রেজাউল ইসলাম পলাশ: ঝালকাঠির রাজাপুরে দিবালোকে বসতঘর ভাংচুর ও লুটের ঘটনায় চুরির মামলা রেকর্ডের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন করেছেন রুমিছা আক্তার নামে অসহায় এক গৃহবধু।

সোমবার (৮নভেম্বর) সকাল ১০টার দিকে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের হলরুমে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন অসহায় ঐ গৃহবধু । রুমিছা আক্তার উপজেলার নৈকাঠি এলাকার মো. শহিদুল ইসলাম হাওলাদারের স্ত্রী।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে রুমিছা আক্তার জানায়, গত ৪ নভেম্বর সকালে সাতুরিয়া এলাকার স্বাধীনতা বিরোধী কুখ্যাত রাজাকার মিল্লাত হোসেন জমাদ্দারের মেয়ে বর্তমানে উপজেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরে কর্মরত বিউটিশিয়ান চন্দ্রিমা রিমু রাজাপুর সদর ইউনিয়নের সংরক্ষিত ৪, ৫, ৬ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসনের সদস্য নাজমা ইয়াসমিন মুন্নির সহায়তায় ভাড়া করা এক থেকে দেড় শতাধিক নারী-পুরুষ দেশীয় অস্ত্র রামদা, দাও, লোহার রড় নিয়া রুমিছার স্বামীর বাড়িতে প্রবেশ করে তাদের সবাইকে মারধর করে গাছের সাথে বেঁধে রাখে। রিমু তার ভাড়া করা লোকজন দিয়ে রুমিছার ২০ বছরের পুরনো বসতঘর ভাংচুর করে মাটিতে গুড়িয়ে দেয়। এরপরে ঘরে থাকা সমস্ত মূল্যবান মালামাল লুট করে পিকআপ ভ্যানে করে নিয়ে যায় তারা। স্থানীয়রা তাদের অস্ত্রের মুখে সামনে আসতে না পেরে দূর থেকে তারা ভংচুরের দৃশ্য মোবাইল ফোনে ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম দেয় যাহা দেশবাসী দেখেছেন। ঘটনার পরে মামলা দিতে রুমিছার পরিবার থানায় গেলে পুলিশ প্রথমে মামলা নিতে চায়নি। পরে মামলা নিলেও পুলিশ নিজেরা দরখাস্ত লিখে তাদের না দেখিয়ে স্বাক্ষর নেয়। তারা মূর্খ মানুষ মামলার কিছুই বুঝেনা। পরে মামলার কাগজ লোকজনকে দেখাইলে তারা জানায় থানায় চুরির মামলা রেকর্ড করা হয়েছে।

দিনের বেলায় তাদের সবাইকে বেধে রেখে সবার সামনে ভাংচুর করে মালামাল লুট করে নিয়ে গেলে সেখানে কার ইশারায় পুলিশ ভাংচুর ও লুটের ঘটনাকে চুরির মালা হিসেবে রেকর্ড করল তাদের জানা নেই। আইন কি শুধু টাকা ওয়ালাদের জন্য? গরীবরা কি সঠিক বিচার পাবনা? তারা গরীবরা আইনের সহায়তা থেকে বঞ্চিত রয়েছে বলেও অভিযোগ করেন। রুমিছ আক্তার আরো জানায়, বসতঘর ভাংচুরের পর থেকে খেলা আকাশের নিচে শীতের মধ্যে পরিবার নিয়ে রয়েছি। বসতঘর ঠিক করার আগেই রাজাকার নাতনী জামিন নিয়ে ৭ নভেম্বর বিকালে পুলিশের সহায়তায় আমার জমিতে গিয়ে ১৪৫ জারি করে। এছাড়াও রুমিছার পরিবারকে খুন করা সহ বিভিন্ন ধরনে হুমকি দিয়ে আসছে। রাজাকার নাতনী তাদের মাথা গোজার ঠাই নিশ্চিহ্ন করেছে। এখন রুমিছাদের দুনিয়া থেকে চিরতরে শেষ করার পায়তারা করছে। তরা এই রাজাকার পরিবারের হাত থেকে বাঁচতে প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশুহস্তক্ষেপ কমনা করছেন।

Previous article​ঢাবি হলে রাতভর নির্যাতনের শিকার ২ শিক্ষার্থী
Next articleবেনাপোলে গণপরিবহন চললেও বন্ধ পণ্যবাহী ট্রাক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।