ফজলুর রহমান: রংপুরের পীরগাছায় উন্নত প্রযুক্তিনির্ভর পাট, পাটবীজ উৎপাদন ও সম্প্রসারণ শীর্ষক প্রকল্পে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে উপ-সহকারি পাট উন্নয়ন কর্মকর্তা পরিতোষ রায় এর বিরুদ্ধে। পাট চাষিদের জন্য বরাদ্দকৃত বীজ ও সার কৃষকদের না দিয়ে গোপনে বিক্রয় করে তিনি লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০২০-২১ অর্থবছরে উন্নত প্রযুক্তিনির্ভর পাট, পাটবীজ উৎপাদন ও সম্প্রসারণ শীর্ষক প্রকল্পে পীরগাছা উপজেলার নয় ইউনিয়নে তিন হাজার পাট চাষির মাঝে এক কেজি পাট বীজ, তিন কেজি টিএসপি, ছয় কেজি ইউরিয়া ও তিন কেজি এমওপি সার বরাদ্ধ ছিল। এর মধ্যে ২০ জন চাষীকে পাট উৎপাদন প্রদর্শনী প্লট দেয়া হয়েছে। কিন্তু এসব বরাদ্ধকৃত উপকরণ কৃষকদের মাঝে নামমাত্র বিতরণ করে অবশিষ্ঠ উপকরণ উপ-সহকারি পাট উন্নয়ন কর্মকর্তা পরিতোষ রায় গোপনে বিক্রয় করে হাতিয়ে নেন মোটা অংকের টাকা। গত রোববার(১৭ জুলাই) উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের ঘুরে দেখা গেল ভিন্ন চিত্র, তাম্বুলপুর ইউনিয়নের ঘগোয়া গ্রামের মোকতার আলীর নামে একটি পাট উৎপাদন প্রদর্শণী প্লট থাকলেও সেই জমিতে ধান গাছের চারা দেখা যাচ্ছে।

বেশ কয়েকটি ইউনিয়ন ঘুরে পাট চাষীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, পাট বীজ পেলেও আমরা কোন সার পাইনি। এমনকি সাইনবোর্ডও আমাদের দেয়া হয়নি। এ বিষয়ে ওই পাট কর্মকর্তার উপজেলা অফিসে গিয়ে পাট চাষিদের তালিকাসহ তথ্য চাইলে তিনি তা দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, পাট চাষীদের তালিকাসহ কোন তথ্য আমার নিকট নেই, সব জেলা অফিসে আছে। উপজেলায় ৯ ইউনিয়নে ২০ জন চাষীকে পাট উৎপাদন প্রদর্শণী প্লট দেয়া হয়। পাট উৎপাদন প্রদর্শণী প্লট এর ১০ টি সাইনবোর্ড তার অফিসে রয়েছে। এছাড়া তার অফিসে এখনো চাষীদের নামে বরাদ্ধকৃত সারও দেখা যায়।

ছাওলা ইউনিয়নের গাবুড়ার চর গ্রামের আকবার আলী বলেন, প্রতি বছর পাট চাষ করি। সরকার কৃষকদের জন্য পাট বীজ ও সার দিলেও আমরা তা পাইনা। সরকারের লাখ লাখ টাকা ব্যয় হলেও আমরা উপকৃত হই না। পাট উন্নয়ন কর্মকর্তা পরিতোষ রায়ের তৈরী করা ওই তালিকায় তিন হাজার কৃষকের নাম থাকলেও বেশির ভাগ কৃষকই এসব প্রণোদনা থেকে বঞ্চিত হয়। সূত্রে জানা গেছে, পাট উন্নয়ন কর্মকর্তা পরিতোষ রায় প্রতি বছর একই তালিকা রদবদল করে পাট চাষিদের জন্য বরাদ্দকৃত বীজ-সার বিতরণ না করে কালোবাজারে বিক্রি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। দীর্ঘদিন একটি কক্ষ ভাড়া নিয়ে অফিস হিসেবে ব্যবহার করছেন তিনি। অফিস চলে অনেকটা লোকচক্ষুর আড়ালে। থাকেন জেলা শহরে। নিয়মিত অফিসেও আসেন না।

অভিযোগের বিষয়ে উপসহকারী পাট উন্নয়ন কর্মকর্তা পরিতোষ রায় বলেন, কোনো অনিয়ম করা হয়নি। তবে তিনি স্বীকার করে বলেন, তিন হাজার কৃষকের তালিকা করা হলেও সবাইকে উপকরণ দেওয়া সম্ভব হয়নি। জেলা পাট উন্নয়ন কর্মকর্তা মাহবুব আলম বলেন কোন ভূমিহীনকে পাট চাষের প্রশিক্ষন দেয়ার প্রশ্নই উঠে না । সার বিতরনের বিষয়ে খোজ নিয়ে ব্যাবস্থা নেয়া হবে । তিনি আরো বলেন কাজ করলে অনিয়ম হবে ।

Previous articleকুয়াকাটা প্রেসক্লাবে পূর্নাঙ্গ কমিটি গঠন, বিপ্লব সভাপতি ও মিরন সাধারণ সম্পাদক
Next articleনোয়াখালীতে কিশোরীকে ধর্ষণ, ৭০ হাজার টাকায় দফারফা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।