বাংলাদেশ ডেস্ক: পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভার ভোটের চূড়ান্ত ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। নির্বাচনে দু’শোর বেশি আসন পেয়ে রাজ্যে তৃতীয়বারের জন্য সরকার গঠন করতে চলেছে তৃণমূল। এ নির্বাচনে তৃণমূলের হয়ে চার মুসলিম প্রার্থী রেকর্ড গড়েছেন। মালদহ জেলার সুজাপুরের প্রার্থী আব্দুল গনি সবচেয়ে বেশি ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

কলকাতার গণমাধ্যম বর্তমানের প্রতিবেদন অনুযায়ী, আব্দুল গনির জয়ের ব্যবধান ১ লাখ ৩০ হাজার ১৬৩ ভোট। সুজাপুর আসনটি দীর্ঘদিন ধরে কংগ্রেসের দখলে ছিল। এই কেন্দ্র থেকে নির্বাচিত হয়েছিলেন কংগ্রেসের আব্দুল গনি খান চৌধুরীর পরিবারের সদস্যরা। এই কেন্দ্র থেকে ওই পরিবারের শেষ বিধায়ক ইশা খান চৌধুরী। কিন্তু এবার বিধানসভা নির্বাচনের ফলে দেখা যাচ্ছে, ২২ হাজার ২৮২টি ভোট পেয়েছেন ইশা। নির্বাচন কমিশনের দেওয়া তথ্য বলছে, তৃণমূল প্রার্থী আব্দুল গনি পেয়েছেন ১ লাখ ৫২ হাজার ৪৪৫টি ভোট। জয়ের ব্যবধান ১ লাখ ৩০ হাজারের উপর। তবে জয়ের উচ্ছ্বাস থেকে অনেকটা দূরে থাকতে হচ্ছে আব্দুল গনিকে। তিনি অসুস্থ হওয়ায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

মালদহ জেলাকে কংগ্রেসের শক্ত ঘাঁটি বলা হতো। এখন তা আর নেই। মালদহের মানুষ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপরেই আস্থা রেখেছেন। সুজাপুর আসনে তৃণমূলের এই রেকর্ড মার্জিনে জয় বাংলার রাজনীতিতে মাইলস্টোন হিসেবে চিহ্নিত হয়ে থাকবে।

মালদহ জেলার এই ফলাফল প্রসঙ্গে তৃণমূল নেতাদের বক্তব্য হলো- মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের উন্নয়ন গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করেছে। দ্বিতীয়ত, বিজেপি নেতাদের বিভাজনের নীতিকে মানুষ প্রত্যাখ্যান করেছেন। মালদহ জেলায় কংগ্রেস ক্রমশ দুর্বল হয়ে পড়ায় এলাকার মানুষ ভরসা রেখেছেন তৃণমূলের উপর।

সুজাপুর আসনের মতো লক্ষাধিক ভোটের ব্যবধানে জয়ী হয়েছেন মেটিয়াবুরুজ বিধানসভা কেন্দ্রের তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী আব্দুল খালেক মোল্লা। তার জয়ের ব্যবধান ১ লাখ ১৯ হাজার ৬০৪ ভোট। তৃণমূল প্রার্থী একাই পেয়েছেন ৭৬.৮৫ শতাংশ ভোট। বিজেপি প্রার্থীর প্রাপ্ত ভোটের সঙ্গে তার ব্যবধান বিস্তর। নির্বাচন কমিশনের তথ্য বলছে, মেটিয়াবুরুজ কেন্দ্রে বিজেপি পেয়েছে মাত্র ১৬ শতাংশ ভোট।

হিসাব বলছে, আব্দুল খালেক মোল্লা গোটা রাজ্যে ‘সেকেন্ড বয়’, যিনি সর্বাধিক ভোটের ব্যবধানে জয়ী হয়েছেন। ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনের থেকেও এবার ব্যবধান বাড়িয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী।

ভগবানগোলা কেন্দ্রের তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী ইদ্রিশ আলিও লক্ষাধিক ভোটের ব্যবধানে জয়ী হয়েছেন। তিনি তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সিপিএমের কামাল হোসেনকে ১ লাখ ৬ হাজার ৮ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করেছেন। ইদ্রিশ আলি পেয়েছেন ১ লাখ ৫৩ হাজার ৪৩০টি ভোট। বড় ব্যবদানে জয়ীদের তালিকায় তার নাম তিন নম্বরে।

এরপর রয়েছেন মুর্শিদাবাদের রঘুনাথগঞ্জের তৃণমূল প্রার্থী আখরুজ্জামান। তিনি অল্পের জন্য লক্ষাধিক ভোটে জেতার মাইলস্টোন ছুঁতে পারেননি। তিনি জিতেছেন ৯৮ হাজার ৩১৩ ভোটের ব্যবধানে।

Previous articleকরোনার টিকা পেতে যুক্তরাষ্ট্রকে বাংলাদেশের চিঠি
Next articleখালেদা জিয়ার দ্রুত আরোগ্য কামনা করলেন তথ্যমন্ত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।