ব্লগার ওয়াশিকুর হত্যা: সাক্ষ্য গ্রহণ শেষ, আত্মপক্ষ শুনানি ১০ সেপ্টেম্বর

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ব্লগার ওয়াশিকুর রহমান বাবু হত্যা মামলায় সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আগামী ১০ সেপ্টেম্বর আসামিদের আত্মপক্ষ শুনানির দিন ঠিক করেছেন আদালত।

আজ মঙ্গলবার ঢাকার তৃতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ রবিউল আলম সাক্ষ্য গ্রহণ সমাপ্ত ঘোষণা করে আত্মপক্ষ শুনানির এ দিন ঠিক করেন।

ওই আদালতে সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর মোহাম্মাদ সালাহউদ্দিন হাওলাদার বলেন, ‘মামলাটির বাদী ছিলেন নিহত ওয়াশিকুরের দুলাভাই মনির হোসেন মাসুদ। তিনি মামলার পর সৌদি আরব চলে যান। এরপর থেকে তিনি সেখানেই অবস্থান করছেন। তাই তার সাক্ষ্য গ্রহণ আমরা করতে পারিনি। তাই আজ (মঙ্গলবার) তেজগাঁও থানার তৎকালীন ওসি মো. সালাহউদ্দিন আদালতে সাক্ষ্য দিয়ে এহাজারটি শনাক্ত করেছেন। এর মাধ্যমে আমরা সাক্ষ্য গ্রহণ শেষ করেছি। মামলাটিতে মোট ৪০ জন সাক্ষী আছে। যার মধ্যে আমরা ২৪ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করেছি।’

মঙ্গলবার সাক্ষ্য গ্রহণকালে আসামি নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্য জিকরুল্লাহ ওরফে হাসান, আরিফুল ইসলাম আরিফ ও সাইফুল ইসলামকে কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা হয়। মামলার অপর দুই আসামি মাওলানা জুনায়েদ আহম্মেদ ওরফে তাহের ও সাইফুল ইসলাম ওরফে আকরাম ওরফে হাসিব ওরফে আব্দুল্লাহ পলাতক।

মামলাটিতে ২০১৫ সালের ১ সেপ্টেম্বর আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন ডিবির পরিদর্শক মশিউর রহমান।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ৩০ মার্চ তেজগাঁওয়ের বেগুনবাড়ীর দিপীকা মোড়ে ওয়াশিকুরকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। হত্যার পর পালানোর সময় হিজড়া ও এলাকাবাসী মিলে দুজনকে আটক করে। এ ঘটনায় ওয়াশিকুরের ভগ্নিপতি মনির হোসেন মাসুদ বাদী হয়ে তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানায় হত্যা মামলা করেন।

ওয়াশিকুর মতিঝিলের ফারইস্ট অ্যাভিয়েশন নামে একটি ট্রাভেল এজেন্সিতে ট্রেইনি অফিসার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। বাবা টিপু সুলতানের সঙ্গে তিনি বেগুনবাড়ীর ৪/৩-এ ভবনের দ্বিতীয় তলায় একটি কক্ষে সাবলেট থাকতেন। তাদের গ্রামের বাড়ি লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপেজলার উত্তর হাজীপুরে।

Previous articleসিনহা হত্যা: তিন সাক্ষীকে আবারও চার দিনের রিমান্ড
Next article‘রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে কূটনৈতিক প্রচেষ্টা জোরদার করেছে সরকার’
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।