জয়নাল আবেদীন: রংপুর নগরীর নর্দান প্রাইভেট মেডিক্যাল কলেজের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কলেজ কর্তৃপক্ষের প্রতারণার অভিযোগে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেছেন শিক্ষার্থীরা।নগরীর ধাপ বুড়িরহাট রোড এলাকায় নর্দান প্রাইভেট মেডিক্যাল কলেজে অবস্থিত।এ ঘটনার প্রতিবাদে ও মাইগ্রেশনের দাবিতে দুপুরে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেছেন শিক্ষার্থীরা।শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, নর্দান মেডিক্যাল কলেজে নেপাল থেকে আসা ৪০ জন শিক্ষার্থী সহ সাধারণ শিক্ষার্থীদের কোন আবাসিক ব্যবস্থা নেই, শিক্ষক নেই, বিএমডিসি এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনও অনুমোদন নেই। তার পরেও প্রায় তিন শতাধিক শিক্ষার্থী এখানে ভর্তি হয়ে লেখাপড়া করে আসছেন। কর্তৃপক্ষ বার বার আশ্বাস দেওয়ার পরেও কোর্স পরিচালনায় কোনও অনুমোদন আনতে পারেনি। যারা শেষ বর্ষ পাশ করেছেন তাদের ইন্টার্নশিপের কোনও ব্যবস্থা করতে পারেনি কলেজ কর্তৃপক্ষ। ধার করা রোগী ও শিক্ষক দিয়ে ক্লাস করিয়ে তাদের প্রতারণার মাধ্যমে শিক্ষা জীবন ধ্বংস করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন শিক্ষার্থীরা। নেপাল থেকে কলেজটিতে পড়তে আসা সারমা ও নারমিন অভিযোগ করেন, তারা পড়াশোনা করতে এসেছিলেন। তাদের অনেক ধরনের আশ্বাস দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তারা এখানে লেখাপড়ার নামে প্রতারণার শিকার হয়েছেন। প্রতিষ্ঠানটিতে নেই প্রয়োজনীয় শিক্ষক, ধার করা শিক্ষক দিয়ে মাঝে মধ্যে ক্লাস নেওয়া হলেও ইন্টার্নশিপের কোনও ব্যবস্থা নেই। ফলে তাদের শিক্ষা জীবন ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। রবিবার রাতে কলেজের ভাড়া করা মেস থেকে বাসার মালিক তাদের বের করে দিয়েছেন বলেও অভিযোগ করেন তারা। এ অবস্থায় অন্য বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজে পড়ার সুযোগ দাবি করেন তারা।শিক্ষার্থীরা আরো অভিযোগ করেন, আমাদের বাবা-মা জমি বিক্রি করে বিপুল পরিমাণ টাকা দিয়ে এখানে ভর্তি করেছেন। কলেজ কর্তৃপক্ষ যে প্রতারক, তা আমরা জানতাম না। বিএমডিসি ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনও অনুমোদন নেই সেটাও আমাদের বলা হয়নি। এমন অবস্থায় আমাদের শিক্ষা জীবন রক্ষার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরাসরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তারা। শিক্ষার্থীরা বলছেন ,দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত তারা আন্দোলন চালিয়ে যাবে। মানববন্ধন সমাবেশে বক্তব্য দেন নেপালী শিক্ষার্থী রামেজ জেটাল,সংগীত সাহা এবং বাংলাদেশের শিক্ষার্থিী রওনক বলেন, এমন বিপদের সময় আমরা নেপালী শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়িয়েছি। তাদের সহায়তা করায় আমাদের কেও হুমকি দেয়া হয়েছে। নর্দান মেডিক্যাল কলেজের পরিচালক আফজাল হোসেন জানান, নেপালী শিক্ষার্থীদের আবাসিক হোস্টেল হিসেবে নুরুল ইসলামের চার তলা ভবনের দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ তলার ফ্ল্যাটভাড়া নেওয়া হয়।১১ মাসের ভাড়া বাকি থাকলেও কিছু টাকা পরিশোধ করে কলেজ কর্তৃপক্ষ। কিন্তু কলেজের ভাবমূর্তি নষ্ঠ করতে একটি অসাধু মহল পরিকল্পিতভাবে এই ঘটনাসাজিয়েছে।আবাসিক ভবন মালিক নরুল ইসলাম জানান, এই তিনটি ফ্লাটের মাসিক ভাড়া ৬৫ হাজার টাকা হিসেবে গত আট মাসের ভাড়া বকেয়া আছে। এ নিয়ে কলেজ কর্তৃপক্ষকে একাধিক বার অবগত করলেও তাদের কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। ফলে ব্যাংক ঋণের বোঝা থেকে বাঁচতে তিনি শিক্ষার্থীদের আগে থেকেই বাড়ি ছেড়ে দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছিলেন। রবিবার রাতে শিক্ষার্থীরা বাইরে গেলে ভবনের মূল গেটে তালা লাগিয়ে দেন তিনি।

Previous articleপাবনার সুজানগরে পিস্তল ও গুলিসহ আটক ১
Next articleঠাকুরগাঁওয়ে যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।