মুখলেসুর রাহমান সুইট: কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) এক শিক্ষার্থীকে পিটিয়েছে শাখা ছাত্রলীগের জুনিয়র কর্মীরা। ভূক্তভোগী শিক্ষার্থী আরিফ বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকর্ম বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী ও শাখা ছাত্রলীগের তৌকির মাহফুজ মাসুদ গ্রুপের কর্মী।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে ক্রিকেট মাঠে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আরিফ একই বিভাগের প্রথম বর্ষের মারুফ ও প্রিন্সের সাথে কথা বলছিলেন। একপর্যায়ে মারুফ অন্যমনস্ক হয়ে অন্য দিকে তাকালে আরিফ তার গালে হাত দিয়ে তার দিকে মুখ ফেরানোর চেষ্টা করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে আরিফকে মারতে উদ্যত হন মারুফ। পরে প্রিন্স তাকে আটকান এবং সেখান থেকে নিয়ে যান। তবে মারুফের দাবি, আরিফ থাকে থাপ্পড় মারায় ক্ষিপ্ত হন তিনি। পরে রাত ১১টার দিকে মারুফ ও প্রিন্স লালন শাহ হলে আরিফের সাথে সাক্ষাৎ করে ক্ষমা চান।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১০টার দিকে আরিফের বন্ধুরা মারুফকে ডাকেন আরিফের সহপাঠী আবদুল্লাহ, আবু তালেব, আলম, আবুজার, অনুপম ও আইন বিভাগের হানিফ। এ সময় তাদের মাঝে বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে হানিফ মারুফকে থাপ্পড় মারেন।

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মারুফ তার বন্ধু ও সিরিয়রদের ডাকেন। এ সময় সমাজমর্ক বিভাগের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের মাসুদ, আরবি সাহিত্যের একই বর্ষের রিয়ন, মারফের বন্ধু প্রিন্স, ফয়সাল, ধ্রুব, রাব্বিসহ প্রায় ৩০ জন ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। একপর্যায়ে মাসুদসহ কয়েকজন আরিফ ও তার বন্ধুদের এলোপাতাড়ি পেটাতে শুরু করেন। এ সময় ফোকলোর স্টাডিজ বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী শাহিন ফিরোজ আটকাতে গেলে তাকেও পেটায় মাসুদরা। এ সময় ছাত্রলীগ নেতা হোসাইন মজুমদার ঠেকাতে গেলে তিনিও আহত হন।

পরে ছাত্রলীগ নেতা বিপুল খান, হোসাইন মজুমদারসহ সিনিয়রদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়। এরপর বেলা ১২টার দিকে বঙ্গবন্ধু হলের সামনে উভয়কে পক্ষকে ডাকেন ছাত্রলীগ নেতারা। এ সময় ছাত্রলীগ নেতা আল-আমিন জোয়ার্দার, ফয়সাল সিদ্দিকী আরাফাত, বিপুল খানসহ অন্য নেতারা। এ সময় মারুফকে চড়-থাপ্পড় মেরে সবাইকে হলে পাঠিয়ে দেন নেতারা।

ভূক্তভোগী আরিফ হোসেন বলেন, ‘বৃহস্পতিবার রাতে মারুফের সাথে কথা বলার সময় বারবার অন্যদিকে তাকাচ্ছিল। তখন মারুফের মুখে হাত দিয়ে আমার দিকে সরিয়ে দৃষ্টি আকর্ষনের চেষ্টা করি। তৎক্ষণাৎ ক্ষিপ্ত হয়ে সে আমাকে মারতে উদ্যত হয়। আজ (শুক্রবার) সকালে আমার বন্ধুরা মারুফকে বোঝানোর জন্য ডাকে। পরে মারুফ তার বন্ধুদের ডেকে আমাদের এলোপাতাড়ি মারতে থাকে। আমি আমার নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত।’

মারুফ বলেন, ‘আরিফ ভাই আমাকে থাপ্পড় মারায় তাৎক্ষণিক ক্ষিপ্ত হলেও পরে রাত ১১টার দিকে ভাইয়ের হলে গিয়ে ক্ষমা চাই। শুক্রবার সকালে ভাই আবার কল দিয়ে আমাকে ডাকে। এ সময় তাদের একজন আমাকে থাপ্পড় মারে। পরে আমার বন্ধুরা কয়েকজন সিনিয়রকে জানায়। তারপর মারামারির ঘটনা ঘটেছে। কে কাকে মেরেছে আমি খেয়াল করিনি। আমি মাঠে অন্য পাশে বসে ছিলাম।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ‘এ সম্পর্কে কিছু জানি না ক্যাম্পাসে এসে খোঁজ নেবো।’

Previous articleতাহিরপুর সীমান্তে ফের কয়লা আমদানি শুরু
Next articleটিকটক তারকা বানানোর ফাঁদে ফেলে কিশোরী ধর্ষণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।