মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২৪
Homeসারাবাংলাপীরগাছায় বকেয়া পরিশোধ না করায় শিক্ষার্থীকে পরীক্ষা দিতে দেননি শিক্ষক

পীরগাছায় বকেয়া পরিশোধ না করায় শিক্ষার্থীকে পরীক্ষা দিতে দেননি শিক্ষক

ফজলুর রহমান: রংপুরের পীরগাছায় বিদ্যালয়ের বকেয়া ফি পরিশোধে ব্যর্থ শিক্ষার্থীকে পরীক্ষা দিতে না দিয়ে পরীক্ষার হল থেকে বের করে দেন সহকারি শিক্ষক সায়মাতুল জান্নাত। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় অভিভাবকের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। মঙ্গলবার (১৩ জুন) সকাল সাড়ে ১০ ঘটিকায় উপজেলার ছাওলা ইউনিয়নের শিবদেব চর দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনাটি ঘটে।

এলাকাবাসী ও অভিভাবক সুত্রে জানা যায়, উপজেলার ছাওলা ইউনিয়নের শিবদেবচর গ্রামের দিনমজুর অবির উদ্দিনের তিন মেয়ে এক ছেলে। তাদের মধ্যে ছোট মেয়ে সাবিনা আক্তার। সাবিনা আক্তার শিবদেবচর দ্বি-মূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর(ভোকেশনাল শাখার) শিক্ষার্থী, রোল নং-০৩। চলতি মাসের ৭ তারিখে তার অর্ধবার্ষিক পরীক্ষা শুরু হয়। পরীক্ষা দিতে সাবিনা আক্তারকে ৯শ ৫০ টাকা পরিশোধ করতে হবে বলে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জানিয়ে দেয়। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের দাবি করা টাকার মধ্যে ওই শিক্ষার্থী ৩শ ৫০ টাকা পরিশোধ করেন। বকেয়া টাকা ২/৩ দিনের মধ্যে দিবেন বলে জানান। এরপর ওই শিক্ষার্থী গত মঙ্গলবার (১৩ জুন) সিভিল কন্সট্রাকশন এন্ড সিফটি-২ বিষয়ের পরীক্ষা দেওয়ার জন্য পরীক্ষার হলে প্রবেশ করে। পরীক্ষা শুরুর ১০ মিনিট এর মধ্যে দায়িত্বরত ভোকেশনাল শাখার সহকারি শিক্ষক সায়মাতুল জান্নাত বকেয়া ফি পরিশোধে ব্যর্থ শিক্ষার্থীর নিকট থেকে পরীক্ষার খাতা কেড়ে নেন। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অনুপস্থিত থাকায় ওই শিক্ষার্থী পরে সহকারি প্রধান শিক্ষক আবু বক্কর ছিদ্দিক এর স্বরনাপন্ন হন।

সহকারি প্রধান শিক্ষক আবু বক্কর ছিদ্দিক এর কথা বলায় পরীক্ষার খাতা দিলেও ওই সহকারি শিক্ষক সায়মাতুল জান্নাত আবারো ওই শিক্ষার্থীর খাতা নিয়ে তাকে পরীক্ষার হল থেকে বের করেন দেন। এরপর ওই শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিতে না পেরে বাড়িতে চলে যান। বকেয়া পরিশোধে ব্যর্থ শিক্ষার্থীকে পরীক্ষা দিতে না দেওয়ায় এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। ওই শিক্ষার্থীর অভিভাবক এর সাথে মোবাইলে কথা হলে তিনি জানান, আমরা গরীব, দিনমজুরী করে সংসার চালাই। বিদ্যালয়ের বকেয়া পরিশোধ করতে না পারায় শিক্ষক আমার মেয়েকে পরীক্ষা দিতে দেয়নি। স্থানীয় আব্দুর রাজ্জাক, মোস্তফাসহ আরো অনেকে বলেন, প্রতিষ্ঠানের অধিকাংশ শিক্ষার্থী চরাঞ্চল কেন্দ্রিক। তাই বকেয়া আদায়ে শিক্ষকের এমন কঠোর হওয়াটা মোটেই ঠিক নয়।

ছাওলা ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুর রাজ্জাক এর সাথে কথা হলে তিনি জানান, বিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থীর অভিভাবক আছেন যারা দিনমজুরী করে সংসার চালায়। বকেয়া টাকা আদায়ে শিক্ষকদের এমন কঠোর হওয়াটা ঠিক হয়নি। অভিযুক্ত সহকারি শিক্ষক সায়মাতুল জান্নাত পরীক্ষার খাতা নেওয়ার কথা স্বীকার করলেও তিনি এ বিষয়ে আর কোন কথা বলতে রাজি হননি। বিষয়টি নিয়ে প্রধান শিক্ষকের রুমে সমাধানের চেষ্টাকালে উপস্থিত সহকারি প্রধান শিক্ষক বলেন, ওই শিক্ষার্থী পরীক্ষা চলাকালীন আমার নিকট আসলে আমি তাকে পরীক্ষার হলে পাঠিয়ে দেই। এরপর আমি আর কিছু জানিনা।

শিবদেব চর দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লাল মিয়া বলেন, বিদ্যালয়ের পাওনা আদায়ের জন্য কোনো শিক্ষার্থীকে চাপ দেওয়া হয় না। তবে এটা সমান্য ভূল বোঝাবুঝির কারণে হয়েছে। এব্যাপারে ওই বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন এর সাথে মোবাইলে কথা কথা বলার চেষ্ঠা করে তাকে পাওয়া যায়নি।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments