কাগজ ডেস্ক: দ্বিতীয় ধাপে ১১৬টি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলছে। সোমবার সকাল ৮টায় শুরু হওয়া ভোটগ্রহণ কার্যক্রম বিরতিহীনভাবে চলবে বিকাল ৪টা পর্যন্ত। ভোট উপলক্ষে নির্বাচনী এলাকায় ঘোষণা করা হয়েছে সাধারণ ছুটি।
এ নির্বাচনে প্রশাসনের পক্ষপাতের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে ইসি। এ ধরনের অভিযোগে ছয় থানার ওসিকে ভোটের কার্যক্রম থেকে সরিয়ে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।
কোনো কেন্দ্রে ভোটগ্রহণে অনিয়ম হলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে দায় নিতে হবে বলেও হুশিয়ারি দেয়া হয়েছে।
যান চলাচলের ওপর বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। নিরাপত্তায় বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ ও আনসারের মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স মাঠে রয়েছে। পার্বত্য তিন জেলায় এসব বাহিনীর পাশাপাশি সেনাবাহিনীও মোতায়েন করা হয়েছে।
ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, আজ ১২৯টি উপজেলায় ভোটগ্রহণের কথা ছিল। কিন্তু এ ধাপে ভোট ছাড়াই ৪৮ চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।
এর মধ্যে ৬টি উপজেলার সবক’টি পদে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হওয়ায় সেখানে ভোট হচ্ছে না। ৬টি উপজেলার ভোট অন্য ধাপে স্থানান্তর করা হয়েছে। আদালতের নির্দেশে বন্ধ আছে একটি উপজেলার ভোট।
বাকি ১১৬ উপজেলায় আজ ভোট। বিএনপিসহ বেশ কয়েকটি রাজনৈতিক দল এ দফার নির্বাচনেও অংশ নেয়নি।
এদিকে ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, নির্বাচন যাতে শান্তিপূর্ণ, অবাধ ও নিরপেক্ষ হয় সেজন্য কমিশন কঠোর মনোভাব পোষণ করেছেন। কেউ যদি অনিয়মের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয় তার বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ নির্বাচনী দায়িত্বে নিয়োজিত কেউ যদি কাজে অবহেলা করেন তবে তাৎক্ষণিক তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।