অতুল পাল: বাউফল পৌরসভা এ গ্রেডের হলেও বি গ্রেডে নির্বাচনী তফশীল ঘোষণায় সম্ভাব্য প্রার্থী এবং ভোটারদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। গত বৃহষ্পতিবার(২৩ ডিসেম্বর) নির্বাচন কমিশনের নির্বাচন পরিচালনা অধিশাখা-২ এর উপসচিব মো. আতিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে আগামি ৩১ জানুয়ারি বাউফল পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠানের তফশীল ঘোষণা করেছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ২০০১ সালে স্থানীয় এমপি আ স ম ফিরোজের প্রচেষ্টায় বাউফল বাজারকে তৃতীয় গ্রেডের পৌরসভা করা হয়। এরপর পর্যায়ক্রমে দ্বিতীয় গ্রেড এবং সর্বশেষ ২০১৬ সালে ২৫ মে মহামান্য রাষ্ট্রপতির নির্দেশে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় ৮১১ স্মারকের এক চিঠির মাধ্যমে বাউফল পৌরসভাকে এ গ্রেডে উন্নীত করেন। পৌরসভাকে এ গ্রেডে উন্নীত করতে পৌরসভার চারদিকে বাউফল সদর, দাসপাড়া, নাজিরপুর এবং মদনপুরা ইউনিয়নের কিছু অংশ কর্তন করে পৌরসভার আয়তন ৬.৫ বর্গকিলোমিটার করা হয়। পৌরসভার বর্ধিত অংশের উন্নয়নে সরকারি-বেসরকারি বরাদ্দে উন্নয়ন কাজও করা হয়েছে। অপরদিকে ইউনিয়নগুলোর আয়তন থেকে একাধিক ওয়ার্ড বা অংশ বিশেষ কর্তন করে পৌরসভার অর্ন্তভূক্ত করার বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের চেয়ারম্যানসহ একাধিক সংক্ষুব্ধ ব্যাক্তি ৭টি মামলা করেছেন। ওই মামলাগুলোর এখনো কোন ফয়সালা হয়নি। ওই মামলার কারণে ২০১২ সালের পর বাউফল পৌরসভার আর নির্বাচন হয়নি এবং একই কারণে সংশ্লিষ্ট চারটি ইউনিয়নেও বিগত ১২ বছর যাবত নির্বাচন হচ্ছে না।

এদিকে এ গ্রেডের পৌর নির্বাচন করার লক্ষ্যে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে বর্তমানে পৌরসভার সঙ্গে ইউনিয়নগুলোর পূণর্বিন্যাস কার্যক্রম চলছে। পূরানো সীমানায় অর্থাৎ বি গ্রেডে নির্বাচন হওয়ার যে তফশীল ঘোষণা করা হয়েছে তাতে পৌরসভার বর্ধিত অংশের কয়েক হাজার ভোটার ভোট দিতে পারবেন না। এমতাবস্থায় বৃহস্পতিবার বাউফল পৌরসভার নির্বাচনী তফশীল ঘোষণা করায় ভোটার ও প্রার্থীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। পৌরসভার সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী শহীদ সেলিমের ভাই মো. ইব্রাহিম ফারুক বলেন, ২০১৬ সালে রাষ্ট্রপতির আদেশে বাউফল পৌরসভাকে এ গ্রেডে উন্নীত করা হয়। এরপর এ গ্রেডের পৌরসভা হিসেবে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় থেকে উন্নয়ন কাজের বরাদ্দ দেয়া হয়। শহর সম্প্রসারণ করা হলে এ গ্রেডের পৌরসভায় অন্তত ৫ হাজার ভোটার অন্তর্ভুক্ত হবে। এখন বি গ্রেডের পৌরসভা হিসেবে নির্বাচনী তফসিল ঘোষনা করা হয়েছে। এরফলে ৫ হাজার ভোটার ভোট প্রয়োগ করতে পারবেন না। আমি নিজেও ভোট দিতে পারবো না। আমাকে নির্বাচন থেকে বাইরে রাখার উদ্দেশ্যে একটি চক্র তফসিল প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত থাকতে পারে। এটা পৌরবাসী মেনে নেবেন না। বাউফল পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এনায়েত খান ছানা প্রশ্ন রাখেন, যদি বি গ্রেডের পৌরসভার নির্বাচনই হয় তাহলে নির্ধারিত মেয়াদের পর কেন নির্বাচন হলো না ? ঘোষিত নির্বাচনী তফশীলের সাথে নিশ্চয়ই কোন দুষ্টচক্র রয়েছে। আমরা সম্প্রসারিত এ গ্রেডের ভোটার হিসেবেই নির্বাচন করতে চাই। এদিকে একটি সূত্র দাবি করেছেন, বর্তমান প্রধান নির্বাচন কমিশনারের বাড়ি বাউফলে। শীঘ্রই তার মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে বলে ধারণা করে তিনি ক্ষমতায় থাকতেই মামলা-মোকদ্দমা এবং স্থানীয় সরকারের নির্দেশিত সীমানা নির্ধারণের চলমান কাজকে গোপণ করে তরিঘরি বাউফল পৌরসভার নির্বাচনী তফশীল ঘোষণায় একটি মহল জড়িত থাকতে পারে। অপর একটি সূত্র জানায়, ঘোষিত তফশীলে বিক্ষুব্ধ হয়ে ভোটাররা আদালতের স্বরণাপন্ন হতে পারেন।

Previous articleসাঙ্গু নদীতে নি‌খোঁজ আরেক নারী পর্যটকের লাশ উদ্ধার
Next articleকক্সবাজারে গণধর্ষণ: তথ্যে অনেক গড়মিল, যা জানা গেল জবানবন্দিতে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।