গিয়াস কামাল: নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও উপজেলায় বকেয়া বেতনের দাবিতে গতকাল সিনহা গার্মেন্টর্মে শ্রমিকদের কাঁচপুর ঢাকা-চট্রগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধের কারণে কঠোর লক ডাউন ও তীব্র বিধি নিষেধের মাঝেও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যানজট সৃষ্টি হয়। এই যানজটের কারনে সকাল থেকেই থেমে থেকে গাড়ী চলতেছে।

এদিকে তীব্র লকডাউনের মধ্যেও পুরো উপজেলায় বেড়েছে সাধারণ মানষু ও গাড়ীর চাপ। প্রশাসনের কঠোর অবস্থান সত্বেও মানষু তোয়াক্কা করছেন না লক ডাউনের বিধি নিষেধ। কাচপুর সিনহা গার্মেন্টের্মে র শ্রমিকরা জানান, গত এপ্রিল মাস থেকে সিনহা গার্মেন্টর্মে স শ্রমিকদের বেতন বকেয়া রয়েছে। গার্মেন্টর্মে স কর্তৃপক্ষ বেতন পরিশোধ করবে সময় ক্ষেপণ করছেন। এদিকে লক ডাউনের কারণে তারা অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে কর্মস্থর্ম লে যাতায়াত করতেছেন। এছাড়া নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম চড়া হওয়ায় তাদের জীবনে নেমে এসেছে চরম দর্ভু র্ভোগ। এছাড়া বেতন না পাওয়ার কারনে বাড়িভাড়া পরিশোধ করা সম্ভব হচ্ছে না। বাড়ির মালিকরা তাদের বাড়ি ছেড়ে যেতে চাপ প্রয়োগ করছেন ভারাটিয়াদেরকে। এই অবস্থায় তারা বাধ্য হয়ে রাস্তায় নেমে এসেছেন।এদিকে শ্রমিকদের রাস্তা অবরোধের কারণে ঢাকা-সিলেট ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে কঠোর লকডাউনের মধ্যেও রাস্তায় ছিল পর্যাপ্ত পরিমান গাড়ি। কারন ও অকারনে মানষু বের হচ্ছেন রাস্তায়। সে কারণে গতকাল থেকে মহাসড়কে ছিল অতিরিক্ত গাড়ির চাপ।এদিকে শ্রমিকদের বেতন বকেয়ার ব্যাপারে গার্মেন্টর্মে স কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে তারা অস্বীকৃতি জানান।

Previous articleবাউফলে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের মহোৎসব
Next articleরূপপুর প্রকল্পে কর্মরত সকলকে টিকার আওতায় আনা হচ্ছে : বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।