বাংলাদেশ প্রতিবেদক: সম্পত্তির ভাগ, শপিংমলের ভাড়া ও ব্যাংক লোনের কিস্তি পরিশোধ না করে, টাকা আত্মসাৎ করার প্রতিবাদ করায় ছোট ভাইয়ের স্ত্রীকে শপিংমলের সামনে প্রকাশ্যে মারধর করে শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছে বড় ভাই শাহ আলমের বিরুদ্ধে।

রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলা মাওনা চৌরাস্তার ইয়াকুব আলী মাস্টার টাওয়ারে সামনে এ ঘটনা ঘটে।

শাহ আলম উপজেলার মাওনা চৌরাস্তার মরহুম ইয়াকুব আলী মাস্টারের বড় ছেলে। তিনি পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও ইয়াকুব আলী মাস্টার টাওয়ারের স্বত্ত্বাধিকারী মরহুম শহিদুল্লাহ শহীদের বড় ভাই। শহিদুল্লাহ শহীদ তার স্ত্রী শাহিন সুলতানা সুইটিসহ এক ছেলে ও দুই মেয়ে রেখে গত বছর করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

এ ঘটনায় শাহিন সুলতানা সুইটি শাহ আলমকে অভিযুক্ত করে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। ভুক্তভোগী শাহিন সুলতানার স্বামী শহিদুল্লাহ শহীদ শ্রীপুর পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

শাহীন সুলতানা সুইটি বলেন, ‘আমার স্বামী শহিদুল্লাহ শহীদের মৃত্যুর পর থেকে বড় ভাই শাহ আলম স্বামীর রেখে যাওয়া সম্পত্তি থেকে আমাকে ও ছেলে-মেয়েদের উচ্ছেদ করার জন্য বিভিন্নভাবে ষড়যন্ত্র করছে। ইতোপূর্বে বাড়ির সকল গেটে তালা ঝুলিয়ে আমাকে ৩ দিন অবরোধ করে রেখেছিল। পরে পুলিশের সহায়তায় অবরুদ্ধ অবস্থা থেকে মুক্তি পাই। এছাড়া সবসময় শারীরিক ও মানসিকভাবে অত্যাচার নির্যাতন করে।

রোববার সাড়ে এগারোটার দিকে ইয়াকুব আলী মাস্টার টাওয়ারের সামনে গেলে অভিযুক্ত শাহ আলম অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করেন। তখন প্রতিবাদ করতে গেলে আমাকে মারধরসহ শ্লীলতাহানি করেন। এ সময় গাড়ির ড্রাইভার আমির হোসেন এগিয়ে এলে তাকেও
মারধর করেন তিনি। পরে স্থানীয়রা আমাদেরকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে ন্যায়বিচার চাইতে থানায় গিয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ইয়াকুব আলী মাস্টার টাওয়ারের নিরাপত্তাকর্মী বলেন, আজকের ঘটনায় ভুক্তভোগী নারীর কোন দোষ নেই। কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই মারধর শুরু করেছেন উনি। আমরা মালিকের চাকরি করি বলে প্রতিবাদ করতে পারিনি।

অভিযুক্ত শাহ আলমের ব্যক্তিগত নাম্বারে একাধিকবার যোগাযোগ করে তার ফোনটি বন্ধ পাওয়ায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

শ্রীপুর থানার উপ-পরিদর্শক এসআই মনির হোসেন বলেন, জাতীয় জরুরী সেবা ৯৯৯-তে ফোন পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে নারীকে উদ্ধার করে থানায় লিখিত অভিযোগ দেয়ার জন্য পরার্মশ দেয়া হয়েছে। তবে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে অভিযুক্ত শাহ আলম পালিয়ে গেছেন।

শ্রীপুর থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) খোন্দকার ইমাম হোসেন বলেন, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Previous articleফেসবুক নিয়ে ঝগড়া, সাঁথিয়ায় বিষপানে স্বামী-স্ত্রীর আত্মহত্যা
Next articleখালেদা ইস্যুতে একদফা আন্দোলনের হুমকি ফখরুলের
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।