বাংলাদেশ ডেস্ক: ভারতে আগামী ছয় থেকে আট সপ্তাহের মধ্যে করোনাভাইরাসের তৃতীয় ঢেউ আসতে পারে বলে সতর্ক করেছে অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্স (এইমস)। দেশটিতে করোনার নতুন ধরন ডেলটা প্লাসের কারণে এ উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন এইমস এর প্রধান চিকিৎসক গুলেরিয়া। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি থেকে এ খবর জানা গেছে।

রণদীপ গুলেরিয়া বলেছেন, ‘বিধিনিষেধ ও লকডাউন তুলে নেওয়ার কারণে করোনা সংক্রমণ রোধে স্বাস্থ্যবিধি আবারও না মানার প্রবণতা শুরু হবে। লোকসমাগম ও ভিড় বাড়বে। এ কারণে ছয় থেকে আট সপ্তাহ বা তার কিছু বেশি সময়ের মধ্যে করোনার তৃতীয় ঢেউ ছড়িয়ে পড়বে। করোনা সংক্রমণ রোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা ও ভিড় এড়িয়ে যাওয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি করতে না পারলে তৃতীয় ঢেউ আসা অনিবার্য।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা জানি, করোনাভাইরাস রূপান্তরিত হতেই থাকে। সংক্রমণ প্রতিরোধে বিধিনিষেধ মেনে চলার জন্য নজরদারিও বাড়ানো প্রয়োজন। ভারতে মোট জনগোষ্ঠীর ৫ শতাংশকে করোনার টিকা দেওয়া হয়েছে। এ বছরের শেষে ভারত সরকার ১৩০ কোটি জনগোষ্ঠীর মধ্যে ১০৮ কোটিকে টিকা দিতে চায়।’ টিকাদানের বিষয়টি প্রধান চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছেন এইমসের এই প্রধান চিকিৎসক।

যুক্তরাজ্যে ডেলটা সংক্রমণের উদাহরণ তুলে ধরে গুলেরিয়া বলেন, ‘সে দেশে এখন করোনা সংক্রমণের তৃতীয় ঢেউ চলছে। করোনাভাইরাস এখনো রূপান্তরিত হচ্ছে। আমাদের সতর্ক হওয়া প্রয়োজন।’

এদিকে পিটিআইয়ের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যুক্তরাজ্যে যারা করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন, তাদের ৯৯ শতাংশ উচ্চ সংক্রমণযোগ্য ডেলটা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। প্রসঙ্গত, ডেলটা ভাইরাস প্রথমে ভারতে শনাক্ত হয়।

Previous articleহাসপাতাল থেকে ফিরোজায় ফিরছেন খালেদা জিয়া
Next articleমিয়ানমারের বিরুদ্ধে জাতিসংঘের প্রস্তাবে ভোট দেয়নি বাংলাদেশ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।