স্বপন কুমার কুন্ডু: ঈদের কেনাকাটায় জমে উঠেছে ঈশ্বরদী বাজার। বাজারের কোথায়ও পা ফেলার জায়গা নেই। গাদাগাদি-ঠাসাঠাসি করে ধুমছে চলছে কেনাকাটা। শনিবার সকাল থেকেই ঈশ্বরদী বাজারের সর্বত্র এই চিত্র দেখা গেছে। কোথায়ও স্বাস্থ্য বিধি মানার তোয়াক্কা ক্রেতা ও বিক্রেতা কারও মধ্যেই দেখা যায়নি।

বাজারের কয়েকটি শপিংমল, কাপড়ের দোকান, কসমেটিকসের দোকান, জুতার দোকান এমনকি মুদিখানা বাজারের চিত্রও ছিল একইরকম। ক্রেতাদের ভাবখানা এমন ছিল, যেন কালকেই ঈদ। আবার কঠোর লকডাউন হলে বাজারে আসা যাবে না, এমন চিন্তা করেও অনেকে কেনাকাটায় ঝুঁকে পড়েছেন। লকডাউনের কারণে পরিবহণ বন্ধ থাকায় দোকানের ভাল কাপড়-চোপড় হয়ত: আর পাওয়া যাবে না, এমনটি ভেবেও বাজারে একযোগে ভীড় জমিয়েছেন ক্রেতারা। তবে বাজারে পুরুষ ক্রেতার চেয়ে মহিলা ক্রেতার সংখ্যই বেশী। ছোট শিশুদের নিয়ে ভীড়ের মধ্যে গাদাগাদি করে ঈদের পোশাক কিনতে দেখা গেছে। এসময় শিশুসহ বেশ কিছু ক্রেতার মূখে মাস্ক ছিলো না। ক্রেতা ও বিক্রেতা কারোরই ৩ ফুট দূরত্ব বজায় রাখতে দেখা যায়নি।

মানিকনগর গ্রাম থেকে কেনাকাটা করতে আসা মনিরা বেগম বলেন, আবার যদি সরকার কঠোর লকডাউন ঘোষণা করে তাহলে বাজারের দোকানপাট বন্ধ হয়ে যাবে, তাহলে ঈদটাই মাটি হয়ে যাবে।

নওদাপাড়ার মিসেস দেওয়ান জানান, লকডাউনের কারণে গাড়িঘোরা চলছে না। ব্যবসায়ীদের নতুন মাল আনার পথ বন্ধ। তাই ফুরিয়ে যাওয়ার আগেই কেনাকাটা সেরে নিচ্ছি।

কাপড়ের দোকানদার আহসানউল্লাহ আবির জানান, আমরা তিন ফুট দূরত্ব বজায় রাখার চেষ্টা করছি। কিন্তু খরিদ্দাররা কিছুই মানছেন না।

Previous articleমে দিবসে রংপুরে কর্মহীন ৩শ পরিবহন শ্রমিকের হাতে মানবিক সহায়তা তুলে দিলেন জেলা প্রশাসন
Next articleনীলফামারীতে বজ্রপাতে কৃষক নিহত, আহত ৩
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।