প্রতীকী ছবি

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মো: মোতালেব মিয়া (৪৫) নবম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলেছেন। পরে বিভিন্ন জায়গায় নিয়ে একাধিকবার দৈহিক মেলামেশা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। অতপর তার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা করেছে ওই শিক্ষার্থীর বাবা।

শুক্রবার সকালে ওই শিক্ষার্থীকে পুলিশ ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য কুড়িগ্রাম আদালতে প্রেরণ করে। এর আগে বৃহস্পতিবার রাতে শিক্ষার্থীর বাবা থানায় মামলা করেন।

মোতালেব মিয়া উপজেলার নাওডাঙ্গা ইউনিয়নের গোরকমণ্ডল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক এবং একই ইউনিয়নের নাওডাঙ্গা গ্রামের মৃত চাঁদ মিয়ার ছেলে।

আর ঘটনাটি উপজেলার নাওডাঙ্গা ইউনিয়নের গোরকমণ্ডল গ্রামে ঘটে। শিক্ষক কর্তৃক মাদরাসাশিক্ষার্থীকে ধর্ষণের ঘটনায় বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী বৃহস্পতিবার সকালে গোরকমণ্ডল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে অভিযুক্ত শিক্ষকের শাস্তির দাবি জানায়।

গোরকমণ্ডল গ্রামের বাসিন্দা নুর হোসেন, ঝান্টু মিয়া ও মোশারফ হোসেন জানান, সহকারী শিক্ষক মোতালেব মিয়া নবম শ্রেণির ওই শিক্ষার্থীর সাথে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে তোলে। একপর্যায়ে ওই শিক্ষার্থীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন জায়গায় নিয়ে গিয়ে একাধিকবার দৈহিক মেলামেশা করে। তাদের প্রেমের সর্ম্পকের কথা জানাজানি হলে ওই শিক্ষার্থী মোতালেবকে বিয়ের জন্য চাপ দেন। উপায়ন্তর না দেখে মোতালেব বুধবার রাতে মেয়ের বাড়িতে লোকজন নিয়ে গিয়ে সালিশী বৈঠকের মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা চালান। কিন্তু সমাধানের চেষ্টা ব্যর্থ হলে শিক্ষার্থীর বাবা বৃহস্পতিবার রাতে ফুলবাড়ী থানায় মামলা করেন।

গ্রাম পুলিশ আব্দুল করিম বলেন, মেয়েটির সরলতার সুযোগে ওই শিক্ষক তার সর্বনাশ করে। প্রভাবশালী মহল দিয়ে সমাধানের চেষ্টা করলেও শেষ পর্যন্ত পারেনি। পরে মেয়ের বাবা ফুলবাড়ী থানায় মামলা করে।

গোরকমণ্ডল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আইয়ুব আলী জানান, এ ঘটনায় অভিভাবক ও এলাকাবাসী বিদ্যালয়ে এসে তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করে। সহকারী শিক্ষক অসুস্থ থাকায় ২৪ আগস্ট থেকে মেডিক্যাল ছুটিতে আছেন। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

উপজেলার ভারপ্রাপ্ত প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আশরাফুজ্জামান জানান, বিষয়টি শুনেছি। তার বিরুদ্ধে নারী কেলেঙ্কারির ঘটনা হলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) ফজলুর রহমান জানান, শিক্ষার্থীর বাবা বৃহস্পতিবার রাতে মামলা করেন। মেয়েটিকে মেডিক্যাল পরীক্ষার জন্য শুক্রবার সকালে কুড়িগ্রাম আদালতে পাঠানো হয়েছে। সেই সাথে আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

Previous articleকলাপাড়ায় আন্ত:জেলা মোটরসাইকেল চোর চক্রের ৪ সদস্য গ্রেফতার
Next articleরংপুর সিটিতে ৫৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ৫-১২ বছরের শিশুদের মাঝে করোনার টিকা দেওয়া শুরু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।