পার্বত্য চট্টগ্রামে মোবাইল ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছিল বিএনপি: প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘কোনও ঘরই অন্ধকারে থাকবে না, সব ঘরেই পৌঁছে যাবে আলো।’ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রামে সোলার প্যানেল উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। এ সময় তিনি ৪টি প্রকল্প উদ্বোধন করেন।
প্রকল্পগুলো হলো- পার্বত্য চট্টগ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলে সোলার প্যানেলের মধ্যে দিয়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ শীর্ষক প্রকল্প, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিমেল সায়েন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় ক্যাম্পাসে গবেষণা প্রকল্প, বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটি গাজীপুরের ডাটা সেন্টার ও বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনের (বিএসসি) নতুন ৫টি জাহাজের প্রকল্প।
পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী এসময় বলেন, ১৯৭০ সালে পার্বত্য অঞ্চলের বিভিন্ন এলাকা আমরা ঘুরেছি। আমার মা আমাদের নিয়ে গিয়েছিলেন। কাজেই আমার ওই এলাকা সম্পর্কে যথেষ্ঠ জানা ছিল। পরবর্তীকালে আমরা চেষ্টা করেছি, ওখানকার মূল সমস্যাটা জানতে। তারপর আমি একটা ঘোষণা দিয়েছিলাম, এটা রাজনৈতিক সমস্যা। তাই রাজনৈতিকভাবে আলোচনা করে সমাধান করতে হবে। আমরা সে ব্যাপারে উদ্যোগ নিই এবং সফল ইহ।
শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৯৬ সালে ২১ বছর পর যখন আমরা সরকার গঠন করি, তখন জাতীয় সংসদে একটা কমিটি গঠন করি। সেই ন্যাশনার কমিটির মাধ্যমে যেমন আলোচনা করি, তেমনি এর বাইরেও আমি আমার নিজের উদ্যোগে আলাপ-আলোচনা চালাই। এর ফলে আমরা এর পরের বছরই একটা শান্তি চুক্তি করতে সক্ষম হই। এবং এই শান্তি চুক্তিই শুধু করা হয়নি। ওখানে যারা অস্ত্রধারী ছিল, তারা আমার কাছে অস্ত্র সমর্পণ করে। এবং এদের সবাইকে পুনর্বাসন করি।
তিনি বলেন, ৬৪ হাজার রিফিজি ছিল ভারতে। আমি তাদের ফিরিয়ে এনে তাদের পুনর্বাসন করি। পাশাপাশি ওই অঞ্চলের সার্বিক উন্নয়নে ব্যাপক কর্মসূচি আমরা হাতে নিই। ৫ বছর মাত্র ক্ষমতায় ছিলাম। অনেক করার ইচ্ছা ছিল। এরপর যখন ৭ বছর পর ২০০৮ এর নির্বাচনে জয়ী হয়ে ২০০৯ এ আমরা সরকার গঠন করি।
সরকারপ্রধান বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে মোবাইল ব্যবহার করা নিষিদ্ধ করে দিয়েছিল বিএনপি সরকার। আমরা এসে সেখানে মোবাইল চালু করে দিই। এবং ওই অঞ্চলে বিদ্যুৎ দেওয়ার জন্য যেহেতু গ্রিড লাইন করা সম্ভব না, যেহেতু যথেষ্ঠ দুর্গম অঞ্চল, তাই আমরা সেখানে ব্যাপক সোলার প্যানেল দেওয়া শুরু করি। হাসপাতাল, মেডিকেল কলেজ, রাস্তা-ঘাট তৈরি করা, পুল-ব্রিজ তৈরি করাসহ ব্যাপক হারে উন্নয়নের কাজ আমরা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি।
তিনি বলেন, ওই অঞ্চলের মানুষ খুব দরিদ্র ছিল। আমরা তাদের আর্থসামাজিক উন্নয়নের জন্য ব্যাপক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি। আর সেই কর্মসূচির আওতায়ই পার্বত্য অঞ্চলের প্রত্যন্ত অঞ্চলের প্রতিটি ঘরে আমরা আলো জ্বালবো এটাই আমাদের লক্ষ। কোনও ঘর যেন অন্ধকার না থাকে। এর জন্য সেখানে আমরা সোলার প্যানেল প্রতিষ্ঠা করে যাচ্ছি। এর জন্য আমরা কর্মসূচি নিয়েছি। এই কর্মসূচির আওতায়ই আজকে আমরা পার্বত্য অঞ্চলে আমরা এ সোলার প্যানেল স্থাপনে এই কর্মসূচিটি উদ্বোধন করছি।
শেখ হাসিনা বলেন, পর্যায়ক্রমিকভাবে প্রত্যেকটা বাড়ি, কোনও বাড়ি বা কোনও বাজার বা কোথায় অন্ধকার থাকবে না। এতটুকু আমরা কথা দিতে পারছি। আমরা সেভাবে প্রকল্প নিয়েছি এবই সেভাবেই তা বাস্তবায়ন করবো।
এসময় তিনি আরও বলেন, ঢাকায় আমরা পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক একটা কমপ্লেক্সও তৈরি করে দিচ্ছি। মন্ত্রণালয়ের অফিস থেকে শুরু করে যারা আঞ্চলিক অফিস, তার জন্য বাসস্থানসহ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, তাদের আসা-যাওয়া, ঢাকায় থেকে কাজ করার সুবিধা থাকবে সেখানে। পার্বত্য চট্টগ্রামের আদলেই এর ডিজাইন করা হয়েছে।