জয়নাল আবেদীন: নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী ১১ নভেম্বর দেশে দ্বিতীয় ধাপে ৮শ৪৮টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে রংপুর জেলায় ৮ উপজেলার মধ্যে পীরগঞ্জে ১৫ টি ইউনিয়নের ১০টিতে এবং পীরগাছার ৯টির মধ্যে আটটি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ।

নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর সম্ভাব্য প্রার্থীরা নড়েচড়ে বসেছেন। ইতি মধ্যে শুরু হয়েছে উঠান বৈঠক, গণসংযোগ আর মোটরসাইকেল শোডাউন। বিশেষ করে সরকার দলীয় প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ একটু বেশি । নৌকা প্রতীক পেতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। রংপুরের পীরগাছা উপজেলার আটটি এবং পীরগঞ্জ উপজেলার ১০টি মোট ১৮ ইউনিয়নে চেয়াারম্যান পদে আওযয়ামী লীগের সমর্থন পেতে ১শ৪০ জন প্রার্থী দৌঁড়ঝাপ শুরু করেছেন। ইতিমধ্যে দলীয় মনোনয়ন পেতে অনেক প্রার্থী প্রকাশ্যে, আবার কেউ কেউ গোপনে আবেদনও করেছেন।

এদিকে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় সিদ্ধান্ত মেনে নিতে আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য প্রাার্থীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন স্থানীয় সাংসদ বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। অন্যথায় দলের বিরোধিতা করে প্রার্থী হলে বহিষ্কার হতে হবে বলেও তিনি হুঁশিয়ারি দিয়েছেন । সম্প্রতি রংপুরের পীরগাছা উপজেলা মিলনায়তনে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন।টিপু মুনশি বলেন, দল যাকে যোগ্য মনে করবে নৌকা প্রতীক তাকেই দেবে। দলের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করবেন না। কেউ যদি দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে প্রার্থী হলে সমস্ত সুযোগসুবিধা থেকে বঞ্চিত হতে হবে। প্রয়োজনে দলীয় স্বার্থে তাকে বহিষ্কারও করা হবে। জানা গেছে পীরগাছার আট ইউনিয়ন থেকে ৩৩ জন চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সম্পাদকের কাছে আবেদনপত্র জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে উপজেলার পারুল ইউনিয়নের ৩, ইটাকুমারীতে ৪, অন্নদানগরে ৩, ছাওলায় ৬, তাম্বুলপুরে ৮, পীরগাছা সদরে ১, কৈকুড়ীতে ৪জন এবং কান্দি ইউনিয়নের ৪জন রয়েছেন। মনোনয়ন প্রত্যাশী সবাই আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। পীরগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ মিলন বলেন আবেদনপত্র যাচাই-বাছাই করে জেলা কমিটির কাছে পাঠানো হবে। তারা সুপারিশ করে প্রতীক বরাদ্দের জন্য কেন্দ্রে পাঠাবেন। এদিকে প্রধানমন্ত্রী ও স্পিকারের এলাকাখ্যাত পীরগঞ্জে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। তফসিল ঘোষণার পর তারা নানাভাবে প্রচার-প্রচারণা শুরু করেছেন। কেউ কেউ দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে শোডাউন করে নিজেদের অবস্থান জানান দিচ্ছেন। হাট- বাজারে, পাড়া-মহল্লা ও চায়ের দোকানে চলছে জনসংযোগ। যেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধি নির্বাচন জমে উঠেছে। চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন পেতে এ পর্যন্ত ৯৬ সম্ভাব্য প্রার্থীকে নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে দেখা গেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীক না পেলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করবেন। তবে দলের সমর্থন পেলে নির্বাচনে অংশ নেওয়া সহজ হবে বলে তারা মনে করছেন ।বড়দরগাহ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মাফিয়া আক্তার শিলা এবারও নির্বাচনে অংশ নেবেন বলে জানিয়েছেন। তিনি গত নির্বাচনে অল্প ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছিলেন। এবারও চেয়ারম্যান হিসেবে এলাকাবাসী তাকে দেখতে চায়। তিনিও জয়ের ব্যাপাওে বেশ আশাবাদি ।কাবিলপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম বলেন, দলীয় নির্দেশ পাওয়ার পরই আমরা বিশেষ বর্ধিত সভা করছি। সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীরা আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়নের জন্য ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বরাবর আবেদন করছেন। জানা গেছে, পীরগঞ্জের চৈত্রকোল ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের ১৬ জন প্রার্থী মনোনয়ন প্রত্যাশীর তালিকায় রয়েছেন। একই অবস্থা ভেন্ডাবাড়ি ইউপিতে। সেখানেও সম্ভাব্য প্রার্থী ১৬। এ ছাড়াও পাঁচগাছি ইউপিতে ১১, চতরাতে ১১, কুমেদপুরে ১০, শানেরহাটে আট, বড়দরগাতে ৭জনসহ মদনখালি, টুকুরিয়া এবং কাবিলপুর ইউপিতে ৬জন করে মনোনয়ন পাওয়ার আশা করছেন ।

Previous articleরাজাপুরে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বীর মুক্তিযোদ্ধা ছালাম সিকদারের দাফন সম্পন্ন
Next articleপরকীয়া প্রেমিকের সঙ্গে স্ত্রীকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখে যুবককে পিটিয়ে হত্যা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।