তাবারক হোসেন আজাদ: নয় বিশেষজ্ঞ চিকিৎক, কর্মকর্তা ও ২৬ স্বাস্থ্য সহকারিসহ নানা সংকটে ৫০ শয্যা বিশিষ্ট লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। দীর্ঘদিনের জনবল সংকটে রোগীরা তাদের কাঙ্ক্ষিত সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। এই হাসপাতালে শয্যা ও ওয়ার্ড সংখ্যা বাড়ানো হলেও বাড়েনি জনবল। ফলে নির্ধারিত ক্ষমতার দ্বিগুণ বেশি রোগীর চিকিৎসাসেবা দিতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে। টেকনেশিয়ান আছে ইজিসি নাই। টেকনেশিয়ান নাই তাই গত এক মাস ধরে অচল পড়ে আছে নতুন এক্সরে মেশিন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দাবি, এতে সেবার মান ধরে রাখা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে প্রায়ই রোগীকে বাইরে থেকে দিগুন টাকায় পরীক্ষা করে আনতে হচ্ছে।

অভিযোগ রয়েছে, দীর্ঘদিন ধরে এই হাসপাতালে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের সংকট থাকলেও এর সমাধানে ভূমিকা রাখেননি দায়িত্ব শেষ করে চলে যাওয়া একাধিক স্বাস্থ্য কর্মকর্তা। এই সংকট সমাধানে প্রতিমাসে প্রতিবেদন পাঠালেও কোন লাভ হচ্ছে না বলে জানান ডাক্তার জাকির হোসেন । তিনি চিকিৎসক ও কর্মকর্তাসহ রায়পুরের সরকারি হাসপাতালে জনবল সংকট সমাধান, হাসপাতাল পরিচ্ছন্ন রাখা এবং রোগীদের সেবা বৃদ্ধিতে কাজ করছেন বলে তার দাবি।

রায়পুরে পৌরসভাসহ ১০ ইউপি ও পাশ্ববর্তী আলোনিয়া ইউপির নিম্ন-মধ্যবিত্ত ও দরিদ্র শ্রেণির প্রায় ৪ লক্ষ মানুষের চিকিৎসা সেবার একমাত্র প্রতিষ্ঠান এ হাসপাতাল। রোগীদের অভিযোগ, জনবল সংকটে এখানে কাঙ্ক্ষিত সেবা পাচ্ছেন না। এই হাসপাতালের যন্ত্রপাতি, জনবল- শয্যা সংকটেও চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে রোগীদের।

হাসপাতালের প্রশাসনিক বিভাগের দেওয়া তথ্যে দেখা যায়, ৫০ শয্যার এই হাসপাতালে ৩১টি অনুমোদিত পদের মধ্যে ৯ জন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারসহ শূন্য রয়েছে ১২টি। ৮ জন নার্স, মেডিকেল নেকনোলোজিষ্ট ৬ জন, ষ্টোর কিপার ১ জন, অফিস সহকারি একজন, স্বাস্থ্য পরিদর্শক ৪ জন এবং ৩৪টি কমিউনিটি ক্লিনিকের ৫৫ টি পদে ২৬ জনের পদ শন্য রয়েছে। হাসপাতালে নিউরোলোজিষ্ট, গাইনি, ইউরোলোজিষ্ট, মেডিসিন, ডায়বেটিস ও জনস্বাস্থ্য, রেডিওলোজি, অর্থোপেডিক সার্জারি, ডার্মাটোলোজি, চক্ষু কনসালট্যান্টসহ একাধিক পদও শূন্য। প্রতিটি বিভাগেই একাধিক পদে চিকিৎসক বা প্রশাসনিক কর্মকর্তা নেই।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দাবি, বর্তমানে রায়পুর সরকারি এ হাসপাতালে বেডের তুলনায় রোগীর সংখ্যা বেশি, ফলে তারা প্রায় সময় বেকায়দায় পড়েছেন। প্লোরে বিছানা করে দিতে হয়। তাছাড়া তৃতীয়, চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী ও পরিচ্ছন্নতাকর্মীর সংকটও চরম। ফলে পরিচ্ছন্নতার অভাবে হাসপাতালের স্বাভাবিক পরিবেশ ব্যাহত হচ্ছে। চাহিদা থাকলেও হাসপাতালে সিটি স্ক্যান মেশিন, এমআরআই, ডিজিটাল এক্স-রে নাই।

চিকিৎসকরা জানান, হাসপাতালটি ২০০৬ সালের ২৮ সেম্টেম্বর ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীত করেন তৎকালিন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া। পর্যাক্রমে বর্তমান সরকার কিছুটা সংস্কার করেছেন। তবে চেষ্টা করেও জনবল ১০০ শয্যার দেওয়া হয়নি। এখানে প্রতিদিন গড়ে প্রায় ১০০ জনের মত ভর্তি হন। আউটডোরে চিকিৎসা নেন গড়ে প্রতিদিন ২শ’ রোগী। তাদের সেবা দিতে চিকিৎসক ও নার্সদের হিমশিম খেতে হচ্ছে।

এদিকে সরঞ্জাম সংকটে অপরিণত বয়সে জন্ম নেওয়া নবজাতকদের নিয়ে বিপাকে পড়েছেন চিকিৎসক ও অভিভাবকরা। হাসপাতালে ইনকিউবেটর ও রেডিয়েন্ট ওয়ার্মার না থাকায় শিশুদের সঠিক চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

বামনী গ্রামের-চিকিৎসাধীন এক নবজাতকের মা জোসনা বেগম জানান, সামর্থ্য না থাকায় আমার সন্তানকে সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করেছি। তবে এখানের অধিকাংশ যন্ত্রপাতি নষ্ট। তাই বাইরে থেকে পরীক্ষা করে ডাক্তারকে রিপোট দিতে হয়। রায়পুরের চরমোহনা গ্রাম থেকে আসা বৃদ্ধ তাসলিমা বেগম (৫২) বলেন, সরকারি হাসপাতালের এক্সরে চালু না হওয়ায় বাইরের ক্লিনিক থেকে তিনগুন টাকাদিয়ে রিপোট এনে ডাক্তারকে দেখাই।

রায়পুর উপজেলক স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার জাকির হোসেন বলেন, হাসপাতালে যোগদান করার পর থেকে নয় বিশেষজ্ঞ ডাক্তারসহ কর্মকর্তা, নার্স এবং কমিউনিটি ক্লিনিকের ২৬ জন স্বাস্থ্য সহকারি নাই। প্রতিমাসে সিভিল সার্জন ও সংশ্লিষ্ট দপ্তরে প্রতিবেদন পাঠাই। রোগীদের সেবা করতে জনবল ও রোগীদের সেবার মান বাড়াতে চেষ্টা করছি। বাথরুমসহ হাসপাতালকে নিয়মিত পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য কয়েকজন কর্মী রেখেছি।

Previous articleস্বাস্থ্য বিধি অমান্য করে গরুর হাট, অর্থদন্ড করে বন্ধ করল ইউএনও
Next articleরাজশাহীতে পৌর মেয়রের বাড়ি থেকে অস্ত্র, মাদক ও কোটি টাকা জব্দ, স্ত্রীসহ গ্রেপ্তার ৩
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।