আব্দুল লতিফ তালুকদার: টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলায় আগামী ২৬ ডিসেম্বর চতুর্থ ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীরা ছাড়াও স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছে আওয়ামী লীগের নেতারা। এতে আওয়ামী লীগের গলার কাটা হয়ে দাড়িয়েছে বিদ্রোহীরা। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ইতোমধ্যে নিকরাইল, ফলদা ও গোবিন্দাসী ইউনিয়নে হামলা ও মাইক, মোটর সাইকেলসহ নির্বাচন অফিস ভাংচুর করেছে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও স্বতন্ত্রপ্রার্থীর সমর্থকরা ।

এদিকে আওয়ামী লীগ আওয়ামী লীগের বিদ্রোহীরা মনে করছে দলীয় প্রার্থীদের যে কোন মূল্যে তারা পরাজিত করার লক্ষ্যে কাজ করছে! আর এই সুযোগটি কাজে লাগানোর চেষ্টা করছে বিএনপির স্বতন্ত্র প্রার্থীরা এবং তারা নির্বাচনী মাঠে ফায়দা লুটার চেষ্টা করছে।এলাকা ঘুরে আওয়ামী লীগের কর্মী সমর্থকদের সাথে কথা বলে জানা যায় আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ও দলীয় প্রার্থীদের মধ্যে ঐক্য গড়তে না পারলে ভরাডুবি নিশ্চিত।

উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ২৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের ৬জন প্রার্থী ছাড়াও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ১২ জন এবং বিএনপির স্বতন্ত্রপ্রার্থী রয়েছে ২জন। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী অংশ গ্রহণ করে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থীরা নৌকা ছাড়াও অন্যান্য প্রার্থীরা বিভিন্ন প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছে। গোবিন্দাসী ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দুলাল হোসেন চকদার, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী আনারস প্রতীকে সাবেক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আমিনুল ইসলাম আমিন, ফলদা ইউনিয়নের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা ও বর্তমান চেয়ারম্যান সাইদুল ইসলাম তালুকদার দুদু, বিদ্রোহী ঘোড়া প্রতীকে আওয়ামী লীগ নেতা মফিদুল ইসলাম লিটন (ভিপি লিটন), মোটরসাইকেল প্রতীকে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আকবর হোসেন, উপজেলার বিএনপির সাধারন সম্পাদক আনারস প্রতীকের সেলিমুজ্জামান সেলু, নিকরাইলে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন সরকার, বিদ্রোহী আনারস প্রতীকে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক মাসুদুল হক মাসুদ ও আওয়ামী লীগ সমর্থক মোটর সাইকেল প্রতীকে আবু সাঈদ, অলোয়া ইউনিয়নের নৌকা প্রতীকে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম রফিক, বিদ্রোহী মোটরসাইকেল প্রতীকে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান রহিজ উদ্দিন আকন্দ ও বিএনপির অঙ্গসংগঠন ইউনিয়ন যুবদলের আহ্বায়ক আনারস প্রতীকে শরিফুল ইসলাম, অজুর্না ইউনিয়নের নৌকা প্রতীকে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক দিদারুল আলম খান মাহবুব, বিদ্রোহী মোটরসাইকেল প্রতীকে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী মোল্লা, আনারস প্রতীকে আওয়ামী লীগ নেতা শরিফুল্লা, চশমা প্রতীকে যুবলীগ নেতা ইকো মিয়া ও ঘোড়া প্রতীকে আওয়ামী লীগ সমর্থক মিজানুর রহমান রাজিব, গাবসারা ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান মনির, বিদ্রোহী মোটরসাইকেল প্রতীকে সাবেক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন জিন্নাহ, আনারস প্রতীকে আওয়ামী লীগ নেতা শাহ আলম শাপলা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

ফলদা ইউপিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীক চেয়ারম্যান প্রার্থী সাইদুল ইসলাম তালুকদার দুদু অভিযোগ করে বলেন, আমার প্রতিদ্বন্দ্বি মোটরসাইকেল প্রতীকে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আকবর হোসেন তিনি নিজেকে মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে বিভিন্ন সমাবেশে দাবি করেন। এতে আওয়ামী লীগের নেতাকমীরা দ্বিধাবিভক্তি হয়ে পড়ায় সে সুবিধা নেওয়ার চেষ্টা করছে। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ কয়েকভাবে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। এতে কয়েকটি ইউনিয়নে সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকরা নৌকার মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী
হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে। এতে তৃণমূল পর্যায়ে আওয়ামী লীগের মধ্যে কোন্দল তৈরি হয়েছে। এদিকে উপজেলার দুইটি ইউনিয়নে বিএনপির দুইজন নেতা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে।

এতে কয়েকদিনের ঘটনায় বিভিন্ন প্রার্থীর ১২জন কর্মী-সমর্থকরা আহত হয়েছে।এদের মধ্যে অনেকেই হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছে। গত বুধবার (৮ ডিসেম্বর) গোবিন্দাসীতে নৌকাও আনারস প্রতীকের প্রার্থীদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এদিকে ফলদা ইউনিয়ণে নৌকার মাইক ভাংচুর করেছে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের সমর্থক ও অনুসারীরা। নিকর্ইাল ইউনিয়নে নৌকার সমর্থকও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মাসুদুল হক মাসুদের নেতাকর্মীদের বেশ কয়েকটি মোটরসাইকেলে অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুর করা হয়। পরে বিদ্রোহী প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা নৌকা প্রার্থীর লোকজনের উপর হামলা চালায়। এতে নৌকা প্রার্থীর কর্মী ও ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ছানোয়ার হোসেন গুরুত্বর আহত হয়ে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। তবে সংঘর্ষের ঘটনায় কোন পক্ষই এখন পর্যন্ত থানায় মামলা দায়ের করেনি।

ভূঞাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল ওহাব মিয়া বলেন, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছিল। এঘটনায় কোন পক্ষই মামলা বা অভিযোগ দেয়নি। নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা বজায় রাখতে পুলিশ প্রশাসন সজাগ রয়েছে। উল্লেখ্য,এ উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে মোট ভোটার ১লক্ষ ৩৫হাজার ৯শ ৭১জন। এর মধ্যে ৬৬ হাজার ৬শ ১০জন মহিলা ভোটার। ৬০টি ভোট কেন্দ্রে ৩৬২টি বুথে এ ভোট অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

Previous articleমুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত গণতন্ত্র সরকার ধ্বংস করে দিচ্ছে: ফখরুল
Next articleমুলাদীতে জোড়পূর্বক ধান কেটে নেওয়ার চেষ্টা, বাঁধা দেওয়ায় হামলা: নারীসহ আহত ১০
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।