঘোষণা দিয়ে মাস্টার রায়হানুর রহমান রাজু ৮০ টাকা হইতে ২০০ টাকা পর্যন্ত কর্তন করেন। কর্তনকৃত টাকা তিনি পকেটস্থ করেন। তিনি কাউকে ফেরতকৃত টাকার রশিদ দেন না। ঢাকাগামী লালমনি এক্সপ্রেসের যাত্রী আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘স্টেশন মাস্টারের রুমে গেলে স্টেশন মাস্টার রায়হানুর রহমান রাজু প্রথমেই বলে টিকিট শেষ হয়ে গেছে। তবে বকশিস হাতে ধরায় দিলে ঠিকই টিকিট মিলে। তাছাড়া এখানে টিকিট না পেলেও সমস্যা নেই। দালালদের মাধ্যমে ট্রেনে উঠলে টিকিট পরিদর্শকদের টাকা দিলেই টিকিট ছাড়াই গন্তব্যে যাওয়া যায়।’ পীরগাছা সদরের রাজবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারি প্রধান শিক্ষক বাবু বলেন, আমি দুইটি টিকিট ফেরত দিতে গেলে ছোট বাবু ৪০০ টাকা কম দিয়ে আমাকে ৫৬০ টাকা পেরত দেন। স্টেশন সংলগ্ন হোমিও ডাক্তার আব্দুল ওয়াদুদ বলেন, দুইটি টিকেট ফেরত দিতে গেলে রশিদ ছাড়াই দুইশত টাকা কম দিয়ে ৭৬০ টাকা আমাকে ফেরত দেন। পীরগাছা স্টেশনের সহকারী স্টেশন মাস্টার রাজু অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘এখানে কোন টিকিট কালোবাজারে বিক্রি হয়না। তবে স্টেশনের বাইরে বিক্রি হলে তো আমরা বলতে পারি না।’ ফেরত টিকিটের টাকা কম দেওয়ার বিষয়ে তিনি আরও বলেন, রেলের আইন অনুযায়ী টাকা কর্তন করা হয় না। উভয়ের স্বার্থ রক্ষার্থে সামান্য টাকা কর্তন করা হয়।

Previous articleসোনারগাঁও থানা পুলিশের উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ
Next articleশার্শা ও বেনাপোল থানা পুলিশের জনসচেতনতা ও মাস্ক বিতরণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।