বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২৪
Homeসারাবাংলাকলাপাড়ায় মাঠ জুড়ে কাঁচা-পাকা সোনালী ধান, কৃষদের চোখে মুখে সোনালী স্বপ্ন পূরণের...

কলাপাড়ায় মাঠ জুড়ে কাঁচা-পাকা সোনালী ধান, কৃষদের চোখে মুখে সোনালী স্বপ্ন পূরণের আশা

এস কে রঞ্জন: পটুয়াখালীর বলাপাড়া উপজেলায় মাঠ জুড়ে দেখা যায় সোনালী ধানের দোল। কৃষকরা পাকা ধান ঘরে তুলতে প্রস্তুতি নিচ্ছে। কৃষক পরিবারের চোখে মুখে লেগে আছে সোনালী স্বপ্ন পূরনের আশা। আগামী ২০দিন পরে গ্রামীণ জনপদে শুরু হবে ধান কাটা, মাড়াই ও নতুন ধান ঘরে তোলার উৎসব।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়,গোটা উপজেলায় দু’টি পৌরসভা ও ১২টি ইউনিয়নে কৃষক পরিবার রয়েছে ৩৫৫০০। মোট জমি ৪৯২১০ হেক্টর। এ বছর ৩১২৪০ হেক্টরে আবাদ হয়েছে। এর মধ্যে ২২৫৫০ হেক্টরে মৌসুমি উফশী রোপা আমন ও ৮১৫০ হেক্টর জমিতে মৌসুমি স্থানীয় রোপা আমন ধানের চাষ করেছেন কৃষকরা। এছাড়া সবজি চাষ করা হয়েছে ৫৪০ হেক্টর জমিতে। তবে ঘূর্নিঝড় সিত্রাংয়ে কারনে ধানের আংশিক ক্ষতিগ্রস্থ জমির পরিমান ৯২১ হেক্টর। আংশিক ক্ষতি ৫% হারে সম্পুর্ন ক্ষতির পরিমান ৪৬.০৫ হেক্টর।

এছাড়া সবজি ফসলে ৫৪ হেক্টর আংশিক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ২০% হারে সম্পুর্ন ক্ষতি ১০.০৮ হেক্টর বলে জানা গেছে। বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, মাঠের পর মাঠ জুড়ে কাঁচা-পাকা ধানের ফসলি ক্ষেত যেন দিগন্ত ছুঁয়ে গেছে। কৃষকের ঘরে ঘরে শুরু হবে ধান তোলার পালা। ধান কাটার জন্য নতুন কাস্তে তৈরী করতে আছে অনেকে। কেউ আবার পুরাতন কাস্তে মেরামত করতে দিচ্ছে কামারের দোকানে। কেউ কেউ মেশিন দিয়ে ধান কাটার জন্য প্রস্ততি নিযে রেখেছে। অনেকেই ধান রাখার জন্য বাড়ির আঙ্গিনা সুন্দর ভাবে পারিস্কার পরিচ্ছন্ন করেছেন। গোটা উপজেলার কৃষকদের যেন দম ফেলার ফুরসত নেই। তবে ফরিয়া বা মধ্যস্বত্বভোগীদের আনাগোনা আর তৎপরতায় ফসলের কাঙ্খিত মূল্য পাওয়া নিয়ে কৃষকদের মধ্যে রয়েছে শঙ্কা।

কৃষক সুলতান গাজী জানান, গত বছর প্রতি ২৬৬ শতক জমি চাষাবাদ থেকে শুরু করে মাড়াই পর্যন্ত খরচ হতো ৪৫ থেকে ৫০ হাজার টাকা। এ বছর একই জমিতে ৬০ থেকে ৭০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। এছাড়া বাজারের দ্রব্যমুল্যের উর্ধ্বগতির কারনে ৭শ থেকে ৮শ টাকা মজুরিতেও শ্রমিক পাচ্ছেনা। উপজেলার টিয়াখালী ইউনিয়নের নাচনাপাড়া গ্রামের কৃষক রুহুল মৃধা বলেন, ঘুর্নিঝড় সিত্রাংয়ে ক্ষেতের তেমন ক্ষতি করতে পারেনি। সার-ঔষধ প্রয়োগ ও ক্ষেতের নিয়মিত পরিচর্যা করে এ পর্যন্ত নিয়ে আসা হয়েছে। তবে কোন প্রাকৃতিক কোন দুর্যোগ না হলে। ফসল ভালো হবে।

নবীপুর গ্রামের কৃষক সোনা মিয়া বলেন, প্রথম দিকে বৃষ্টি না থাকায় জমিতে চাষ করতে একটু দেরি হয়েছে। তার পরও এ বছর ক্ষেতের ফসল ভাল। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এমআরএম সাইফুল্লাহ বলেন, উপজেলায় ঘুর্নিঝড় সিত্রাংয়ে কৃষকদের আমন ধানের ক্ষেতে তেমন কোন ক্ষতি হয়নি। তবে আবহাওয়া অনুকলে থাকলে কৃষকরা কাঙ্খিত ক্ষেতের ফসল সুন্দর ভাবে কাটতে পারবে বলে তিনি জানান।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments