জয়নাল আবেদীন: রংপুর সিটি করপোরেশনের ৩৩টি ওয়ার্ডের মধ্যে টিসিবির পণ্য বিক্রির জন্য আছে মাত্র ছয়টি কেন্দ্র, যা প্রয়োজনের তুলনায় অনেক কম। যার ফলে প্রতিনিয়ত পণ্য পেতে ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে ক্রেতাদের। বিশেষ করে মহিলা ক্রেতারাই বেশী ভোগান্তিতে পড়ছেন । তাদের দাবি মহিলাদের জন্য আলাদা বিক্রয় কেন্দ্র খোলা হোক।

নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় রংপুরে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) ন্যায্যমূল্যের পণ্য বিক্রয়কেন্দ্র গুলোতে ভিড় বাড়ছে। প্রায় সময়ই লাইনে দাড়িয়ে চুলোচুলি, মারামারি,পুরুষের সঙ্গে নারীদের ধাক্কাধাক্কির মত ঘটনাও ঘটছে । সার্বিক অবস্থা দেখে মনে হয় টাকা দিয়ে পণ্য ক্রয় নয় এ যেন রিলিফের পণ্য বিতরণ ।

গতকাল সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত টিসিবির পণ্যের ট্রাক আসার অপেক্ষায় থাকতে দেখা যায় বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষকে। এটি যেন প্রতিদিনেরই চিত্র। এমন অবস্থায় রংপুরে টিসিবির পণ্যের বিক্রয়কেন্দ্র আরও বাড়ানোর দাবি তুলেছেন নগরবাসী।এসব কেন্দ্র থেকে পণ্য কিনতে দুই থেকে তিন কিলোমিটার দূর থেকেও আসেন কেউ কেউ। রংপুর নগরির প্রধান ডাকঘরের সামনে টিসিবি পণ্যের জন্য দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায় অনেককেই।

বিলকিস বেগম নামের একজন বলেন, কেউ সকাল থেকে বসে আছেন ট্রাকের আশায় আমি আসছি ১১টায় আর ট্রাক মাল নিয়ে আসলো ১২টার দিকে । বাড়ির সব কাজ বন্ধ রেখে দিনের এক বেলা সময় নষ্ট করে টিসিবির পণ্য কিনলাম। বাজার থেকে কিনতে গেলে বেশি টাকা পড়ে। তাই এখানে আসা।’মানু মিয়া নামের একজন দুই কিলোমিটার দূরের বাস টার্মিনাল এলাকা থেকে এসেছেন টিসিবির পণ্য বিক্রয়কেন্দ্রে। তিনি বলেন, ‘মসুর ডাল, চিনি, তেল- এই তিনটি পণ্য বাজার থেকে কিনতে হলে অনেক বেশি টাকা লাগত। যে টাকা বাঁচল, তা দিয়ে সবজি ও মাছ কিনতে পারব। তাই কষ্ট হলেও সকালে এসে এসব পণ্য কিনতে লাইনে দাঁড়িয়েছি।’বাজারে মসুর ডাল, চিনি, তেলের দাম প্রতিনিয়ত বেড়ে যাওয়ায় রংপুর শহরের নিম্ন ও মধ্যম আয়ের মানুষজনের অনেকেই এখন টিসিবির পণ্যের জন্য অপেক্ষায় থাকেন। অনেকেই লাজলজ্জার কারণে লাইনে দাঁড়াতে না পারলেও বাড়ির কাজের মানুষ কিংবা অন্য কাউকে নিয়ে এসে লাইনে দাঁড় করিয়ে দেন বলে সরেজমিনে জানা যায়।

প্রতিনিয়তই কেন্দ্রগুলোতে ভিড় বাড়ছে; বাড়ছে ভোগান্তিও। তিন কিলোমিটার দূরের নগরের নীলকণ্ঠ এলাকা থেকে শহরের ডাকঘরের সামনে পণ্য কিনতে এসেছেন সিরাজুল ইসলাম। তিনি বলেন, ভোগান্তি দূর করতে পণ্যের বিক্রয়কেন্দ্র বাড়ালে প্রতিটি এলাকার ক্রেতাদের দুর্ভোগ কিছুটা কমে আসত। এটি টিসিবির বিবেচনা করা দরকার।টিসিবির ভ্রাম্যমাণ ট্রাকে ন্যায্যমূল্যে সয়াবিন তেল প্রতি লিটার ১১০ টাকা এবং প্রতি কেজি চিনি ৫৫ টাকা, ডাল ৬৫ টাকা ও পেঁয়াজ (তুরস্ক) ৩০ টাকায় বিক্রি হয়। রংপুর শহরে টিসিবির প্রতি ট্রাকে ৫০০ কেজি চিনি, ৪০০ কেজি মসুর ডাল, ৬০০ লিটার সয়াবিন তেল ও ৫০০ কেজি পেঁয়াজ বিক্রি করা হয়। খোলাবাজারে প্রতি লিটার সয়াবিন তেল ১৫৫-১৬০ টাকা, প্রতি কেজি চিনি ৮৫-৯০ টাকা, মসুর ডাল ৯০-৯৫ টাকা ও বিদেশি পেঁয়াজ ৪০ টাকা।টিসিবির ট্রাকের পণ্য বিক্রেতা রফিকুল ইসলাম বলেন, দুপুর ১২টা থেকে বেলা ১টার মধ্যে নির্দিষ্ট স্থানে ট্রাক নিয়ে যাওয়া হয়, কিন্তু এর অনেক আগে থেকে মানুষজন অপেক্ষা করেন। লাইন ধরতে ভিড় শুরু হয়। পণ্যও দ্রæত শেষ হয়ে যায়।

টিসিবি রংপুর আঞ্চলিক কার্যালয়ের কর্মকর্তা প্রতাপ কুমার গণমাধ্যমকে বলেন, প্রতিদিন নগরির ছয়টি কেন্দ্রে ন্যায্যমূল্যে এসব পণ্য বিক্রি করা হচ্ছে। মানুষের সুবিধার জন্য সপ্তাহের ছয় দিন (শুক্রবার ছাড়া) একেক দিন একেক স্থানে পর্যায়ক্রমে এসব পণ্য ট্রাকে করে বিক্রি করা হয়। পণ্য বিক্রির পরিমাণ ও বিক্রয়কেন্দ্র বাড়ানো হবে কি না, এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, সামনে রমজান মাসে কেন্দ্র দ্বিগুণ করা হবে। সেই সঙ্গে পণ্যের পরিমাণও বাড়ানো হবে।

Previous articleকেশবপুরে জলাবদ্ধ ৭শ পরিবারের মাঝে জি আর চাউল বিতরণ
Next articleচান্দিনায় আওয়ামীলীগ নেতা সেলিম রেজা’র ইন্তেকাল
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।