মুখলেসুর রাহমান সুইট:  কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) দফায় দফায় সংঘর্ষের মধ্য দিয়ে পালিত হয়েছে মহান বিজয় দিবস।

মুক্ত বাংলায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদনের পর শিক্ষক সমিতি, কর্মকর্তা সমিতির শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন।এর পরেই সঞ্চালক মাইকে অফিসার্স এসোসিয়েশনের নাম ঘোষণা করতে গেলে কর্মকর্তা সমিতি বাধা প্রদান করে। অফিসার্স এসোসিয়েশন মুক্ত বাংলায় শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করতে উঠলে এসময় দুই কর্মকর্তা জুতা পায়ে বেদীতে উঠে দেখা যায়।বিষয়টি সকলের নজরে আসলে কর্মকর্তা সমিতির কর্মকর্তারা প্রতিবাদ জানিয়ে দফায় দফায় সংঘর্ষ জড়িয়ে পড়ে অফির্সাস এসোসিয়েশনের সাথে।

এতে উভয় পক্ষের মধ্যে হাতাহাতিসহ লাঠি দিয়ে প্রতিপক্ষকে আক্রমণ করতেও দেখা যায়। এসময় বেদীতে থাকা শ্রদ্ধাঞ্জলী ভাঙচুর করে তারা।কর্মকর্তা সমিতি থেকে বেরিয়ে এসে নতুন গড়া অফিসার্স এসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে কয়েকজন কর্মকর্তা ফুল দিতে গেলে কর্মকর্তা সমিতির সদস্যরা বাধা দেন।পরে কর্মকর্তা সমিতির ধাওয়া খেয়ে ক্যাম্পাস ত্যাগ করে অফিসার্স এসোসিয়েশনের কর্মকর্তারা।

বুধবার (১৬ ডিসেম্বর) পৌনে ১১টার দিকে মুক্ত বাংলা বেদীতে এসব ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে পুলিশ প্রশাসন চেষ্টা করেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিতে ব্যর্ধ হলে পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ শাহিনুর রহমান ও ছাত্রলীগের চেষ্টায় পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হয়।
বেলা ১১ টায় মুক্ত বাংলার বেদীতে বিশৃঙ্খলার মধ্য দিয়ে পুষ্পর্ঘ্য অর্পণ করেন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন, শিক্ষক সমিতি, বঙ্গবন্ধু পরিষদ, শাপলা ফোরাম, বিভিন্ন হল, অনুষদ, বিভাগ, কর্মকর্তা সমিতি, ছাত্রলীগ, ছাত্র মৈত্রী, ছাত্র ইউনিয়নসহ বিভিন্ন সাংবাদিক, পেশাজীবি, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন।

এধরনের ন্যাক্কারজনক ঘটনার সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করেছেন ছাত্র ইউনিয়ন, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় সংসদ ও ছাত্র মৈত্রী ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা।আজ প্রগতিশীল ছাত্রসংগঠন দুটির দপ্তর সম্পাদক স্বাক্ষরিত আলাদা আলাদা প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুস সালাম বলেন, এ ঘটনা যারাই করুক খুবই দুঃখজনক। এ রকম প্রতিহিংসাপরায়ণ মনোভাব নিয়ে শহীদ বেদীতে ফুল দিতে না আসাই শ্রেয়।