ফজলুর রহমান: রংপুরের পীরগাছায় বসত ভিটা থেকে উচ্ছেদের জন্য মৃৎশিল্প কারখানায় আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে প্রতিবেশি মোংলা পালের বিরুদ্ধে। অভিযোগ ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, উপজেলার তাম্বুলপুর ইউনিয়নের পালপাড়া গ্রামে কেশব পাল ও মোংলা পাল এর মাঝে পৈত্রিক জমির সীমানা নিয়ে বিরোধ চলছিল। দীর্ঘদিন থেকে মোংলা পাল স্থানীয় একটি প্রভাবশালি মহলকে ব্যবহার করে কেশব পাল এর দুই শতাংশ জমি ক্রয় করে নেয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করেন। বসত বাড়িতে জমির পরিমাণ কম থাকায় কেশব পাল জমি বিক্রয়ে রাজি হননি। গত মঙ্গলবার(১৮ মার্চ) মোংলা পাল ও তার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে কেশব পাল এর বেশ কিছু বিভিন্ন প্রজাতির গাছ উপড়ে ফেলেন। এঘটনাকে কেন্দ্র করে ওই দিন কেশব পাল বাদী হয়ে পীরগাছা থানায় একটি এজাহার দায়ের করেন এবং পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পরে গত বুধবার (১৯ মার্চ) কেশব পাল এর বসত ভিটার মৃৎশিল্প কারখানায় গভীর রাতে আগুন লাগিয়ে পুড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠে মোংলা পাল এর বিরুদ্ধে। অভিযোগ অস্বীকার করে মোংলা পাল জানান, আমার স্ত্রী অসুস্থ থাকায় ওই দিন আমি পীরগাছা হাসপাতালে অসুস্থ স্ত্রীকে নিয়ে ছিলাম। ঘটনার দিন আমার অসুস্থ্য স্ত্রীকে নিয়ে আমি পীরগাছা হাসপাতালে ছিলাম। আগুন লাগার বিষয়ে আমি কিছু জানিনা। কেশব পাল এর সাথে মোবাইলে কথা হলে তিনি জানান, আমাকে বসত ভিটা থেকে উচ্ছেদের জন্য একটি প্রভাবশালি মহলের প্ররোচনায় মোংলা পাল আমার বসত ভিটার লাগোয়া মৃৎশিল্প কারখানার ঘরে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়। স্থানীয় নারায়ণ পাল ও স্বপন চন্দ্র পাল এর সাথে কথা হলে তারা জানান, ভোর রাত্রে চিৎকার শুনে সেখানে গিয়ে অনেক লোকজনসহ জল ছিটিয়ে আগুর নিভিয়ে ফেলা হয়। পীরগাছা থানার এএসআই খাদেমুল ইসলাম এর সাথে কথা হলে তিনি জানান, গাছ উপড়ানোর বিষয়টি সত্য। রাত্রে বাদী কেশব পালের মৃৎ শিল্প কারখানায় আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়ার ঘটনায় আবারো তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

Previous articleমহাসড়কে অবৈধ মাহিন্দ্রা নিষিদ্ধ ও হামলার প্রতিবাদে ঝালকাঠি থেকে বাস চলাচল বন্ধ
Next articleসাম্প্রদায়িকতা সৃষ্টিকারীরা দেশের অগ্রযাত্রাকে বাধাগ্রস্ত করতে চায়: এ্যাড. শামসুল হক টুকু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।