আতিউর রাব্বী তিয়াস: পোষ্টমাস্টার যেখানে বসেন তার মাথার ওপরেই ছাদের পলেস্তারা খসে রড দেখা যাচ্ছে। পোষ্ট অফিসের পুরো ছাদেরই অবস্থা খারাপ। ফাটল ধরেছে দেয়ালেও। পোষ্ট মাস্টারসহ অন্য কর্মচারী সবাই আতঙ্কের মধ্যে তাদের দাপ্তরিক কাজ করছেন।এই চিত্রটি জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলা পোষ্ট অফিসের। সরেজমিনে দেখা গেছে, পোষ্টঅফিসের ভবনটি সড়কের চেয়ে অনেক নিচু। পোষ্ট অফিস ভবনের ছাদের বিভিন্ন অংশের পলেস্তারা খুলে পড়েছে। পোষ্টমাস্টার যেখানে বসে দাপ্তরিক কাজ করছেন ঠিক তারই মাথার ওপর ছাদের পলেস্তারা খসে পড়ে রড বের হয়ে রয়েছে। ভবনের সামনে দেয়ালে ফাটল ধরেছে। পোষ্ট অফিসের সীমানা প্রচীর থাকলেও বিভিন্ন জায়গায় ভেঙ্গে গেছে। অনায়াসে পোষ্ট অফিসের ভিতরে জনসাধারণ প্রবেশ করতে পারে। গরু,ছাগলসহ বিভিন্ন প্রাণীর অবাধ বিচরণে পরিনত হয়েছে। পোষ্ট অফিসে সেবা নিতে আসা ১০-১২ জন গ্রাহক বলেন, উপজেলা পোষ্ট অফিস একটু টিপটপ হবে। কিন্তু আমাদের এই উপজেলা পোষ্ট অফিস ভবনের র্জীণশীর্ন অবস্থা। পোষ্ট অফিস ভবনের দেয়ালে ফাটল ধরেছে আবার ভবনের ছাদের অবস্থা মোটেও ভালো নয়। পোষ্টমাস্টারের টেবিলের সামনে গেলে মনে হয় কখন যে ছাদের পলেস্তারা খুলে আমাদের মাথায় পড়ে। বর্ষা মৌসুমে সামান্য বৃষ্টিতে পোষ্ট অফিসের সামনে হাটুপানি জমে থাকে। তখন তাদের পোষ্ট অফিসে আসা-যাওয়া করতে দুর্ভোগ পোহাতে হয়। এমন অবস্থায় থাকলে মানুষ আর পোষ্ট অফিসে আসবে না। পোষ্ট অফিসের সেবা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিবে। কর্তৃপক্ষের যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করা দরকার বলে মনে করছেন অনেক গ্রাহক ও এলাকাবাসী। গ্রাহক মিনার হোসেন বলেন, মুঠোফোন ও অনলাইনের যুগে পোষ্টঅফিসে আগের মতো আর চিঠিপত্র আদান-প্রদান হয় না। কিন্তু পোষ্ট অফিসের গুরুত্ব একটু কমেনি বরং বেড়েছে।

সঞ্চয়পত্র, টাকা জমা রাখার প্রবণতা অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু পোষ্ট অফিস ভবনের বেহাল অবস্থা। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সেদিকে খেয়াল রাখা দরকার। উপজেলা পোষ্ট অফিস সূত্রে জানা গেছে, ১৯৮৫ সালে আক্কেলপুর পৌরশহরের প্রধান সড়কের সরদারপাড়া মহল্লায় উপজেলা পোষ্ট অফিসের ভবন ও পোষ্টমাস্টারের বাসভবন নির্মাণ করা হয়। পোষ্ট অফিস ভবনটি নিচু স্থানে নির্মিত হওয়ায় সামান্য বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা তৈরী হয়। দীর্ঘদিন পানি জমে থাকার কারণে পোষ্ট অফিসের দেয়াল ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। পোষ্টমাস্টারের বাসভবন অনেক আগেই পরিত্যক্ত ঘোষনা করা হয়েছে। পোষ্ট মাস্টারের ভবনে কেউ থাকেন না। পোষ্ট অফিসে, এস,বি, এফ,ডি, ই,এম,ও, ক্যাশকার্ড ও বীমার কার্যক্রম চলে। প্রতিদিন এসব কার্যক্রমে পোষ্ট অফিসে ২৫-৩০ লাখ টাকার লেনদেন হয়। উপজেলা পোষ্ট অফিসের মাস্টার বেলাল হোসেন বলেন, পোষ্ট অফিস ভবনের ছাদের পলেস্তারা খসে পড়ছে। পোষ্ট অফিসের ভবনের পিছনে পোষ্টমাস্টারের বাসভবন অনেক আগেই পরিত্যক্ত ঘোষনা করা হয়েছে। উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা পোষ্ট অফিস পরির্দশনে আসেন। তারা পোষ্ট অফিস ভবনের বেহাল দশার কথা লিখে নিয়ে যান।

Previous articleনীলফামারীতে মায়ের হত্যাকারী বাবাকে ধরিয়ে দিলেন ৫ বছরের শিশু
Next articleরাজাপুরে সড়ক দূর্ঘটনায় সাবেক বিজিবি সদস্য নিহত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।