বাংলাদেশ প্রতিবেদক: রাজধানীর মধ্য বাড্ডায় স্বপন (৪৮) নামে এক বাস চালককে বাঁশ দিয়ে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ করা হয়েছে। এ ঘটনায় একজনকে আটক করেছে থানা পুলিশ।
বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) ভোর সাড়ে ৫টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ বেলা ১২ টার দিকে মৃতদেহ উদ্ধার করে। পরে দুপুরে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠায়।
কুমিল্লা মেঘনা উপজেলার হরিপুর গ্রামের মৃত আব্দুল কাদেরের ছেলে সে। এক ছেলে ও এক মেয়ে সহ স্ত্রী গ্রামের বাড়িতে থাকে।
বাড্ডা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো: হাসমত আলী জানান, খবর পেয়ে মধ্য বাড্ডা ইউলুপের নিচ থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। তার শরীরে পেটানো জখমের চিহ্ন রয়েছে। প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছি একটি মোবাইল নিয়ে স্বপন ও কয়েকজনের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে তারা স্বপনকে বাঁশ দিয়ে পিটিয়ে ঘটনাস্থলে হত্যা করে।
খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে সেখান থেকে একজনকে আটক করা হয়। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। ময়নাতদন্তের পর তার মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হওয়া যাবে।
এদিকে নিহত স্বপনের ভাগিনা পারভেজ হাওলাদার বলেন, স্বপন মধ্য বাড্ডা বেপারীপাড়া আলাউদ্দিন বেপারী বাড়িতে ভাড়া থাকে। ভিক্টর পরিবহনের বাস চালক সে। সকালে খবর পেয়ে ইউলুপের নিচে গিয়ে তার লাশ পড়ে থাকতে দেখি। কে বা কারা তাকে হত্যা করেছে সে বিষয়ে কিছু বলতে পারছি না। তার সঙ্গে কারো দ্বন্দ্ব ছিল কিনা সেটাও বলতে পারছি না।
বাড্ডা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ জানান, স্বপনের কাছে ঘাতকদের একটি মোবাইল ফোন ছিল। সেই মোবাইল ফোনকে কেন্দ্র করে ভোরে তাদের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে ৩ জন মিলে তাকে বাঁশ দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে। খবর পেয়ে তার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। ঘটনাস্থল থেকে একজনকে আটক করা হয়েছে। বাকিদেরও আটকের চেষ্টা চলছে।
তিনি আরও জানান, স্বপন আগে গাড়ি চালালেও এক্সিডেন্টের কারণে তার পা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় এখন কিছুই করতেন না স্বপন। ইউলুপের নিচে পরিত্যক্ত একটি কন্টেনারের ভেতরে থাকতো বলে জানতে পেরেছি। বিস্তারিত তদন্ত চলছে।

Previous articleলকডাউন: রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে ৫ শতাধিক আটক
Next articleজেলে বসেই নতুন এমএলএম ব্যবসা খুলেছেন ডেসটিনি রফিকুল
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।