শেখ সাইফুল ইসলাম: উপকূলীয় এলাকায় কাছাকাছি ঘূর্ণিঝড় ফণী আসছে। ফলে শুক্রবার ভোর রাত থেকে বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা,পটুয়াখালী, বরিশাল, ভোলা, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, ও বরগুনাঅঞ্চলে বৃষ্টি শুরু হয়েছে। একইসঙ্গে দমকা বাতাসে সমুদ্রে উত্তাল ঢেউ।ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’র প্রভাবে আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েছে উপকূলীয় জেলা বাগেরহাটের মানুষ। ‘ঘরপোড়া গরু সিঁদুরে মেঘ দেখলে ভয় পায়’ এমন অবস্থা হয়েছে ‘সিডর’ বিধ্বস্ত শরণখোলা, মোরেলগঞ্জ ও মোংলা উপজেলাবাসীর।

শুক্রবার সকালে বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে আবহাওয়া অধিদফতর জানিয়েছে, ঘূর্ণিঝড় ফণী বৃহস্পতিবার রাত তিনটায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৮৫০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৮৩০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৬৬৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে ও পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৬৯৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছিল। এটি আরও ঘনীভূত ও উত্তর-উত্তর পূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে শুক্রবার বিকেল নাগাদ ভারতের ওডিশা উপকূল অতিক্রম করতে পারে। পরবর্তীতে ওডিশা-পশ্চিমবঙ্গ উপকূল হয়ে সন্ধ্যা নাগাদ খুলনা ও তৎসংলগ্ন বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল এলাকায় পৌঁছাতে পারে ‘ফণী’।

আবহাওয়াবিদ আরিফ হোসেন বলেন, ‘শুক্রবার সন্ধ্যায় ফণী বাংলাদেশের উপকূলে আঘাত হানতে পারে। তবে, ঝড়ের অগ্রগতি অংশের প্রভাব পড়তে পারে শুক্রবার ভোর থেকেই। খুলনা ও সাতক্ষীরাসহ উপকূলীয় জেলাগুলোতে শুরু হতে পারে ঝড়ো হাওয়া। পাশাপাশি কোথাও কোথাও হতে পারে বৃষ্টি। এরইমধ্যে দেশের অনেক এলাকা মেঘাচ্ছন্ন হয়ে পড়েছে। এই মেঘের ব্যাপ্তি বাড়তে পারে।’

এদিকে আবহাওয়াবিদ খো. হাফিজুর রহমান জানান, ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৭৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১৮০ কি. মি. যা দমকা বা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ২০০ কি. মি. পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের নিকটে সাগর খুবই বিক্ষুব্ধ রয়েছে।

তিনি আরও জানান, মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরসমূহকে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। উপকূলীয় জেলা ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা এবং এর কাছাকাছি দ্বীপ ও চরগুলো ৭ নম্বর বিপদ সংকেতের আওতায় থাকবে।তবে ফণী মোকাবিলায় সর্বোচ্চ প্রস্তুতি রয়েছে বলে জানিয়েছেন বাগেরহাট জেলা প্রশাসন। জেলা প্রশাসন দফায় দফায় সভা জেলা সদর ও উপজেলাগুলোতে কন্ট্রোলরুম ও মনিটরিং কমিটি গঠন করা হয়েছে। পাশপাশি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যসহ জনপ্রতিনিধিদের সাধারণ মানুষদের প্রতি খেয়াল রাখতে বলা হয়েছে।

বাগেরহাট জেলা প্রশাসক (ডিসি) তপন কুমার বিশ্বাস বলেন, ঘূর্ণিঝড় ফণী মোকাবিলায় ২৩৪টি আশ্রয়কেন্দ্র এবং সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এসব আশ্রয়কেন্দ্রে প্রায় আড়াই লাখ মানুষ আশ্রয় নিতে পারবেন। জেলা সদরসহ নয়টি উপজেলায় একটি করে কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে এবং ৭৫টি ইউনিয়নে ৭৫টি মেডিকেল টিম প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

সব সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি বাতিলসহ রেড ক্রিসেন্ট, ফায়ার সার্ভিস ও বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার কয়েক শত স্বেচ্ছাসেবকদের প্রস্তুত থাকতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এসবের পাশাপাশি জনসাধারণকে সচেতন করার জন্য জেলার সর্বত্র মাইকিং করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি প্যাকেট শুকনো খাবার মজুদ রয়েছে।।

চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরকে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। উপকূলীয় জেলা চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর এবং এর কাছাকাছি দ্বীপ ও চরগুলো ৬ নম্বর বিপদ সংকেতের আওতায় থাকবে। অপরদিকে কক্সবাজার সমুদ্র বন্দরকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদফতর আরও জানিয়েছে, ঘূর্ণিঝড় এবং অমাবস্যার প্রভাবে উপকূলীয় জেলা বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা,বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, ভোলা, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর, এবং এর কাছাকাছি দ্বীপ ও চরগুলোর নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৪ থেকে ৫ ফুটের বেশি উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে।

ঘূর্ণিঝড় অতিক্রমকালে বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা,বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, ভোলা, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর, জেলা এবং এর কাছাকাছি দ্বীপ ও চরগুলোতে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিসহ ঘন্টায় ৯০ থেকে ১১০ কি. মি. বেগে দমকা বা ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।
আবহাওয়া অধিদফতর বলছে, বাংলাদেশের উপকূলে শুক্রবার সন্ধ্যায় আগে কিংবা পরে আঘাত হানবে ফণী। ওই সময় দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাংশে মাঝারি থেকে বড় আকারের ঝড় বয়ে যাবে।

ঘূর্ণিঝড় ফণীর নিকটবর্তী এলাকায় বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ হবে ঘণ্টায় ১৮০ কিলোমিটার থেকে ২০০ কিলোমিটার।