অতুল পাল: পটুয়াখালীর বাউফল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২০১৩ সালে স্থাপণের মাত্র ১ বছরের মাথায় নষ্ট হয়েছে জেনারেটর। ছয় বছর ধরে বিকল জেনারেটর মেরামত না করায় বিদ্যুত বিভ্রাট হলেই সীমাহীন ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন রোগিরা। এনিয়ে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্তৃপক্ষের কোন মাথা ব্যথাই নেই। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ২০১৩ সালে ৩১ শয্যা বিশিষ্ট বাউফল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ৫১ শয্যায় উন্নীতকরণের কার্যক্রম শুরু হয়। এ সময় নতুন ভবনে একটি জেনারেটর স্থাপণ করা হয়। মাত্র এক বছরের মাথায় জেনারেটর বিকল হয়ে যায়। এরপর থেকে রোগিরা সীমাহীন ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। সরেজমিন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ইনডোরের একাধিক রোগি জানান, বিদ্যুত চলে গেলেই ভোগান্তি শুরু হয়। রাতে রোগিদের মোমবাতি কিনে এনে আলো জ্বালাতে হয়। আর প্রচন্ড গরমে হাতপাখার উপর ভরসা করতে হচ্ছে। এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক ও নার্সদের তাদের নিজেদের মুঠোফোনের আলোয় দায়িত্ব পালন করতে দেখা যায়। নাম প্রকাশ করার শর্তে একাধিক নার্স বলেন, ডেলিভারীর সময় বিদ্যুৎ চলে গেলে মহাবিপদ হয়। তখন ওষুধের পুরাণো কার্টন দিয়ে পাখা তৈরি করতে হয়। আর মুঠোফোনের আলোয় প্রসুতির ডেলিভারী করাতে হয়। আউটডোর দেখা, গেছে, একাধিক চিকিৎসক নিজেদের টাকায় চার্জার ফ্যান ক্রয় করেছেন। বাউফল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক এএসএম সায়েম ও আকতারুজ্জামান বলেন, বিদ্যুত চলে যাওয়ার পর অসহ্য গরমে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ঢোকা দায় হয়ে যায়। তাই আমরা নিজেদের পকেটের পয়সায় চার্জার ফ্যান ক্রয় করে এনেছি। জেনারেটর বিকল থাকায় বাউফল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী প্রসুতি সেবা (ইওসি) বিভাগ চালু করা যাচ্ছে না। এ প্রসঙ্গে বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. প্রশান্ত কুমার সাহা বলেন, নষ্ট জেনারেটর মেরামতের জন্য একাধিকবার পটুয়াখালী স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলীকে অবহিত করা হয়েছে। কিন্তু কোন ফল হয়নি।

Previous articleচাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোলে ৫০টি পরিবার অবরুদ্ধ
Next articleভূঞাপুরে বিয়ের দাবিতে ২ সন্তানের জনকের বাড়িতে এক সন্তানের জননী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।