অনিয়ম ও জালিয়াতির মাধ্যমে প্রাথমিকের ১৭৭ জনকে পদোন্নতির তথ্য ফাঁস

সদরুল আইন: অনিয়ম-জালিয়াতি করে দেশের বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১৭৭ জন শিক্ষককে পদোন্নতি দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

একটি সিন্ডিকেটের মাধ্যমে পরিচালিত এ অনিয়মের পুরো কাজের সঙ্গেই প্রাথমিক শিক্ষা অধিফতরের (ডিপিই) অধীনস্ত ঢাকা বিভাগীয় ও জেলা শিক্ষা অফিসের দায়িত্বপ্রাপ্ত দুই কর্মকর্তার সরাসরি জড়িত থাকার প্রমাণ মিলেছে।

অভিযোগের প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়ায় দুই কর্মকর্তাকে শাস্তিমূলক ওএসডি করে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন খোদ প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো: জাকির হোসেন।

সেই সাথে সারা দেশে প্রধান শিক্ষক পদে পদোন্নতি ও টাইমস্কেল এবং সহকারী শিক্ষকদের টাইমস্কেল প্রদানে এরকম দুর্নীতি ও অনিয়মের ঘটনা আছে কি না তা জানতে অধিদফতরকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

শুধু তাই নয়- এ জালিয়াত চক্রের বাকি হোতাদের চিহ্নিত করতে অনুসন্ধানে নেমেছে মন্ত্রণালয় ও অধিদফতর।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, তৎকালীন ঢাকা বিভাগীয় উপ-পরিচালক (চলতি দায়িত্ব) ও ঢাকা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১৭৭ শিক্ষককে টাইম স্কেল প্রদান করা হয়। এতে সরকারের কয়েক কোটি টাকা গচ্ছা গেছে।

বর্তমানে ঢাকা বিভাগীয় উপ-পরিচালক কার্যালয়ের সহকারি পরিচালক মোহাম্মদ আলী রেজা ও ঢাকা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আলেয়া ফেরদৌস সিন্ডিকেট করে এ টাইমস্কেল দিয়ে কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।

টাইমস্কেল বঞ্চিত কয়েকজন শিক্ষককের অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন প্রাথমিকভাবে খোঁজ খবর নিয়ে ঘটনার সত্যতা পান।

এরপর গত মঙ্গলবার অভিযুক্ত দুই কর্মকর্তাকে প্রত্যাহার করে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে মন্ত্রণালয়ের সচিবকে তিনি নির্দেশ দিয়েছেন।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব মো: আকরাম-আল-হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, অনিয়ম করে প্রধান শিক্ষকদের টাইম স্কেল দেওয়ার অভিযোগের প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়ার পর প্রতিমন্ত্রী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

অভিযুক্ত দুই কর্মকর্তাকে শাস্তিমূলক ওএসডি করে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি আরো বলেন, এ সিন্ডিকেটের সঙ্গে প্রাথমিকের আরও কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শিক্ষক জড়িত আছে কি না সে ব্যাপারে অনুসন্ধান করা হচ্ছে। কাউকে ছাড়া দেওয়া হবে না।

মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, মন্ত্রণালয়ের প্রশাসনিক গতিশীলতা ও সেবার মান বাড়াতে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের টাইমস্কেল প্রদানের ক্ষমতা প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের বিভাগীয় উপ-পরিচালকদের দেওয়া হয়েছিল।

এ সুযোগে ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয় ও ঢাকা জেলা শিক্ষা অফিস মিলে এ জালিয়াতি করলো।

তবে অভিযোগের কথা নাকচ করে দিয়ে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের ঢাকা বিভাগের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ আলী রেজা বলেন, টাইমস্কেল দেওয়ার ক্ষেত্রে নিয়মের কোনো ব্যত্যয় হয়নি।

সকল বিধি-বিধান মেনেই টাইম স্কেল দিয়েছি। মন্ত্রণালয়-অধিদফতর ব্যাখা চাইলে জবাব দিব। আমি মাত্র দুই মাস দায়িত্বে থাকাকালীন আগের ডিডির মতো টাইমস্কেল দিয়েছি। ঘুষ নেওয়ার অভিযোগটি সত্য নয় বলেও দাবি করেন তিনি।

জানা গেছে, ২০১৩ সালে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকদের বেতন গ্রেড ছিল ১৩ ও প্রশিক্ষণবিহীনদের ১৪তম তথা তৃতীয় শ্রেণির অন্তর্ভুক্ত।

২০১৪ সালে প্রধান শিক্ষকদের পদ দ্বিতীয় শ্রেণিতে উন্নীত করে প্রশিক্ষণপ্রাপ্তদের বেতন গ্রেড ১১তম ও প্রশিক্ষণবিহীনদের ১২ তম নির্ধারণ করা হয়।

২০১৫ সালের ১৫ ডিসেম্বর সিলেকশন গ্রেড ও উচ্চতর স্কেল (টাইমস্কেল) বা কোনো স্কেলের সর্বোচ্চ সীমায় পৌঁছানোর পর এক বছর পরে পরবর্তী উচ্চতর বা টাইমস্কেল প্রদান সংক্রান্ত বিধান বিলুপ্তি করা হয়েছে।

নতুন করে জারি করা বিধানে বলা হয়, কোন স্থায়ী কর্মচারী পদোন্নতি ব্যতিরেকে একই পদে ১০ বছর পূর্তিতে এবং চাকরি সন্তোষজনক হওয়া সাপেক্ষে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ১১তম বছরে পরবর্তী উচ্চতর গ্রেডে বেতন প্রাপ্য হবেন।

স্থায়ী কর্মচারী চাকরির ১০ বছর পূর্তিতে উচ্চতর গ্রেডে বেতন প্রাপ্তির পরবর্তী ৬ বছরে পদোন্নতি প্রাপ্ত না হলে ৭ম বছরে চাকরি সন্তোষজনক হওয়া সাপেক্ষে স্বয়ংক্রিয়ভাবে পরবর্তী উচ্চতর গ্রেডে বেতন প্রাপ্ত হবেন। চতুর্থ গ্রেড পর্যন্ত এই ধারা প্রযোজ্য হবে।

এ ছাড়া দ্বিতীয় শ্রেণির কর্মকর্তাদের টাইমস্কেল প্রদানের জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ২০১১ সালের ২৭ জানুয়ারি জারি করা আদেশে বলা হয়, প্রশাসনিক মন্ত্রণালয়ে অতিরিক্ত সচিব বা যুগ্ম সচিবের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের কমিটি গঠনের মাধ্যমে দিতে হবে।

কমিটিতে অর্থ ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের উপসচিব পর্যায়ের একজন কর্মকর্তা থাকতে হবে।

পরের বিধান অনুযায়ী, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের টাইম স্কেল প্রাপ্তির সুযোগ নেই। কারণ, ২০১৪ সালের ৯ মার্চ প্রধান শিক্ষকদের দ্বিতীয় শ্রেণিতে উন্নীত করার পর তাদের বেতন স্কেলের দুটি ধাপে উন্নীত করা হয়েছে।

একই গ্রেডে ৮ বছর চাকরির সময় অতিক্রান্ত না হওয়ায় নতুন টাইমস্কেল দেওয়ার সুযোগ নেই।

অথচ নীতিমালা লঙ্ঘন করে গত বছরের ১১ জুলাই দুটি আদেশে রাজবাড়ি জেলার সদর উপজেলার ২৮ জন, ২ জুলাই পৃথক আদেশে কিশোরগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার ১৯জন, ২৭ জুন মানিকগঞ্জের দৌলতপুর উপজেলার ২ জন ও কিশোরঞ্জের হোসেনপুর উপজেলার ১ জন, ১৪ জুলাই টাঙ্গাইলের কালিহাতি উপজেলার ৯ জন ও ঘাটাইল উপজেলার ১০ জন, ৪ জুলাই টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার ১৩ জন, ২৬জুন টাঙ্গাইলের সদর উপজেলার ২৯ জন ও সখিপুর উপজেলার ১২ জন, ২৫ জুন পৃথক আদেশে মানিকগঞ্জের ২২জন , ১১ জুলাই পৃথক আদেশে ঢাকার কেরানীগঞ্জের ১৩জন, টাঙ্গাইল সদর উপজেলার ১৯ জন প্রধান শিক্ষককে টাইমস্কেল প্রদান করা হয়েছে।

গত বছরের ৩১ জানুয়ারি মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত চিঠি দেয়া হয়। এ চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে রাজশাহী ও রংপুর বিভাগীয় উপ-পরিচালকরা এ বিষয়ে স্পষ্ট ব্যাখ্যা চেয়ে মন্ত্রণালয় চিঠি দেন। তাতে তারা উল্লেখ করেন, তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের টাইমস্কেল ও সিলেকশন গ্রেড প্রদান সংক্রান্ত কমিটির দ্বিতীয় শ্রেণির তথা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের টাইমস্কেল ও সিলেকশন গ্রেড প্রদান অথবা তৃতীয় ও দ্বিতীয় শ্রেণির পদে কর্মরত থাকাকালীন কর্মকাল একত্রে মিলে টাইমস্কেল ও সিলেকশন গ্রেড দিতে পারবেন কি না।

এই চিঠির পরিপ্রেক্ষিত টনক নড়ে মন্ত্রণালয়ের। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের টাইমস্কেল ও সিলেকশন গ্রেড প্রদানের বিষয়ে গত ২৭ মে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তৎকালীন অতিরিক্ত সচিব মো. বদরুল হাসানের সভাপতিত্বে সংশ্লিষ্টদের নিয়ে একটি সভা করে উপ-পরিচালকদের প্রধান শিক্ষকদের টাইমস্কেল দেয়ার ক্ষমতা স্থগিত করেন।

একই সঙ্গে আগের চিঠির পরে কোন প্রধান শিক্ষককে টাইমস্কেল দিলে সে আদেশ স্থগিত করার নির্দেশনা দিয়ে চিঠি দেয়া হয়।

Previous articleবিএনপির মিছিলে পুলিশের লাঠিচার্জ, রিজভীসহ আহত অনেক
Next articleবিটেকে বিতর্কিত ব্যানারে শহীদ দিবস পালন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।