বাংলাদেশ প্রতিবেদক: কক্সবাজারের টেকনাফ পৌর আওয়ামী লীগের তিন নেতাকে ব্যাপক মারধর করার অভিযোগ উঠেছে উখিয়া-টেকনাফের সাবেক সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদির বিরুদ্ধে। টেকনাফ পৌর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় বদির কথার বিরোধিতা করায় তাদের মারধর করা হয় বলে অভিযোগ।

শুক্রবার (২২ এপ্রিল) টেকনাফ পৌর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা চলাকালীন ইফতারের আগে এ ঘটনা ঘটে। মারধরের ভিডিও ইতোমধ্যেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

মারধরের শিকার তিন নেতা হলেন- টেকনাফ পৌর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মো: ইউছুফ মনু, পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মো: ইউছুফ ভুট্টো ও উপজেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাহমুদুল হক।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পাওয়া ভিডিওতে দেখা যায়, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও উখিয়া-টেকনাফের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক টিমের প্রধান রাজা শাহ আলমসহ অন্যদের উপস্থিতিতে এ মারধরের ঘটনা ঘটে।

মারধরের শিকার মো: ইউছুফ মনু সম্পর্কে বদির আপন মামাতো ভাই। তিনি দাবি করেন, ‘বর্ধিত সভা চলাকালীন সাবেক সংসদ সদস্য বদি পৌর কমিটিকে ডিঙিয়ে বারবার ওয়ার্ড কমিটিকে প্রাধান্য দিয়ে কথা বলছিলেন। পৌর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হিসেবে আমি তার বক্তব্যের প্রতিবাদ করায় সেখানে বাগ্বিতণ্ডার সৃষ্টি হয়। একপর্যায়ে বদি মঞ্চ থেকে নেমে তার ক্যাডার বাহিনীকে ডেকে এনে আমাকে কিল-ঘুষি মারতে থাকেন। এ সময় আমাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসা আমার ভগ্নিপতি ও যুগ্ম সম্পাদক ইউছুফ ভুট্টোকেও একইভাবে মারধর করেন বদি ও তার লোকেরা।’

টেকনাফ পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি জাবেদ ইকবাল চৌধুরী বলেন, পৌর আওয়ামী লীগের সম্মেলনের জন্য জেলা সাংগঠনিক টিমের নেতাদের উপস্থিতিতে পূর্বনির্ধারিত বর্ধিত সভা ছিল শুক্রবার। এতে জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শাহ আলম রাজা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. রণজিত দাশ, ইউনুস বাঙালি, উপজেলা সভাপতি মাস্টার জাহেদ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক নুরুল বশরসহ জেলা-উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের নেতারা উপস্থিত ছিলেন। এ সময় একটি অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে বলে স্বীকার করেন তিনি।

টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল বশর বলেন, টেকনাফ পৌর আওয়ামী লীগের কমিটি হয়েছে ১৩ বছর আগে। আর এদের অধীনে ৯টি ওয়ার্ডের কমিটি হয়েছে দুই বছর অতিক্রম করেছে। ওয়ার্ড কমিটিগুলো একটিও পূর্ণাঙ্গ হয়নি। ফলে এই কমিটি দিয়ে সম্মেলন করা নিয়ে সন্দিহান নেতাকর্মীরা। বর্ধিত সভায় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি করে সম্মেলনের দাবি ওঠে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে এমপি বদি, তার ভাই শুক্কুরসহ অন্যরা দুই নেতাকে মারধর করেছে। তবে মারধরের ঘটনার কোনো প্রতিকার চান না মারধরের শিকার ইউছুফ মনু।

বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে বদির সাথে মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। তার তিনটি নম্বরের দুটি বন্ধ পাওয়া যায়। আর একটি খোলা থাকলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

এদিকে মারধরের ঘটনায় আরেক অভিযুক্ত আবদুল শুক্কুরের দাবি, সভায় মারধরের কোনো ঘটনাই ঘটেনি। তিনি বলেন, ‘আমি পৌর শাখার একজন নেতা হিসেবে সভায় উপস্থিত ছিলাম। সেখানে কিছুটা বিশৃঙ্খলা তৈরি হলে আমি কয়েকজন কর্মী নিয়ে পরিবেশ শান্ত করার চেষ্টা করেছি। কাউকে মারধর করার প্রশ্নই আসে না।’

অবশ্য দলের কক্সবাজার জেলা কমিটির সহ-সভাপতি শাহ আলম চৌধুরীর বলেন, ‘আওয়ামী লীগ লাখো-কোটি কর্মীর বিশাল সংগঠন। এর একটি ইউনিটের সভায় সামান্য যে বিশৃঙ্খলা হয়েছে, তা হতেই পারে। আমরা সাংগঠনিকভাবে এটি ঠিক করে ফেলবো। কোনো সমস্যা হবে না।’

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে এমপি নির্বাচিত হয়ে ইয়াবা কারবারিদের পৃষ্ঠপোষকতার অভিয়োগে ইয়াবা গডফাদার হিসেবে খ্যাতি পান বদি। দুর্নীতি ও সম্পদ গোপনসহ নানা অভিযোগে কারাভোগ করেন তিনি। অভিযুক্ত হওয়ায় পরবর্তী নির্বাচনে অযোগ্য হয়ে ২০১৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন না পেলেও তার স্ত্রী শাহিন আক্তারকে দিয়ে দলীয় মনোনয়ন নিয়ে এমপি পদটি নিজের বাগে রাখেন। তখন এমপি হন তার স্ত্রী শাহিন চৌধুরী।

Previous articleশ্রমিক সংকটে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে কম্বাইন্ড হারভেস্টার
Next articleবগুড়ায় স্বামীর সহযোগিতায় বাসরঘরে নববধূকে দুলাভাইয়ের ধর্ষণ!
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।