জি.এম.মিন্টু: বিল খুকশিয়াসহ ২৭ বিলের দীর্ঘদিনের জলাবদ্ধতা নিরাসনে পানি স্বেচের পর নিজস্ব অর্থায়নে চলছে হরি নদীর পলি অপসারসের কাজ। স্বেচ প্রকল্প বিরোধীতাকারী একটি চক্রের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির কারনে এবছর ২৭ বিলের প্রায় ২২ হাজার বিঘা জমিতে কৃষকরা ধান চাষ করতে সম্ভব হয়েছে। সরেজমিন ও বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, যশোরের কেশবপুর সীমান্তবর্তি সুফলাকাটি, পাঁজিয়া ও মনিরামপুরের দুর্বাডাঙ্গা, মনোহরনগর ইউনিয়ন এবং ডুমুরিয়ার সীমান্তবর্তিসহ ৬৯ গ্রামের কৃষকদের জমি নিয়েই ২৭ বিলের অবস্থান। প্রায় সাড়ে ৩ লাখ মানুষের বাঁচা-মরার ভাগ্য নির্ভর করে এই ২৭ বিলের ধান চাষের উপর। এক সময় বিল খুকশিয়া, আশ্বাননগর, বাটবিলা, দূর্বাডাঙ্গা, জিয়ালদাহ, ডুঙাঘাটা, বেলকাটি, বাগডাঙ্গা, কুশখালি, মানিকতলা, রজিপুর, হরিনা, নুড়ো, চাতরা, মনোহরনগর-পাথরঘাটা বিলসহ ২৭ বিলের পানি এই হরি নদী দিয়ে নিষ্কাশন হত। কিন্তু ধীরে ধীরে নদীটি ভরাট হতে থাকায় বর্তমানে বিলের পানি নিষ্কাশনের পথ বন্ধ হয়ে জলাবদ্ধতায় রূপ নেয়। তখন থেকে চাষাবাদ বন্ধ হয়ে যায় এই বিলগুলোতে। জলাবদ্ধতার কারনে বিগত ২ বছর ২৭ বিলে ধান চাষ করতে না পারায় এলাকার কৃষকদের পরিবারে নেমে আসে দূর্ভিক্ষ। ২৭ বিলের সাড়ে ৩ লাখ মানুষের কাছে এই হরি নদী যেন এক অভিশাপ্ত নাম হয়ে দাড়ায়। এবছর ২৭ বিলের কৃষকদের দীর্ঘাশ্বাস ও তাদের আর্তনাদ দেখে তাদের পাশে এসে দাঁড়ান কেশবপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এস.এম রুহুল আমীন ও সুফলাকাটি ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এস.এম মুনজুর রহমান। জলাবদ্ধ এই বিলে কৃষকদেরকে ধান চাষের স্বপ্ন দেখান এই দুই নেতা । স্থানীয় এমপির দিক-নিদের্শনা মোতাবেক ২৭ বিলের দীর্ঘদিনের জলাবদ্ধতা নিরসনে সকল জমির মালিক ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে একটি মিটিং এর মাধ্যমে জমির মালিকদের সর্বসম্মতিক্রয়ে এস.এম রুহুল আমীনকে আহবায়ক ও এস.এম মনজুর রহমানকে কোষাধ্যক্ষ করে “জলাবদ্ধতা নিরসন বাস্তাবায়ন” নামে একটি কমিটি গঠন করা হয়। এই কমিটির ব্যানারে গত ১৫ জানুয়ারী থেকে বিল খুকশিয়াসহ ২৭ বিলের জলাবদ্ধতা নিরসনে এইট ব্যান্ড সংলগ্ন ডায়ের খাল নামক স্থানে ৬৯টি গ্রামের ভুক্তভোগী জনগনের নিজস্ব অর্থায়নে ১২৯টি সেচ পা¤েপর মাধ্যমে সেচ কার্যক্রম শুরু করা হয়। যার সুফল পেতে শুরু করেছে ২৭ বিলের প্রায় ২ লক্ষ কৃষক। ৩৩ হাজার বিঘা জমির মধ্যে এ বছর প্রায় ২২ হাজার বিঘা জমিতে ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। কেশবপুর উপজেলা কৃষক সংগ্রাম সমিতির সাধারন সম্পাদক তৌহিদুর রহমান জানান, জলাবদ্ধতা নিরাসনে স্বেচপ্রকল্প ব্যবস্থা ২৭ বিলের কৃষকদের জন্য একটি ভাল ও সম্ভাবনাময় দিক। এটা একটি অস্থায়ী প্রকল্প, তবে বিলের জলাবদ্ধতা স্থায়ীভাবে নিরাসনে হরী নদীর পলী অপসারনের কোন বিকল্প নেই। এবিষয়ে জলাবদ্ধতা নিরসন বাস্তাবায়ন কমিটির কোষাধ্যক্ষ আওয়ামীলীগ নেতা ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান এস.এম মনজুর রহমান বলেন, এক সময় হরি নদী দিয়ে এই বিলগুলোর পানি নিষ্কাশন হত। কিন্তু ধীরে ধীরে নদীটি ভরাট হতে থাকায় বর্তমানে বিলের পানি নিষ্কাশনের পথ বন্ধ হয়ে জলাবদ্ধতায় রূপ নেয়। তখন থেকে চাষাবাদ বন্ধ হয়ে যায় এই বিলগুলোতে। দীর্ঘদিনের জলাবদ্ধতা নিরসনে স্বেচ কমিটির মাধ্যমে কৃষকদের নিজস্ব অর্থায়নে এ বছর পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা শুরু করা হয়েছে। পানি স্বেচ দেওয়ার ফলে ২৭ বিলের ৩৩ হাজার বিঘা জমির মধ্যে প্রায় ২২ হাজার বিঘা জমিতে এবার কৃষকরা ধান চাষ করতে সক্ষম হয়েছে। স্বেচ প্রকল্পের শুরু থেকেই স্থানীয় একটি চক্র উন্নয়নের পথে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে আসছে। যদি এই চক্র স্বেচকাজে বাঁধাগ্রস্থ না করত তাহলে ২৭ বিলের সকল কৃষকরা এবছর ধান চাষ করতে পারত । আগামীতে ২৭ বিলের সমস্ত জমিতে ধান চাষে উপযুক্ত করতে জলাবদ্ধতা স্থায়ীভাবে সমাধানের জন্য হরি নদীতে স্কেবেটার মেশিন দিয়ে পলি অপসারনের কাজ চলমান রয়েছে। স্বেচ উপ-কমিটির সদস্য আওয়ামীলীগের নেতা এস.এম মহব্বত হোসেন বলেন, স্থানীয় এক চেয়ারম্যান ঘৃন উদ্দেশ্য হাসিল করতে নিরীহ কৃষকদের ভুল বুঝিয়ে স্বেচ প্রকল্প উন্নয়ন কজে বাঁধাগ্রস্থ সৃষ্টি করছে। এমনকি এই স্বেচ প্রকল্পকে পুঁজি করে তিনি রাজনৈতিকভাবে ফায়দা হাসিলের বৃথা চেষ্টা করছেন। তার এই অসৎ উদ্দেশ্য ২৭ বিলের কৃষকরা কোন দিন সফল হতে দেবে না।

জলাবদ্ধতা নিরসন বাস্তাবায়ন কমিটির আহবায়ক ও কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম রুহুল আমিন বলেন, এই উদ্যোগটি নেওয়া হয়েছে মানুষের দীর্ঘশ্বাস দেখে। এই বিল খুকশিয়ার সাথে ২৭টি বিল জড়িত। কেশবপুর ও মনিরামপুরের এসব বিলগুলোতে দীর্ঘদিন ধরে কোন ফসল হচ্ছে না। গরু, ছাগল, মানুষ না খেয়ে মরছে। তাদের কথা চিন্তা করে এই কাজ শুরু করেছি।

Previous articleরায়পুরে বেড়িবাঁধ সড়ক সংস্কারের দাবিতে গ্রামবাসীদের মানববন্ধন
Next articleটাঙ্গাইলে চাঁদা না পেয়ে যুবলীগ নেতার উপর হামলা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।