বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) মাস্টার দা সূর্যসেন হলের দুই আবাসিক শিক্ষার্থীকে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগের দুই নেতার বিরুদ্ধে।

রোববার দিবাগত রাত ২টা থেকে ৪টা পর্যন্ত তাদের শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করা হয় বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা।

অভিযুক্তরা হলেন, উইমেন অ্যান্ড জেন্ডার স্টাডিজ বিভাগের সিফাত উল্লাহ সিফাত এবং আধুনিক ভাষা শিক্ষা ইনস্টিটিউটের অধীনে ইংলিশ ফর স্পিকারস অব আদার ল্যাঙ্গুয়েজেস বিভাগের শিক্ষার্থী মাহমুদুর রহমান অর্পণ।

অভিযুক্তরা উভয়ে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়ের অনুসারী এবং হল ছাত্রলীগের ক্যান্ডিডেট ইমরান সাগরের সাথে রাজনীতি করেন বলে জানা গেছে।

ভুক্তভোগী দুই শিক্ষার্থী হলেন, সাবেক হল সংসদের সদস্য ও নৃবিজ্ঞান বিভাগের ২০১৭-১৮ সেশনের শিক্ষার্থী মো: আরিফুল ইসলাম এবং থিয়েটার অ্যান্ড পারফরম্যান্স স্টাডিজ বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী তরিকুল ইসলাম।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, তাদেরকে রাতভর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করা হয় এবং ‘হল থেকে বের না হয়ে গেলে তোদেরকে মেরে হলের টাংকির উপরে ফালাই রাখমু’ বলে হুমকি দেয় অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতারা।

ভুক্তভোগী আরিফুল ইসলাম বলেন, ‘পড়াশোনার চাপে প্রোগ্রামে না যাওয়ায় অনেকদিন থেকেই ছাত্রলীগের নেতারা আমাদের হল থেকে বের হওয়ার হুমকি দিয়ে আসছিল। আমি হল সংসদের সদস্য হওয়ায় বের করতে পারেনি। তাই গতকাল রাত ২টার দিকে আমাদেরকে ৩৫১ নম্বর রুমে ডেকে নিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং ওদের সাথে থাকা আরো কয়েকজন মিলে স্টাম্প, রড দিয়ে মারধর করে। আমরা এখন হলের বাইরে অবস্থান করছি এবং নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।’

ঘটনা সম্পর্কে জানতে অর্পণ ও সিফাতকে বারবার ফোন দেয়া হলে অর্পণের ফোন বন্ধ পাওয়া যায় এবং সিফাত ফোন রিসিভ করেননি।

ইমরান সাগরের মদদেই তাদের উপর রাতভর এমন অমানুষিক নির্যাতন চালানো হয়েছে বলেও অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা। অভিযোগের ব্যাপারে ইমরান সাগর বলেন, ‘আমি ঘটনাটি সকালে শুনেছি। আমার মনে হয়, এটা ওদের ব্যক্তিগত কোনো সমস্যা হতে পারে। হল ছাত্রলীগের সাথে এটার কোনো যোগসূত্র নেই। তাদের (ভুক্তভোগী) সাথে যদি মারধরের ঘটনা ঘটে থাকে তাহলে আমি মনে করি হল প্রশাসনের উচিত হবে তাদের (অভিযুক্তদের) বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা।’

অভিযোগের ব্যাপারে কথা বলতে সূর্যসেন হলের প্রভোস্ট ড. মকবুল হোসেন বলেন, ‘আমি বিষয়টি শুনেছি, দেখতেছি কি করা যায়।’

উল্লেখ্য, এর আগেও আগে ২০১৮ সালে অর্থনীতি বিভাগের দুই শিক্ষার্থীকে মারধরের ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষার্থীদেরকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছিল।

Previous articleকালকের পর স্টিমরোলার চালাতে হবে, আমি থাকবো দুইডা অস্ত্র লইয়া: যুবলীগ নেতা
Next articleরাজাপুরে দিবালোকে বসতঘর ভাংচুর ও লুটের ঘটনায় চুরির মামলা রেকর্ডের অভিযোগ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।