আবু বক্কর সিদ্দিক: গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার কিশামত হলদিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে নিরাপত্তাকর্মী পদে নিয়োগ পেতে ব্যাপক জালিয়াতির মাধ্যমে প্রকৃত তথ্য গোপন করেছেন নিয়োগপ্রাপ্ত সুজা মিয়।

জানা যায়, সম্প্রতি উক্ত বিদ্যালয়ে নিরাপত্তাকর্মী (নৈশ্যপ্রহরী), অফিস সহায়ক (পিয়ন) ও আয়া পদে নিয়োগ সম্পন্ন করেন কর্তৃপক্ষ। এ সব নিয়োগের মধ্যে নিরাপত্তাকর্মী পদে নিয়োগপ্রাপ্ত হন কথিত শফিকুল ইসলাম নামে জনৈক সুজা মিয়া। সুজা মিয়া ধোপাডাঙ্গা ইউনিয়নের দক্ষিণ ধোপাডাঙ্গা দালাল পাড়া গ্রামের নবি বকস সরকার-জামিনা বেগম দম্পত্তির ছেলে। যার জাতীয় পরিচয়পত্র নং- ৩২১৯১৩৭০০৩৭৬৯, ভোটার নং- ৫২৯, জন্ম তারিখ- ০২-০৪-১৯৮৫ অনুসারে বয়স ৩৭ বছর ৫ মাস। তিনি ২০০৬ সালে পার্শ্ববর্তী উত্তর রাজিবপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মানবিক বিভাগে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে অকৃতকার্য হন। যার রেজি: নং- ৭৫৫৬৮২, শিক্ষাবর্ষ- ২০০৪-০৫, রোল নং- ৫৫২৪৪৮ অনুযায়ী তার জন্ম তারিখ- ২০-০৬-১৯৯০। তিনি শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্র, নাগরিকত্ব সনদসহ বিভিন্ন কাগজপত্র জালিয়াতিমূলক সৃজন করে রহস্যজনকভাবে উক্ত বিদ্যালয়ে নিরাপত্তাকর্মী পদে শফিকুল ইসলাম নামে নিয়োগপ্রাপ্ত হয়েছেন। তার সৃজনকৃত জন্ম নিবন্ধন নং- ১৯৯৭৩২১৯১৩৭১০৫৯৭০, জন্ম তারিখ- ০১-০২- ১৯৯৭, নিবন্ধন ও সনদ প্রদানের তারিখ ০৮-১১-২০১৫। এতে উল্লেখ নেই সন্তানের ক্রম। এ ব্যাপারে সুজা মিয়ার সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি।

ইউপি চেয়ারম্যান মোখলেছুর রহমান মন্ডল ও সচিব আব্দুল কাদেরের সঙ্গে কথা হলে তাঁরা পৃথক পৃথকভাবে জানান, এ জন্ম নিবন্ধন এডিট করে কপি নিয়ে গেছেন সুজা মিয়া নামে কথিত শফিকুল ইসলাম।

বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোখলেছুর রহমান রাজু (ধোপাডাঙ্গা ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান) ও প্রধান শিক্ষক- আশরাফুল ইসলাম জানান, প্রকৃত তথ্য গোপন করে জালিয়াতি মূলক ভূল তথ্যে যদি কেউ নিয়োগ পেয়ে থাকে তাহলে তার বিরুদ্ধে চাকরিচ্যূতসহ অন্যান্য ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Previous articleজয়পুরহাটে ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অভিযান, ৪ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা
Next articleসুন্দরগঞ্জে রাস্তা সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।