বাংলাদেশ ডেস্ক: ইসলাম ধর্মের মূল স্তম্ভ পাঁচটি। সেগুলো হলো- কালিমা, নামাজ, রোজা, হজ ও জাকাত। এখন চলছে হজের মৌসুম। সামর্থ্যবান প্রতিটি মুসলিমের ওপর জীবনে একবার হজ আদায় করা ফরজ। কিন্তু একটা প্রশ্ন- হজ কখন কার ওপর ফরজ হয়?

যার ওপর হজ ফরজ
মূলত প্রাপ্তবয়স্ক, সুস্থ ও মক্কায় গিয়ে হজকার্য সম্পন্ন করে ফিরে আসার সামর্থ্য রাখে, এমন প্রত্যেক মুসলিম নারী-পুরুষের ওপর জীবনে একবার হজ করা ফরজ।

হজ ফরজ হওয়ার জন্য পাঁচটি শর্ত রয়েছে—
এক. মুসলিম হওয়া। দুই. বিবেকবান হওয়া, পাগল না হওয়া। তিন. বালেগ হওয়া, প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়া। চার. আজাদ বা স্বাধীন হওয়া—অর্থাৎ কারো গোলাম বা দাস না হওয়া। পাঁচ. দৈহিক ও আর্থিকভাবে সামর্থ্যবান হওয়া।

কিভাবে বুঝবেন আপনার ওপর হজ ফরজ হয়েছে?
কারো ওপর জাকাত ফরজ না হয়েও তার ওপর হজ ফরজ হতে পারে। কেননা হজ ও জাকাতের মধ্যে বিশেষ পার্থক্য রয়েছে। হজ ও জাকাতের মধ্যে পার্থক্য হলো, জাকাতের সম্পর্ক নির্ধারিত নিসাবের সাথে। হজের সম্পর্ক মক্কায় আসা-যাওয়ার খরচের সাথে। সুতরাং স্থাবর সম্পত্তির কিছু অংশ বিক্রয় করে কেউ যদি হজ আদায় করতে সক্ষম হয় এবং হজ থেকে ফিরে এসে বাকি সম্পত্তি দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতে পারে, তাহলে তার ওপর হজ ফরজ। (ইমদাদুল আহকাম : ২/১৫২; আহসানুল ফাতাওয়া : ৪/৫১৬)

একইভাবে ব্যবসায়ীর দোকানে যে পরিমাণ পণ্য আছে, তার কিছু অংশ বিক্রয় করলে যদি হজ করা সম্ভব হয় এবং ফিরে এসে যদি বাকি পণ্য দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করা যায়, তাহলে তার ওপরও হজ ফরজ। (ইমদাদুল আহকাম : ২/১৫৩)

তবে নারীদের জন্য হজের সফরে স্বামী বা মাহরাম পুরুষ সাথে থাকা শর্ত। (ফাতাওয়া শামি : ২/৪৫৫)

মাহরাম কারা?
যাদের সাথে কখনো বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়া যায় না, তারাই মাহরাম। যেমন— বাবা, ছেলে, আপন ও সত্ভাই, দাদা-নানা, আপন চাচা ও মামা, ছেলে বা নাতি, জামাতা, শ্বশুর, দুধভাই, দুধ ছেলে প্রমুখ। তবে একা একা দুধভাইয়ের সাথে যাওয়া নিষেধ। (রদ্দুল মুহতার : ২/৪৬৪)

Previous articleসুইচ গেট এখন গলার কাঁটা
Next articleসুযোগের অপেক্ষায় বিজয়
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।