জয়নাল আবেদীন: রংপুরে প্যারাসিটামল জাতীয় গ্রুপের ওষুধের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে । কেউ বলছেন ব্যবসায়িদের কারসাজি কৃত্রিম সংকট আবার কেউ বলছেন সরবরাহ নেই । ফলে সর্দি জ্বর এবং কাশিতে আক্রান্ত রোগীদের অবস্থা খুবই নাজুক ।

এদিকে জেলায় দিন দিন করোনা সংক্রমণ ভয়াবহ আকার ধারণ করছে। সংক্রমণের হার ৪৩ শতাংশের উপরে।বিভাগে সংক্রমণ বৃদ্ধির তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রংপুর জেলা।এমন পরিস্থিতিতে হাসপাতাল গুলোতে বেড়েই চলেছে রোগীর চাপ, সেই সাথে বাড়ছে প্রয়োজনীয় ওষুধের চাহিদাও।করোনায় আক্রান্ত রোগীর পাশাপাশি সাধারন রোগীর চাহিদা অনুযায়ী নাপা, নাপা এক্সট্রা, এইচ প্লাস, নাপা সিরাপ সহ প্যারাসিটেমল জাতীয় কয়েকটি ওষুধ কোম্পানির ওষুধ সংকট দেখা দিয়েছে জেলার ফার্মেসি গুলোতে। চারিদিকে করোনা আক্রান্ত মানুষের সংখ্যাও যখন বাড়ছে তখন প্যারাসিটেমল জাতীয় এই ওষুধ গুলোর সরবরাহ না থাকায় ভোগান্তি বাড়ছে মানুষের।রোববার সকালে জ্বরের ঔষধ নাপা ,এইচ প্লাসের জন্য এক ফার্মেসি থেকে অন্য ফার্মেসি ঘুরছিলেন নগরীর জুম্মাপাড়া এলাকার সুলতানা বেগম ।বেশ কয়েকটি ফার্মেসি ঘুরে জ্বরের জন্য এইচ প্লাস খুজে পাননি তিনি।নগরীর মেডিকেল মোড় এলাকায় চাহিদাপত্র নিয়ে দোকানে দোকানে ঘুরেও ওষুধ না পাওয়া এক রোগী বলেন,” পাঁচ বছরের ছেলের জ্বরের জন্য ওষুধ নিতে এসেছিলাম।কিন্তু বড় বড় কয়েকটি ফার্মেসি ঘুরেও ওষুধ পেলামনা ।জাহাকোম্পানি মোড়ে , ষ্টেশন রোড় , গ্রান্ড হোটেল মোড়. সহ বেশ কটি ফার্মেসিতে জ্বরের ওষুধ খুঁজে পাননি শিক্ষক আমিনুল ।তিনি জানান,”জাহাজকোম্পানি ও এর আশ -পাশ বেশ কয়েকটি দোকান ঘুরে এক পাতা নাপা ওষুধ সংগ্রহ করেছি” তাও বেশি দামে ।নগরীর মেডিকেল মোড় ওষুট পট্রি এলাকার ব্যবসায়ি এবং লালবাগ বাজারের সিয়াস ফার্মেসির সত্ত্বাধিকারী সিয়াম হোসেন বলেন,”জ্বরের ওষুধ এইস, এইস প্লাস, এইচ এক্স আর ট্যাবলেট, ফাস্ট, ফাস্ট এক্স আর ওষুধেরও সঙ্কট আছে। কোম্পানি যে পরিমাণ ওষুধ সরবরাহ করে তা চাহিদার তুলনায় একেবারে অপ্রতুল”।তিনি আরও বলেন,” গত ৭ থেকে ৮ দিন ধরে এই সমস্যা দেখা দিয়েছে।প্রতিদিনই কোম্পানি গুলোতে ওষুধের জন্য তাগিদ দেয়া হচ্ছে।তবে সরবরাহ না থাকায় আমাদেরও কিছু করার থাকছে না”। তিনি আরো বলেন ”হঠাৎ করে স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে জ্বরের ওষুধের চাহিদা প্রায় তিনগুণ বেড়েছে।আপাতত নাপা ও এইস গ্রুপের অন্য ওষুধ দিয়ে ক্রেতাদের বিদায় করা হচ্ছে। আরও বেশী সময় নাপা ও এইস ট্যাবলেট ও সিরাপের সরবরাহ না থাকলে ভোগান্তি বাড়বে”।রংপুর জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহামুদুল ইসলাম মৃধা বলেন,”জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নগরির ফার্মেসী গুলোতে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হবে। কোন ফার্মেসীতে এই ঔষধগুলোর কৃত্রিম সংকট তৈরী করলে এবং বেশি দামে বিক্রির প্রমাণ পেলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে”।

Previous articleরাজারহাটে পানি নিষ্কাশনের পথ বন্ধ হওয়ায় স্থায়ী জলাবদ্ধতা, বিপাকে শতাধিক চাষীসহ ২শ পরিবার
Next articleকলাপাড়ায় ৩৩ জনের ৩২ জনের করোনা শণাক্ত, ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান অব্যাহত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।