বাংলাদেশ ডেস্ক: গণধর্ষণের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হওয়ার আক্রোশে এক কলেজছাত্রীর শরীরে আগুন লাগিয়ে দিল হায়েনারা। পরে নগ্ন অবস্থায় ওই নির্যাতিতা তরুণীকে রাস্তার পাশ থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। তার শরীরের ৭২ শতাংশই পুড়ে গেছে। এ ঘটনায় তিন অভিযুক্তকে অবিলম্বে গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছেন তরুণীর বাবা।

বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) ভারতের উত্তরপ্রদেশের শাহজাহানপুরের জাতীয় সড়কের পাশ থেকে ওই তরুণীকে উদ্ধার করা হয়।

বর্তমানে লখনউয়ের এক সরকারি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন বিএ দ্বিতীয়বর্ষের ওই ছাত্রী। বুধবার স্থানীয় জনতার নজরে আসে নগ্ন অবস্থায় রাস্তার ধারে পড়ে থাকা তরুণীর অগ্নিদগ্ধ দেহ। তারাই পুলিশে খবর দেন। আপাতত তরুণীর শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল।

পুলিশকে তরুণী জানিয়েছেন, তাকে তুলে নিয়ে যায় তিন অভিযুক্ত। গ্রামের একটি ক্ষেতে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের চেষ্টাও করা হয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ব্যর্থ হয়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেয় তার গায়ে।

এদিকে তরুণী যে কলেজের ছাত্রী সেখানকার সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখেছে পুলিশ। তাতে দেখা গিয়েছে, ঘটনার সময়ের কিছুক্ষণ আগে কলেজের চতুর্থ তলায় নিজের ক্লাসরুমের বাইরে বন্ধুদের সঙ্গে গল্প করছিলেন তরুণী। পরে তাকে লাইব্রেরির দিকে হেঁটে যেতে দেখা যায়। পুলিশের কাছে মেয়েটি জানিয়েছে, তিনি বুঝতে পারছেন না কলেজের চতুর্থ তলা থেকে কী করে হাসপাতালে এলেন।

গুরুতর আহত নির্যাতিতার বক্তব্য ও সিসিটিভি ফুটেজে দেখা তার গতিবিধি দেখে বিষয়টি বুঝতে চাইছে পুলিশ। তাতে তৈরি হয়েছে সংশয়ও। সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গিয়েছে, কলেজে ঢোকার ২০ মিনিটের মধ্যেই পাঁচিলের ভাঙা অংশ দিয়ে বেরিয়ে এসে একা একাই ক্যানাল রোড ধরে হাঁটছেন ওই তরুণী। কোথায় যাচ্ছিলেন ওই তরুণী, তা বোঝার চেষ্টা করছে পুলিশ। কলেজের বহু পড়ুয়া, বিশেষ করে নির্যাতিতার বন্ধুদের সঙ্গেও কথা বলা হচ্ছে।

Previous article‘যুবরাজ সালমানের মদদেই খুন হন সাংবাদিক খাশোগি’
Next articleকরোনায় ইবি ছাত্র উপদেষ্টার মৃত্যু, উপাচার্যের শোক প্রকাশ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।