বাংলাদেশ প্রতিবেদক: সিলেটের মুরারীচাঁদ (এমসি) কলেজ ছাত্রাবাসে নববধূকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের মামলায় নতুন করে অভিযোগ গঠন করা হবে। শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) কলঙ্কজনক এ ঘটনার এক বছর পূর্তির দিনে এ তথ্য জানিয়েছেন মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবী শহিদুজ্জামান চৌধুরী।

তিনি বলেন, কয়েক মাস আগে এ ঘটনায় দুটি মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে পাঠানোর জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়। এখনও কোনও নির্দেশনা আসেনি। তবে উচ্চ আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী ধর্ষণ, চাঁদাবাজি ও অস্ত্র আইনের দুটি মামলার বিচার হবে একই সঙ্গে এবং একই আদালতে। সেইসঙ্গে আলোচিত দুই মামলায় আগামী ১৩ অক্টোবর নতুন করে অভিযোগ গঠন করার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান তিনি।

গত বছরের ২৫ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় এমসি কলেজ ক্যাম্পাসে ঘুরতে আসা এক নারীকে (২৪) স্বামীর কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়ে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ করে ছাত্রলীগের কয়েকজন কর্মী। এ সময় ওই দম্পতির সঙ্গে থাকা নগদ টাকা ও স্বর্ণের গহনাও ছিনিয়ে নেয় ধর্ষণকারীরা। এ ঘটনায় রাতেই ধর্ষণের শিকার নারীর স্বামী বাদী হয়ে ছয় জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরও তিন-চারজনকে আসামি করে মহানগরের শাহপরান থানায় মামলা করেন।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের পিপি অ্যাডভোকেট রাশিদা সাঈদা খানম বলেন, উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনেক আগে এলেও করোনার কারণে দীর্ঘদিন আদালত বন্ধ থাকায় মামলার কোনও অগ্রগতি হয়নি। উচ্চ আদালতের আদেশের ফলে নতুন করে অভিযোগ গঠন করা হবে। আগামী ১৩ অক্টোবর তারিখ ধার্য করা হয়েছে। ওই দিন অভিযোগ গঠন করার সম্ভাবনা রয়েছে।

আদালত সূত্র জানায়, গত ২৪ জানুয়ারি আদালতে এ দুটি মামলার বিচারকাজ একসঙ্গে শুরু করার আবেদন করেছিলেন বাদীপক্ষ। শুনানি শেষে বিচারক আবেদনটি খারিজ করে দেন। এরপরই বাদীপক্ষ মামলা দুটির বিচার কার্যক্রম একই আদালতে সম্পন্নের জন্য জানুয়ারি মাসেই উচ্চ আদালতে একটি ফৌজদারি বিবিধ মামলা করেন। গত ৭ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্ট এমসি কলেজের ছাত্রাবাসের ঘটনায় মামলা দুটির বিচার কার্যক্রম একসঙ্গে একই আদালতে সম্পন্নের আদেশ দেন।

গত বছরে ৩ ডিসেম্বর ছাত্রলীগের ৮ কর্মীকে অভিযুক্ত করে চালঞ্চল্যকর এই ধর্ষণ মামলার অভিযোগপত্র আদালতে জমা দেন তদন্ত কর্মকর্তা ও শাহপরান থানার তৎকালীন পরিদর্শক (তদন্ত) ইন্দ্রনীল ভট্টাচার্য।

অভিযোগপত্রে সাইফুর রহমান, শাহ মাহবুবুর রহমান ওরফে রনি, তারেকুল ইসলাম ওরফে তারেক, অর্জুন লস্কর, আইনুদ্দিন ওরফে আইনুল ও মিসবাউল ইসলাম ওরফে রাজনকে সরাসরি ধর্ষণের জন্য অভিযুক্ত করা হয়। অপর দুই আসামি রবিউল ইসলাম ও মাহফুজুর রহমান ওরফে মাসুমকে ধর্ষণে সহায়তা করার জন্য অভিযুক্ত করা হয়। আট আসামিই বর্তমানে কারাগারে আছেন। তারা সবাই ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত।

সূত্র জানায়, আদালতের নির্দেশে গ্রেফতার আট আসামির ডিএনএ সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হয়। ডিএনএ রিপোর্টেও তাদের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ প্রমাণিত হয়। এরপর অভিযুক্ত ৮ জনকেই স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করে কলেজ কর্তৃপক্ষ। পরে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ও চার জনের ছাত্রত্ব ও সার্টিফিকেট বাতিল করে।

এদিকে, চলতি বছরের ২ জুন দায়িত্বে অবহেলার কারণে কলেজের অধ্যক্ষ সালেহ আহমেদ ও হোস্টেল সুপার জীবন কৃষ্ণ আচার্যের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট। এতে বলা হয়, ‘ছাত্রাবাসে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পেছনে মূলত হোস্টেল সুপার ও প্রহরীদের দায়িত্বে অবহেলা ছিল। প্রতিষ্ঠানের প্রধান হিসেবে ওই কলেজের অধ্যক্ষও কোনোভাবে ঘটনার দায় এড়াতে পারেন না।’

এ ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠনের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি মো মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মহি উদ্দিন শামীমের ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ। এর পরিপ্রেক্ষিতে সরেজমিনে তদন্ত করে ২০ অক্টোবর প্রতিবেদন হাইকোর্ট বেঞ্চে জমা দেন সিলেটের সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ মো. বজলুর রহমান, সিলেটের মুখ্য মহানগর হাকিম মো আবুল কাশেম, অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ মমিনুন নেছা ও সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শারমিন সুলতানার সমন্বয়ে গঠিত তদন্ত কমিটি।

Previous articleদেশে করোনায় আরও ২৫ জনের প্রাণহানি
Next articleপাবনায় প্রতিবন্ধীদের ক্ষুদ্র ঋণ প্রদানে ব্যাংক ও ঋণ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের ভূমিকা শীর্ষক মতবিনিময় সভা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।