বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মুলাদীতে জোড়পূর্বক ধান নেওয়ার সময় বাঁধা দেওয়ায় হামলা চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল শুক্রবার বেলা ১২টার দিকে উপজেলার মুলাদী সদর ইউনিয়নের পশ্চিম তেরচর গ্রামের ভুলু হাওলাদারের বাড়িতে এই ঘটনা ঘটে। এতে নারীসহ কমপক্ষে ১০জন আহত হয়েছে।

পশ্চিম তেরচর গ্রামের কাসেম আলী সিকদারের ছেলে ফরিদ সিকদার, তার সহযোগী আজহার সিকদার ও কামাল সরদারের নেতৃত্বে এই হামলা চালানো হয়েছে বলে জানান আহতরা। হামলাকারীরা আহতদের হাসপাতালে নিতে বাঁধা দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। পরে মুলাদী থানা পুলিশ আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসা করায়। এদের মধ্যে পারভীন নামের এক নারীর অবস্থা আশঙ্কাজনক। পশ্চিম তেরচর গ্রামের মৃত হাফেজ হাওলাদারের ছেলে মো. ভুলু হাওলাদার জানান, তাদের বাড়ির পাশে একটি জমি দীর্ঘদিন ধরে ভোগদখল করে আসছেন। প্রায় ২৫ বছর আগে একটি পক্ষ ওই জমির মালিকানা দাবি করলে আদালতে মামলা হয়। ওই মামলা বর্তমানে চলমান রয়েছে। বিবাদীদের কেউ মামলায় হাজিরা কিংবা আদালতে কাগজপত্র দিতে পারেনি। তিনি আরও বলেন, শুক্রবার ওই জমিতে আমরা আমন ধান কাটতে ছিলাম। বেলা ১২টার দিকে কাওসার সিকদার, ফরিদ সিকদার, আজাহার সিকদার, কামাল সরদারের০ নেতৃত্বে ৫/৬জন ধান নেওয়ার চেষ্টা করে। আমরা বাঁধা দিলে তাঁরা ক্ষিপ্ত হয়ে চলে যান। পরে ৪০/৪৫জন লোক লাঠিসোটা ও দেশিয় অস্ত্র নিয়ে আমাদের বাড়িতে হামলা চালায়। হামলায় ভুলু হাওলাদার, তার বোন রূপজান বিবি, ভাইপো জিয়া হাওলাদার, ভাইপো স্ত্রী পারভীন আক্তারসহ ১০জন আহত হয়েছে। স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে মুলাদী হাসপাতালে নিতে চাইলে হামলাকারীরা বাঁধা দেয়। সংবাদ পেয়ে মুলাদী থানার এসআই মো. মাহফুজ পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন। আহতদের মধ্যে পারভীন আক্তারের মাথায় মারাতœক আঘাত লাগায় তাকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এব্যাপারে আজাহার সিকদারের সহযোগী কামাল সরদার জানান, ধান কাটা নিয়ে বিরোধ হয়েছে। আমার ভাগ্নি সুমী ও কাওসার হামলার স্থানে যাওয়ায় আমি পরবর্তীতে গিয়েছি। হামলার বিষয়ে আমার ভালো জানা নেই। মুলাদী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. মাহফুজ জানান, হামলা এবং আহতদের চিকিৎসার বাঁধা দেওয়ার সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে আহতদের উদ্ধার করে মুলাদী হাসপাতালে নিয়ে আসে। মুলাদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এসএম মাকসুদুর রহমান জানান, সংবাদ পাওয়ার পরই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। ঘটনার তদন্ত চলছে। আহতদের অভিযোগ পাওয়ার পরে হামলাকারীদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অপর দিকে, হামলার ঘটনার পর পর আজাহার সিকদার ও হাচেন বানু নিজেদের আহত দেখিয়ে প্রথমে হাসপাতালে ভর্র্তি হয় বলে জানান ভুলু হাওলাদারের লোকজন। পরে বিকেলে মুলাদী হাসপাতালে পুলিশ গেলে তাঁরা হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যান।

Previous articleভূঞাপুরে ইউপি নির্বাচন: আওয়ামী লীগের প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ
Next articleসাঙ্গু নদীতে নি‌খোঁজ আরেক নারী পর্যটকের লাশ উদ্ধার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।