বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মুলাদীতে হতদরিদ্রদের ভিজিডির তালিকায় নাম উঠাতে স্বজনপ্রীতি ও টাকা নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে ভিজিডির তালিকা করতে জনপ্রতি ৫ থেকে ৭ হাজার টাকা নেওয়া হচ্ছে। কেউ টাকা দিতে না পারলে প্রাথমিক ভাবে তাদের বাদ দিয়ে তালিকা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

ইউনিয়ন চেয়ারম্যান, মেম্বাররা অফিস খরচের নাম করে হতদরিদ্র পরিবারগুলোর কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। এছাড়া তালিকা করতে স্বজনপ্রীতি, অনিয়ম ও দূর্ণীতির অভিযোগ রয়েছে। তবে ইউনিয়ন চেয়ারম্যানরা ভিজিডির তালিকা করতে টাকা নেওয়া কিংবা অনিয়মের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে জানা গেছে, মুলাদী উপজেলা এবছর ২ হাজার ৫৬০ জন সুবিধাভোগীকে ভিজিডির চাল দেওয়া হবে। যারা এই তালিকা অর্ন্তভুক্ত হবেন, তারা আগামী ২ বছর প্রতিমাসে ৩০ কেজি করে চাল পাবেন। এর মধ্যে সফিপুর ইউনিয়নে ৫৬৩, বাটামারা ইউনিয়নে ৩৭৯, নাজিরপুর ইউনিয়নে ৩৬১, চরকালেখান ইউনিয়নে ৩০৯, গাছুয়া ইউনিয়নে ২৭৯, মুলাদী সদর ইউনিয়নে ৩৩৮ এবং কাজিরচর ইউনিয়নে ৩৩১জন হতদরিদ্র নারী ভিজিডির সুবিধা পাওয়া কথা রয়েছে।

প্রতি ইউনিয়নে তালিকা করার জন্য উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে চেয়ারম্যানের কাছে তালিকা চাওয়া হয়েছে। মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা জানান, নিয়ম অনুযায়ী ইউনিয়ন চেয়ারম্যানরা তাঁর পরিষদের সদস্যদের দিয়ে এলাকা ভিত্তিক দরিদ্র ও অসহায় নারীদের তালিকা করবেন। সেই তালিকা অনুযায়ী পরবর্তীতে তাদের সুবিধা দেওয়া হবে। ইউনিয়ন চেয়ারম্যানদের তালিকার বাইরে কোন নারীকে ভিজিডির সুবিধা দেওয়ার সুযোগ নেই। ইউনিয়ন চেয়ারম্যান- মেম্বাররা তালিকা করতে হতদরিদ্র নারীদের কাছ থেকে ৫ থেকে ৭ হাজার টাকা নিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী পরিবারগুলো। যারা টাকা দিতে পারছেন না তার ভিজিডি পাওয়ার যোগ্য হলেও বাদ দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া চেয়ারম্যান-মেম্বারদের আত্মীয়, কাছের লোক, নির্বাচনী কর্মীদের ভিজিডির তালিকায় অগ্রাধিকার দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। চেয়ারম্যান- মেম্বারদের টাকা দিতে না পেরে অনেক দরিদ্র পরিবার ভিজিডির তালিকাভুক্তি থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। এসব পরিবারগুলো ভবিষ্যতে আর কোনো সরকারি সহায়তা পাবেন কিনা এনিয়ে সন্দেহ দেখা দিয়েছে।

গাছুয়া ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর গ্রামের শেফালী বেগম বলেন, ভিজিডির তালিকা অনলাইন করার জন্য চেয়ারম্যানের কথা বলে ৫ হাজার টাকা দাবী করা হয়েছে। ওই টাকা দিতে না পারায় এবছর থেকে আর চাল পাওয়া যাবে না বলে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। সরকারি সহায়তা না পেলে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে কষ্টে দিন কাটাতে হবে। মুলাদী সদর ইউনিয়নের চরলক্ষ্মীপুর গ্রামের হতদরিদ্র নারী হেলেনূর বেগম জানান, ইউনিয়নে ভিজিডির তালিকার করার জন্য অফিস খরচের জন্য ৬ হাজার টাকা চেয়েছেন। টাকা না দিলে ভিজিডির তালিকায় অনলাইনে অর্ন্তভুক্ত হবে না। আর এই তালিকায় নাম না থাকলে আগামী ২বছর চাল পাওয়া যাবে না। টাকা না থাকায় তালিকা থেকে আমার নাম বাদ দেওয়া হয়েছে। কাজিরচর ইউনিয়নের বড়ইয়া কাজিরচর গ্রামের মানছুরা বেগম বলেন, ভিজিটির তালিকায় নাম উঠানোর জন্য চেয়ারম্যানের লোকজন ৬ হাজার টাকা চেয়েছেন। কিন্তু টাকা না থাকায় ওই তালিকা থেকে আমাকে বাদ দেওয়া হয়েছে। যারা টাকা দিয়েছেন তারাই তালিকাভুক্ত হয়েছেন।

গাছুয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা মো. মোসলেম সরদার বলেন, যারা স্বচ্ছল এবং চেয়ারম্যান মেম্বারদের আত্মীয় তারা ভিজিডির তালিকাভুক্ত হয়েছেন। অনেকে টাকা দিয়ে তালিকাভুক্ত হয়েছেন। চুড়ান্ত তালিকা প্রকাশের পর তদন্ত করলেই আসল রহস্য বেড়িয়ে আসবে। নাজিরপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মো. মোস্তাফিজুর রহমান বাদল খান বলেন, ইউনিয়ন পরিষদে সভা করে সদস্যদের তালিকা করার জন্য নির্দেশণা দেওয়া হয়েছে। সেখানে কোনো দরিদ্র পরিবারের কাছ থেকে টাকা পয়সা নেওয়ার সুযোগ নেই। এই ধরণের অভিযোগ পেলে সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্যর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে এবং দরিদ্র নারীর টাকা ফেরৎ দেওয়া হবে।

গাছুয়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মো. জসিম উদ্দীন বেপারী বলেন, ভিজিডির জন্য ইউনিয়ন থেকে মাত্র ২৭৯ জন নারীকে সুবিধা দেওয়া যাবে। যেসব নারীরা সুবিধা পায়নি তারা টাকা নেওয়ার মিথ্যা অভিযোগ করতে পারেন। ইউনিয়নের মেম্বাররা কারও কাছ থেকে কোনো টাকা নিয়েছেন বলে জানা নেই। মুলাদী সদর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মো. কামরুল আহসান বলেন, চলতি বছর ভিজিডির তালিকা করতে অনিয়ম কিংবা টাকা নেওয়ার কোন সুযোগ নাই। কোনো পরিবার এই ধরনের অভিযোগ করেননি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বকুল চন্দ্র কবিরাজ বলেন, হতদরিদ্রদের পরিবারের অভিযোগ তদন্ত করে দেখা হবে।

Previous articleরংপুর সিটি নির্বাচনে ১৪৩ প্রার্থীর মনোনয়ন সংগ্রহ
Next articleজামিন পেয়ে বাড়ি ফেরার পথে হত্যা মামলার সন্দেহভাজন আসামির মৃত্যু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।