আহম্মদ কবির: পাহাড়ি ঢলে সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার টাঙ্গুয়ার হাওরের বাঁধ ভেঙে হাওরে পানি প্রবেশ করায়,টাঙ্গুয়ার হাওরের পানিতে উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের এরাইল্যাকুনা বাঁধ ভেঙ্গে প্রায় হাওরে পানি প্রবেশ করায় স্থানীয় কৃষকরা জানায় ৮০০একর জমির বোরো ধান পানিতে তলিয়ে গেছে।তবে ভেঙে যাওয়া বাঁধটি পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধীনে কোন প্রকল্পের নির্মিত বাঁধ নয়।স্থানীয় কৃষকদের উদ্যোগে নির্মিত বাঁধ।

অন্যদিকে টাঙ্গুয়ার হাওর এলাকার বাঘমারা কান্দায় ২৩ ও ২৫ নং পিআইসি’র বাঁধ ধসে পড়ায়,ফসল নিয়ে দুশ্চিন্তায় হাওর পাড়ের কৃষকেরা।

শুক্রবার দুপুরে উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের এরাইল্যাকুনা ফসল রক্ষা বাঁধ ভেঙ্গে গিয়ে পানির নিচে তলিয়ে যায় পাকা ও আধা পাকা ধান।এতে দিশেহারা হয়ে পড়েন হাওর পাড়ের কৃষকরা।

সরেজমিনে গিয়ে স্থানীয় কৃষকদের সাথে কথা বলে জানাযায় গেল কয়েক দিনের বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে পাঠলাই নদীতে অস্বাভাবিকভাবে পানি বাড়তে থাকে এতে টাঙ্গুয়ার হাওর নজরখালী ভেঙে যাওয়ায় টাঙ্গুয়ার হাওরের পানি বাড়তে থাকে পানি বৃদ্ধি ফলে ফইল্যার বিলের কান্দা দিয়ে পানি উপচে পড়তে থাকে।বিষয়টি স্থানীয়দের মাধ্যমে জানতে পেয়ে সকালেই উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রায়হান কবির এরাইল্যাকুনা হাওরের বাঁধটি রক্ষায় প্রয়োজনীয় বস্তা বাঁশ সহ বিভিন্ন সরঞ্জাম নিয়ে গেলেও বাঁধটি রক্ষা সম্ভব হলনা।

হাওরের তীরবর্তী তেরঘর গ্রামের কৃষক ইউসুব আলী বলেন চলতি মৌসুমে এরাইল্যাকুনা হাওরে প্রায় ৮০০একর জমিতে বোর ধান চাষাবাদ হয়েছিল। হাওরটি তলিয়ে যাওয়ায় কয়েকটি গ্রামের প্রায় পাঁচ শতাধিক কৃষক জীবিকা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছে।

এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য মন্দিয়াতা গ্রামের ভুক্তভোগী কৃষক মোঃ সাজিনুর মিয়া বলেন টাঙ্গুয়া হাওরের বাঁধ ভাঙাতে টাঙ্গুয়ার হাওরের পানি উপচে পড়ার শুরু করলে শত-চেষ্টা করেও রক্ষা করা সম্ভব হলনা,অবশেষে এরাইল্যাকুনা হাওরের বাঁধ ভেঙ্গে হাওরে পানি প্রবেশ করে তলিয়ে যায় আমাদের একমাত্র বোর ফসল।উনি বলেন টাঙ্গুয়া হাওরের ভিতরে এরাইল্যাকুনা সহ তাহিরপুর উপজেলার আওতাধীন অনেকগুলো হাওর রয়েছে কয়েকটা তলিয়ে গেছে অন্যটি ঝুঁকিতে রয়েছে।

এ ব্যাপারে তাহিরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাসান উর দৌল্লা বলেন এই বাঁধটি পানি উন্নয়ন বোর্ডের কোন বাঁধ নয় স্থানীয় কৃষকদের নির্মিত বাঁধ, এই হাওরে চলতি বোর মৌসুমে প্রায় ৪০০-৪৫০ একর ফসল রোপণ করা হয়েছে তবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এখন জানা যায়নি,উনি বলেন ফসল হানি কৃষকের জন্য,সহায়তার তালিকা চলমান রহিয়াছে।

তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রায়হান কবির বলেন এরাইল্যাকুনা হাওরে পানি প্রবেশ করছে এমন খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক বাঁশ ও বস্তা নিয়ে হাজির হলেও অতিরিক্ত পানির চাপ থাকায় বাঁধটি রক্ষা করা সম্ভব হয়নি।

Previous articleরোববার থেকে সিলেটে পরিবহন ধর্মঘট
Next articleরংপুরে বাংলাদেশ স্কাউটস দিবস পালিত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।