কামাল সিদ্দিকী: পাবনায় কয়েকটি বিক্ষিপ্ত শান্তিপূর্ণ পরিবেশে শেষ হয়েছে তিন উপজেলার ১৮ ইউনিয়ন ও ১ পৌরসভার ভোট গ্রহণ। স্বাক্ষরবিহীন ব্যালটে নৌকা প্রতীকে ভোট নেয়ার অপচেষ্টা, ব্যালট পেপার ছিনতাই, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশের ফাঁকাগুলি, নৌকা ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর ভোট কেন্দ্র দখলের চেষ্টার ঘটনা ঘটেছে।

চতুর্থ দফার নির্বাচনে রোববার সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরুর পর বেশ ভোটাদের স্বত:স্ফূর্ত উপস্থিতিতে উৎসবমুখর ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটাররা কেন্দ্রে এসে সুশৃঙ্খলভাবে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। এ সময় প্রায় প্রতিটি কেন্দ্রে পুরুষ ও নারী ভোটারদের দীর্ঘলাইন চোখে পড়ে। জেলা প্রশাসনের কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা ছিল সন্তোষজনক। সদর উপজেলার মালিগাছা, সাদুল্লাহপুর, হেমায়েতপুর, চরতারাপুর, মালঞ্চি, দোগাছি, আটঘরিয়া উপজেলার দেবোত্তর, একদন্ত, চাঁদভা, মাজপাড়া ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি কেন্দ্র সরেজমিনে ঘুরে ও সাধারণ ভোটারদের সাথে আলাপ করে জানা যায়, অন্যান্য নির্বাচনের তুলনায় এবারের নির্বাচন অনেকটা শান্তিপূর্ণ ভাবে সম্পন্ন হলো। কারও কোন বাধাবিঘ্ন ছাড়াই ভোটাররা স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে নিজের ভোট নিজে দিতে পেরেছেন। কেন্দ্র গুলোতে ছিল আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সরব উপস্থিতি। যার কারনে বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে নৌকা ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকরা ভোট কাটার চেষ্টা চালালেও প্রশাসনের বাধার মুখে ব্যর্থ হয়।

এদিকে হেমায়েতপুর ইউনিয়নের চরঘোষপুর দাখিল মাদরাসা কেন্দ্রে দুপুরে ভোট কেন্দ্র দখলের চেষ্টা করে নৌকা ও স্বতন্ত্রের সমর্থকরা। চরঘোষপুর ইসলামীয়া দাখিল মাদরাসা কেন্দের দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশের ইনচার্জ (এসআই) তরিকুল ইসলাম বলেন, ব্যালট পেপার ছিনতাই করার চেষ্টা করা হলে পরিস্থিতি শান্ত করতে পুলিশ ২৪ রাউন্ড গুলি ৪ টি রাবার বুলেট ও ২০ টি টিআর শেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি শান্ত করে। সাদুল্লাহপুর ইউনিয়নের আতাইকান্দা এলাকায় বিশৃঙ্খলা ঠেকাত আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সদস্যরা ফাঁকা গুলি ছুড়ে। মালঞ্চি ইউনিয়নের নুরপুর কেন্দ্রে প্রিসাইডিং অফিসারের সাক্ষর না থাকায় নৌকার সিল মারা ৭৬ টি ব্যালট বাতিল করা হয়। এছাড়া আটঘরিয়া উপজেলার মাজপাড়া ইউনিয়নের পারখিদিরপুর কেন্দ্রের বাইরে নৌকা ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের হাল্কা সংঘর্ষে কয়েকজন আহত হয়। দেবোত্তর ইউনিয়নের দুটি কেন্দ্রের বাইরে ভোট কাটার চেষ্টাকে কেন্দ্র করে নৌকা ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। ভাঙ্গুড়া উপজেলার ৪ টি ইউনিয়নের ভোট গ্রহন কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়া শান্তিপূর্ণ ভাবে সম্পন্ন হয়েছে বলে জানান উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা রোখছানা নাসরিন।

বেশ কয়েকজন চেয়ারম্যান প্রার্থীর সাথে আলাপকালে নির্বাচনের সার্বিক পরিবেশ শান্তিপূর্ণ হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। অপরদিকে আটঘরিয়া পৌরসভায় ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণও শান্তিপূর্ণ ভাবে শেষ হয়েছে বলে জানান জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা ও পৌরসভা নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান। পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদ আলম জানান, ১৮ টি ইউনিয়ন ও ১ টি পৌরসভার নির্বাচন ঘিরে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে আনসার ও পুলিশ সদস্যের পাশাপাশি নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট নিয়োজিত ছিল। সেই সাথে স্টাইকিং ফোর্স হিসেবে ৪ প্লাটুন বিজিবি ও র‌্যাবের টহল জোরদার ছিল। প্রশাসনের কঠোর নজরদারী ও তৎপরতার কারনে উল্লেখযোগ্য কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

Previous articleভোলাহাটে ভোটকেন্দ্রে সংঘর্ষে আহত ১০
Next articleপীরগাছায় ভ্যান চালকের স্ত্রী হালিমা বেগম জোড়া লাগানো সন্তান নিয়ে বিপাকে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।