তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে তৃতীয় ধাপে ২৮ নভেম্বর উপজেলার ১০টি ইউপির মধ্যে ৭টিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এতে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছেন ২২ জন। তাঁদের মধ্যে আওয়ামী লীগের ৭ জন, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) ৭জন, জাতীয় পার্টির ২জন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ৪ জন ও জামায়াতের (স্বতন্ত্র) ২জন। চেয়ারম্যান পদে ৩টিতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী বিনা ভোটে নির্বাচিত হয়েছে। বাকি ৭টি ইউপিতেই দলীয় বিদ্রোহী প্রার্থীর সংখ্যাধিক্যে নৌকার প্রার্থীরা বেকায়দায় রয়েছেন।

অন্যদিকে-উত্তর চরবংশি ইউপিতে আবুল হোসেন, চরমোহনা ইউপিতে সফিকুর রহমান পাঠান ও রায়পুর ইউপিতে সফিউল আযম চৌধুরী বিনা ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। বাকি ৭টি ইউপিতে প্রার্থী ২২ জন। তাঁদের মধ্যে ৪ ইউপিতে আওয়ামী লীগের মনোনীত ৪ প্রার্থীর বিপরীতে দলটির বিদ্রোহী প্রার্থীই ৪ জন। দলীয় মনোনয়ন না পাওয়া আওয়ামী লীগ ৪ নেতা উপজেলা আ’ লীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের অনুসারী।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মামুনুর রশিদ বলেন, ‘উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্মসাধারন সম্পাদক জাফর উল্যাহ দুলাল হাওলাদারকে-উত্তর চরআবাবিল ইউপি থেকে দলের মনোনয়ন পাননি। এখন জনপ্রিয় নেতা মনোনয়ন না পেলে তিনি কী করবেন? তাই হয়তো তিনি প্রার্থী হয়েছেন। অনেক ইউপিতে ত্যাগী নেতারা দলীয় মনোনয়ন পাননি। আমি নৌকার প্রার্থীর পক্ষে। দলীয় মনোনয়নের নাম চূড়ান্ত করার সময় আমার কোনো ভূমিকা ছিল না।’

বিদ্রোহী প্রার্থীর এই আধিক্যে সংশ্লিষ্ট ইউপিগুলোতে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা বিভিন্ন ধারায় বিভক্ত হয়ে নির্বাচনী প্রচারণায় নেমেছেন। ১২ নভেম্বর প্রতীক বরাদ্দের পর থেকে পুরোদমে পোস্টার সাঁটিয়ে, মাইকিং করে, অফিস বানিয়ে প্রচারণা শুরু করেছেন বিদ্রোহীরা।

উপজেলার দক্ষিন চরবংশি ইউপিতে প্রার্থী হয়েছেন দুইজন। আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান বহিস্কৃত নেতা আবু সালেহ মিন্টু ফরায়েজির বিরুদ্ধে দলের বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন সাবেক চেয়ারম্যান ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আবদুর রশিদ মোল্লা।।

কেরোয়া ইউপিতে প্রার্থী হয়েছেন ৪ জন জন। আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান শাহিনুর বেগম রেখার বিরুদ্ধে দলের বিদ্রোহী প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্য স্বতন্ত্র প্রার্থী ব্যবসায়ী মোঃ বাবুল পাটোয়ারী ।

চরপাতা ইউপিতে প্রার্থী হয়েছেন তিনজন। আওয়ামী লীগের প্রার্থী সুলতান মামুন রশিদের বিরুদ্ধে দলের বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগ নেতা খোরশেদ আলম।

উত্তর চরআবাবিল ইউপিতে আওয়ামীলীগের প্রার্থী দুইবারের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা শহীদ উল্লাহ বিএসসি। দলের বিদ্রোহী প্রার্থী (আনারস) উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্মসাধারন সম্পাদক জাফর উল্লাহ দুলাল হাওলাদার।।দক্ষিন চর-আবাবিল ইউপিতে আ’লীগের প্রার্থী নুরে আলম জিকু প্রতিদ্বন্দ্বি জাপার হাসানুজ্জামান চৌধুরী।।

দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে প্রার্থী হওয়া প্রসঙ্গে দক্ষিন চরবংশি ইউপির আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আবদুর রশিদ মোল্লা ও উত্তর চরআবাবিল ইউপি বিদ্রোহী জাফর উল্লাহ দুলাল হাওলাদার এবং কেরোয়া ইউপির বিদ্রোহী বাবুল পাটোয়ারী বলেন,, ‘দলের ৮০ শতাংশ লোক আমাদের পক্ষে। তাঁরা আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থীর বদল চেয়েছিলেন। তৃণমূল আমাদেরকে প্রার্থী হওয়ার জন্য বলেছেন, তাই আমরা প্রার্থী হয়েছি।’

বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজি ইসমাইল খোকন বলেন, ‘বিদ্রোহী এবং দলের পদধারী স্বতন্ত্র প্রার্থীদের নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর অনুরোধ করব। নির্বাচন থেকে না সরলে দলীয় গঠনতন্ত্র মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

লক্ষ্মীপুর-জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ও রায়পুর আসনের সাংসদ এডভোকেট নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন বলেন, ‘আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত অনেকে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন। কিন্তু তাঁদের দলীয় পদ ওই অর্থে নেই। এরপরও বিষয়টি আমরা দেখছি।’ গত ৮নভেম্বর তাদের তালিকা কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে।।

Previous articleগাইবান্ধায় ঢাকা-রংপুর মহাসড়কে বাসচাপায় অটোরিকশার ৬ যাত্রী নিহত
Next articleখালেদা জিয়ার মুক্তি না হওয়া পর্যন্ত রাজপথ না ছাড়ার হুমকি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।