এস কে রঞ্জন: পটুয়াখালীল কলাপাড়ার টিয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র আানারস প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী মাহামুদুল হাসান সুজন মোল্লা হামলার আশংকায় তার নির্ধারিত উঠান বৈঠক করতে পারলেন না।

২০ ডিসেম্বর সোমবার বেলা তিনটায় টিয়াখালী ইউনিয়নের এক নম্বর ওয়ার্ডের বঙ্গবন্ধু কলোনী ও বাসন্তী মন্ডল স্কুল প্রাঙ্গনে তার উঠান বৈঠককে ঘিরে তার কয়েকশ সমর্থক তাকে এগিয়ে নিতে পৌূর শহরে আসলেও প্রশাসনের আগাম সতর্কতায় নির্ধারিত উঠান বৈঠকটি তাকে বাতিল করতে হয়েছে। গত ৭ ডিসেম্বর এ ইউনিয়নে প্রচারাভিয়ান শুরুর দিন থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মী ও সমর্থকদের উপর একেরপরএক হামলার ঘটনায় এমনিতেই ভীতসন্তস্থ্য নির্বাচনী এলাকার মানুষ। এ কারনে আনারস প্রতীকের প্রার্থীর একাধিক উঠান বৈঠক বাতিল করতে হয়েছে। ডোর টু ডোর ক্যাম্পেইনেও বাঁধা গ্রস্থ্য করছে সশস্ত্র বাহিনী। আনারস প্রতীকের প্রার্থী সুজর মোল্লা এ হামলার জন্য নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর হাতুড়ি বাহিনীকে দায়ী করেছেন। কলাপাড়া থানায় একাধিক অভিযোগ দিয়েছেন। কিন্তু নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে তান্ডব ততই বাড়ছে। সর্বশেষ হামলার আশংকায় এক ১ নং ওয়ার্ডের নির্ধারিত উঠান বৈঠকটি তাকে বাতিল করতে হয়েছে ভোটারদের নিরাপত্তার জন্য। যদিও তাকে বৈঠকে নিতে কয়েকশ নারী-পুরুষ পৌর শহরে এসে জড়ো হয়। কিন্তু প্রশাসন থেকে গ্রিন সিগন্যাল না পেয়ে বৈঠকটি বাতিল করেন প্রার্থী।

কুমারপট্রি তার ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের সামনে ভোটারদের উপস্থিতিতে মাহমুদুল হাসান সুজন মোল্লা বলেন,তার কাছে সবার আগে ভোটারদের নিরাপত্তা। তাই কোন ভোটার হাতুড়ি বাহিনীর দ্বারা আক্রান্ত হউক তা তিনি জান না। প্রশাসনের কাছে তার আবেদন শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য সকল প্রার্থীর জন্য লেবেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করা হউক। ভোটাররা যাতে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ও নির্বিঘেœ ভোট দিতে পারে তার ব্যবস্থা করা হউক। এজন্য তিনি নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসনের কাছে আগামী ২৬ ডিসেম্বরের আগে টিয়াখালীতে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা বাড়ানোর দাবি করেন ,যাতে ভোটাররা স্বস্তি পায়। এ ব্যাপারে কলাপাড়া থানার ওসি মো. জসীম জানান, নির্বাচনে যাতে কোন প্রার্থী আচরনবিধি ভঙ্গ না করে সে বিষয়টি তারা দেখছেন। এলাকায় শান্তিপূর্ণ পরিবেশ যাতে বজায় থাকে তারা সেই কাজটি করছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আ: রশিদ বলেন,নির্বাচনে উঠান বৈঠক করতে হলে ২৪ ঘন্টা আগে থানায় অবিহিত করতে হয়। আর তাদের কাছে যেসব অভিযোগ দিয়েছে প্রার্থীরা তা প্রশাসনকে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য বলেছেন। তবে আচরন বিধি যারা লঙ্ঘন করেছেন তারা দোষ স্বীকার করে মুচলেকা দেয়ায় তাদের সাধারণ ক্ষমা করা দেয়া হয়েছে। নির্বাচন শান্তিপূর্ণ ও অবাধ,নিরপেক্ষ হবে বলে তিনি জানান।

Previous articleসাবেক তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানের বিরুদ্ধে জয়পুরহাটে মামলার আবেদন
Next articleমুদ্রাস্ফীতি ও উচ্চ সুদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এরদোগানের প্রতিজ্ঞা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।