বাংলাদেশ প্রতিবেদক: গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগার বন্দী অবস্থায় তাদের মধ্যে পরিচয়। বের হয়ে সঙ্ঘবদ্ধভাবে মোটরসাইকেল ছিনতাই করতো ওরা। সাথে নগদ টাকা ও মালামাল। টার্গেট ছিল দামি ও নতুন মোটরবাইকের দিকে, যেটিতে চালক একাই থাকতো। গন্তব্য থাকতো দূরবর্তী কোথাও। ছিনতাইকারী দলের সবাই সাভারের আশুলিয়া এলাকায় গাড়ি চালাতো। সামনের গাড়িতে পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাই করার সময় পেছনে থাকতো আরো একটি প্রাইভেটকার। সাথে থাকতো ওয়াকিটকি, হ্যান্ডকাপ ও পুলিশের বিশেষ পোশাক। কাজশেষে প্রাইভেটকারে করে পালাতো ওরা। এমন একটি ঘটনার অভিযোগ পেয়ে সঙ্ঘবদ্ধ এই ছিনতাইকারী চক্রের পাঁচ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাদের কাছ থেকে ছিনতাই কাজে ব্যবহৃত একটি মাইক্রোবাস ও প্রাইভেটকারসহ হ্যান্ডকাপ, ওয়াকিটকি, পুলিশের পোশাক ও লাঠি উদ্ধার করা হয়।

রোববার দুপুরে ফরিদপুর পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও তদন্ত) জামাল পাশা। এ সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সুমন সরকার ও কোতয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: আবদুল জলিল উপস্থিত ছিলেন।

আটকরা হচ্ছেন- মধুখালীর বাগাটের জাকির হোসেন বিশ্বাসের ছেলে জুয়েল রানা (৩১), তার ভাই আল আমীন (৩০), আলফাডাঙ্গার কামারগ্রামের রবিউল আলমের ছেলে বাবুল আক্তার (৪৩), বালিয়াকান্দির আড়পাড়া গ্রামের বাল্লুক মৃধার ছেলে অশিক মৃধা (৩৭) ও আশুলিয়ার রফিকুল ইসলামের ছেলে ইমরান হোসেন (২৩)।

পুলিশ কর্মকর্তা জামাল পাশা জানান, মুন্নু শেখ (৩৫) নামে একজন এনজিওকর্মী ৯ সেপ্টেম্বর মোটরসাইকেলে ঢাকার বাড্ডা থেকে বাড়ি ফেরার পথে রাত ৯টার দিকে পাঁচ ছিনতাইকারী কানাইপুরের করিমপুর হাইওয়ে ব্রিজের উপর থেকে তাকে একটি মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে চোখ বেঁধে ফেলে। তারপর প্রথমে তার সাথে থাকা বেতনের ৩৫ হাজার টাকা ও বিকাশ অ্যাকাউন্টে থাকা সাড়ে ১৯ হাজার টাকাসহ তার মোটরসাইকেলটি ছিনিয়ে তাকে মাইক্রোবাস থেকে নামিয়ে দিয়ে তারা পালিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে ঘটনার শিকার মুন্নু শেখ বলেন, ছিনতাইকারীরা প্রথমে তার মোটরসাইকেলের চাবি কেড়ে নিতে গেলে তার সাথে ধস্তাধস্তি হয়। পরে তাকে পাজাকোলা করে গাড়িতে তুলে চোখ বেঁধে ফেলে। তার সাথে থাকা টাকা পয়সা কেড়ে নেয়ার পর তাকে বাড়ি থেকে ফোন করে দুই লাখ টাকা পাঠানোর জন্য বলতে বলে। এরপর তিনি বাড়িতে ফোন করে যত টাকা পারে পাঠাতে বলেন। তিনি জানান, টাকা পয়সা নেয়ার পর ছিনতাইকারীরা চোখ বেঁধে তাকে গাড়ি থেকে ফেলে দিতে চাইলে তিনি চোখ খুলে নামিয়ে দেয়ার অনুরোধ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, এই চক্রের মূল মাস্টারমাইন্ড হচ্ছেন জুয়েল রানা। তার বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন জেলায় ডাকাতি ও ছিনতাইয়ের ১৬টি মামলা রয়েছে। একটি মামলায় সাড়ে চার বছর সাজা খেটে কোরবানির ঈদের আগে তিনি কারাগার থেকে ছাড়া পেয়ে বের হন।

Previous articleনির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার প্রতিষ্ঠায় রাজপথে আন্দোলনের বিকল্প নেই: মোশাররফ
Next articleকরোনা রোগী শনাক্তের হার সাড়ে ৬ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।